Tuesday, July 01, 2014

হিন্দু ছেলে মুসলিম মেয়ের প্রেমের ঘটনায় ১২০ হিন্দু পরিবার ঘর ছাড়া

শেরপুর সদর উপজেলার প্রত্যন্ত পল্লী বেতমারী গ্রামে হিন্দু ছেলের সঙ্গে মুসলিম মেয়ের প্রেমের ঘটনাকে কেন্দ্র করে ওই গ্রামের ১২০ হিন্দু পরিবার এখন বাড়ী-ঘর ছেড়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছে। ২০ জুন শুক্রবার হামলার শিকার ৫ পরিবারের লোকজন জেলা পূজা উদযাপন পরিষদ কার্যালয়ে এসে আশ্রয় নিয়েছে।

জানা গেছে, বেতমারী উত্তরপাড়ার পুনি রবিদাসের ছেলে রতন রবিদাসের সঙ্গে একই গ্রামের মৃত রশিদ মিয়ার এইচ এস সি পড়ুয়া মেয়ের সাথে প্রেমের সম্পর্ক ছিল। বিগত ১০ জুন গার্মেন্টস কর্মী রতন ওই মেয়েটিকে নিয়ে পালিয়ে যায়।

১৬ জুন স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ছেলে-মেয়েকে উদ্ধার করে এক সালিসী সভা করেন। সেই সভায় মেয়েটি নিজের ইচ্ছায় ছেলের সাথে বেড়িয়ে গেছে বলে স্বীকার করে। ছেলেটি ধর্মান্তরিত হয়ে মেয়েটিকে বিয়ে করতে রাজী হয়। তবে মেয়ের মামা শহিদুল মেম্বারসহ স্থানীয় কিছু প্রভাবশালী লোক এতে রাজী না হয়ে ওই ছেলের শাস্তি দাবী করে। এক পর্যায়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনের বাইরে চলে গেলে চেয়ারম্যান ছেলে-মেয়ে দু’জনকে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে শতাধিক লোকজন ১৭ তারিখ রাতে ওই এলাকার রবিদাস সম্প্রদায়ের বাড়ী ঘরে হামলা চালিয়ে নারী-পুরুষসহ বেশ কয়েকজনকে আহত করে। এসময় গোয়ালের গরু-টাকা পয়সা ছিনিয়ে নেওয়া হয়। দেশ ছেড়ে চলে যাওয়ার হুমকিও দেওয়া হয়।

এতে আতঙ্কিত নারী-পুরুষসহ প্রায় শতাধিক পরিবার শেরপুর ও জামালপুর জেলা শহরে আত্মীয়-স্বজনের কাছে এবং কিছু পরিবার বর্তমানে শেরপুর জেলা পূজা উদযাপন পরিষদ কার্যালয়ে আশ্রয় নিয়েছেন। ১০-১৫টি পরিবারকে তাদের বাড়ীতে অবরুদ্ধ করে রাখা হয়েছে। শুক্রবার পুলিশের একটি দল পরিস্থিতি পর্যবেক্ষন করতে বেতমারী গেলে তাদের সামনেই দুই হিন্দু পরিবারের সদস্যদের ওপর হামলা চালানো হয়। পুলিশ চলে এলে দুটি বাড়ীতে হামলা করে ভাঙ্চুর করা হয়। এতে দুজন গুরুতর আহত হয়েছেন।

এব্যাপারে স্থানীয় তুফানু রবিদাসের স্ত্রী শান্তি রানী বলেন, “আমগরে কি অপরাধ জানিনা। প্রেম করছে রতন-সীমা। অত্যাচার চলতাছে আমগরে উপরে। দেশ ছাইর‌্যা যাবার জন্য হুমকি দিতাছে। আমগরে বাঁচান।”

একই গ্রামের দুলালী বলেন, “পুলাপান নিয়া তিন দিন ধইর‌্যা এলাকা ছাড়া। আমার স্বামী সেলুনে কাজ করে। সেলুন বন্ধ। পুলাপান না খাইয়্যা আছে।”

এলাকার ধানু চকিদার বলেন, “আমারে ধইর‌্যা মারছে। ভয়ে বাড়ীতে যাবার পাইতাছিনা।”

বেতমারী- ঘুঘরাকান্দি ইউপি চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, ছেলে-মেয়ে দুজন দুজনকে ভালবাসে। ছেলে মুসলমান হতে চায়। তবে এলাকার কিছু দালাল বাটপার এতে বাধা দিচ্ছে। তারা এ ঘটনাকে অন্যরকম রং দিয়ে সুবিধা নিতে চায়। তিনি বলেন অ্যাকশানে না গেলে হিন্দুরা এলাকায় থাকতে পারবে না।

সদর থানার ওসি মাযহারুল করিম বলেন, বিষয়টি স্পর্শকাতর। আমরা ৫৪ ধারায় ছেলে মেয়েকে গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতে সোপর্দ করেছি। মেয়েটি ছেলেটিকে ছাড়া বাঁচবেনা বলে হুমকি দিয়েছে। ছেলে মেয়ের আত্মীয় স্বজন কেউ সমাধানের জন্য আসছে না।

এদিকে হিন্দু সম্প্রদায়ের ওপর নির্যাতনের ঘটনায় জেলা পূজা উদযাপন পরিষদ, হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রীষ্টান ঐক্য পরিষদ ও জেলা মানাবাধিকার সংস্থা তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করে দোষীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য পুলিশ প্রশাসনকে অনুরোধ করেছেন।



(তথ্যসূত্র

No comments:

Post a Comment