Wednesday, July 02, 2014

এই কি সংযমের নমুনা?


 
গতকাল সোমবার রাতে স্বামীবাগ ইস্কন মন্দিরে দেড় শতাধিক মুসল্লি হামলা করে। ঘটনাস্থলে উপস্থিত হিন্দুবার্তার নিজস্ব প্রতিনিধি জানায়, রাত সাড়ে নয়টার দিকে ঘটনাটি ঘটে। তারাবীর নামাজ শেষ করে মুসল্লিরা মন্দিরে দলবদ্ধভাবে হামলা করে। হামলার পরপরই মন্দিরের প্রধান ফটক বন্ধ করে দেওয়া হয়। শতাধিক মুসল্লি মন্দিরের প্রাচীরের বাইরে থেকে ভেতরে ইট-পাথর ছুড়ে মারে। এতে মন্দিরের জলের ট্যাংকসহ বেশকিছু স্থাপনার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। তারা মন্দিরের গেইটে লাথির পর লাথি মারে আর অশ্রাব্য ও জিহাদী ভাষায় হিন্দুদের ও মন্দিরের নামে গালিগালাজ করে।মন্দিরের ভক্তদের অভিযোগ, হামলার সময় পুলিশ উপস্থিত ছিল। তাদের নীরব ভূমিকা নিয়ে সবাই প্রশ্ন তোলেন। তবে পরবর্তীতে অধিক সংখ্যক পুলিশ ও আধাসামরিক বাহিনী মোতায়েনের পর রাত বারটার মধ্যে পরিস্থিতি শান্ত হয়।
হামলাকারী মুসল্লিদের দাবি তাদের নামাজের সময় মন্দিরের অনুষ্ঠানের শব্দ মাইকে সাউন্ড দিয়ে বাজানো হয়েছে। তবে মন্দিরে উপস্থিত ভক্তবৃন্দ হিন্দুবার্তাকে জানান, সন্ধ্যার পর থেকেই মন্দিরের কোন সংকীর্ত্তন বা অনুষ্ঠান মাইকে বাজানো হয়নি। তারা জানান, আমরা হিন্দুরা চিরকালই সকল ধর্মের সহাবস্থান ও সম্প্রীতিতে বিশ্বাস করি। এদেশে সংখ্যাগুরু মুসলিমদের নামাজে বিঘ্ন ঘটিয়ে মন্দিরে মাইক বাজানো হবে এমন কথা কোন হিন্দু কল্পনাও করে না। এমতাবস্থায় মুসল্লিদের অভিযোগ একান্তই উদ্দেশ্য প্রণোদিত ছাড়া আর কিছুই নয়।

এদিকে দ্যা বাংলাদেশ হেরাল্ড সহ বেশ কিছু অখ্যাত অনলাইন পত্রিকা উক্ত ঘটনায় হিন্দুদেরকে দোষী করে চরম বিকৃত ও সাম্প্রদায়িক উস্কানিমূলক একটি সংবাদ পরিবেশন করে যাচ্ছে। যা এদেশের ধর্মান্ধ মুসলমানদের ক্ষেপিয়ে তুলে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা লাগাতে যথেষ্ট।
 

No comments:

Post a Comment