Friday, July 04, 2014

প্রসঙ্গ: হিন্দুধর্মে গোমাংস

এক ভন্ড মূর্খ পন্ডিত দাবি করেছেন, শ্রীরামচন্দ্র নাকি মধু দিয়ে তৈরী মদ এবং গোমাংস আহার করতেন! এর ভিত্তিতে তিনি দাবী করছেন যে হিন্দুধর্মে গোমাংস ভক্ষন নিষিদ্ধ নয়! যদিও এই নব্য শাস্ত্রপন্ডিত রামায়ন থেকে কোনো রেফারেন্স দেখাতে পারেননি।
শ্রীরামচন্দ্র আসলে খাদ্য হিসেবে কি গ্রহন করতেন?
বাল্মীকি রামায়নের সুন্দরকান্ড, স্কন্দ ৩৬ এর ৪১ নং শ্লোকে শ্রীরামচন্দ্রেরখাদ্যবিধি বর্ননা করা হয়েছে এভাবে-
ন মাংসম রাঘব ভুংক্তে।
ন চৈব মধু সেবতে। বন্যম সুবিহিতম নিত্যম ভক্তমস্নতি পঞ্চমম।।
অনুবাদ-"শ্রীরামকোনপ্রকার মাংস ও মধু খেতেন না।তিনি প্রতিদিন ফল এবং স্বিদ্ধ ভাত খেতেন যা একজন ব্রহ্মচারীর জন্য অনুমোদিত।"
কিষ্কিন্ধ্যা কান্ডের প্রথম অধ্যয়ে শ্রীরামের বনবাস যাত্রাকালে পথিমধ্যে রাজা কবন্ধের সাথে দেখা হলে কোনদিকে গেলে তিনি তার জীবনধারনের জন্য তিনি যে নিরামিষ আহার করেন তা পাওয়া সুবিধাজনক হবে জানতে চাইলে কবন্ধ তাঁকে বলেন-
"হে রাম,তুমি এখান থেকে পশ্চিমদিকে যাও,সেখানে তুমি তোমার প্রয়োজনীয় ফল আম,কাঠাল,কলাসহ অন্যান্য ফলগুলো এবং নাগ,ধন্ব,তিলক,নক্তমালাসহ প্রয়োজনীয় অন্যান্য সবজিগুলো পাবে।"
বনবাসের জন্য অযোধ্যা ত্যগকালে মাতা কৌশল্যার প্রতি শ্রীরামচন্দ্রের প্রতিশ্রুতি-
ফলমুলাসন নিত্যম ভবিষ্যামি নসংশয়।
ন তু দুখং কৈশ্যামি নিবসন্তি ত্বয় সদা।।
(অযোধ্যা কান্ড ২.২৭.১৬)
অনুবাদ-"মা তোমাকে আমি কথা দিচ্ছি আমি ফলমূলাদি ছাড়া কখনো মাংসাদি গ্রহন করবনা।তোমাকে ছেড়ে থাকলেও আমি কখনো এরুপ বিপথগামী হবনা।"
অথচ এই জ্ঞানপাপী কূপমুন্ডকরা শ্রীরামচন্দ্রের নামে কি অপপ্রচারটাই না চালাচ্ছে! এইসব কুচক্রীদের থেকে সতর্ক থাকুন।


(সংগৃহীত

No comments:

Post a Comment