Tuesday, August 12, 2014

দ্যা বাম মুমিনস এর সাথে কথোপকথন


-আপনি ফিলিস্তিনে ইসরাইলের আক্রমণ নিয়ে লিখছেন না কেন?
-লিখেছি তো।
- কই লিঙ্ক দেন।
-খুঁজে পড়ুন, লিঙ্ক দিতে পারবো না। আমি কাউকে লিঙ্ক দেই না।
-আচ্ছা আপনি ফিলিস্তিন ইসরাইল সমস্যার কারণ কী মনে করেন? আপনার লেখা পড়ে মনে হচ্ছে ধর্মই এই সংঘাতের কারণ।
- হ্যাঁ ধর্ম তো বটেই, জাতীয়তাবাদও। জন লেনন বলেছেন, একদিন ধর্মমুক্ত রাষ্ট্রমুক্ত পৃথিবী হবে, সেদিন "nothing to kill or die for" এর সময় আসবে। কোন কিছু নিয়ে কাউকে আর খুন করতে হবে না। সমস্ত পৃথিবীই সব মানুষের হবে।
- কিন্তু ঐ ভূমি তো প্যালেস্টাইনের জনগণের।
- আমি ভূমির মালিকানায় বিশ্বাসী না। আমার ধারণা মার্ক্সও ব্যক্তি মালিকানায় বিশ্বাসী ছিলেন না। ঐ অঞ্চলে ইহুদী এবং মুসলমানের সুখে শান্তিতে বসবাসের জন্য যথেষ্ট ভূমি রয়েছে। প্যালেস্টাইনের মানুষের যেমন ঐ ভূমির প্রতি আবেগ আছে, ইহুদীদেরও আছে। আমি কাউকে ঐ ভূমি থেকে উৎখাত করতে চাই না। প্যালেস্টাইনে ইহুদী মুসলমান মিলে মিশে বসবাস করবে। আদতে প্যালেস্টাইন ইসরাইল কোন রাষ্ট্রই আমি চাই না। সমস্ত রাষ্ট্রই ক্ষতিকর। মানুষের প্রভু হবার চেষ্টা করছে রাষ্ট্রগুলো। আমি মানুষের প্রভুতে বিশ্বাসী নই। তা আল্লাহ হোক কিংবা সেনাবাহিনী, পুলিশ, সংসদ, রাষ্ট্র। সমস্ত সীমানা, সমস্ত দেয়াল-তা শুধু ইট পাথরের দেয়াল নয়, ধর্ম ও জাতীয়তাবাদের দেয়াল ভেঙ্গে দিতে না পারলে মানুষের মুক্তি সম্ভব নয়।
-কিন্তু এর সাথে তো ধর্মের কোন সম্পর্ক নেই, এটা তো রাজনৈতিক বিষয়। আপনি অযথাই ধর্মকে টানছেন কেন?
- ধর্মকে টানছি কারণ দুই পক্ষই ধর্মকেই ব্যবহার কাছে। ধর্মীয় আবেগই তাদের একে অপরকে খুন করার প্রভাবক। ধর্মগ্রন্থগুলোও তাদের এই সংঘাতে বেশ ঘি দিয়ে যাচ্ছে।
- কিন্তু আপনি দুই পক্ষ দুই পক্ষ করছেন কেন? প্যালেস্টাইনে কতজন মারা গেছে আর ইসরাইলে কতজন? তাদের অনুপাত কত?
- আমি ভাই রক্তাক্ত লাশের আনুপাতিক হার অনুসারে মানবতাবাদী সেজে পিঠ চাপড়ানি কামনা করি না। প্রতিটি মানুষই আমার কাছে মূল্যবান। কোন পক্ষে একজন আর অন্য পক্ষ লক্ষ জন মারা গেলেও আমি দুই পক্ষের জন্যেই কথা বলবো। লাশের সংখ্যা আমাকে নিয়ন্ত্রণ করবে কেন? আমি ইহুদী ধর্মবাদী রাষ্ট্র ইসরাইলের বিরোধিতা করি, কিন্তু মোমিন মোসলমানদের মত সৌদি পাকিস্তানের মত ধর্মবাদী রাষ্ট্রের পক্ষে থেকে ইসরাইলের বিরোধিতার মত হিপোক্রেট হতে পারছি না। সমস্ত ধর্মবাদী রাষ্ট্রই নোংরা এবং নিকৃষ্ট। আমি মনে করি, সকল ধর্মবাদী রাষ্ট্রের সাথেই বাঙলাদেশের সম্পর্ক ছিন্ন করা প্রয়োজন। বাঙলাদেশের সাথে পাকিস্তানের সুসম্পর্ক রয়েছে, অথচ মুক্তিযুদ্ধে প্রথমদিককার স্বীকৃতিদানকারী রাষ্ট্র ইসরাইলের সাথে বাঙলাদেশের কোন সম্পর্ক নেই। এটা পরিষ্কার আহাম্মকি। ইসরাইলের সাথে সম্পর্ক ছিন্ন হলে সৌদি, পাকিস্তান, ইংল্যান্ড, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সাথেও আমাদের সম্পর্ক ছিন্ন করা উচিত। তা কী আমরা পারবো?
প্যালেস্টাইনের স্বাধীনতা সংগ্রাম আমি সমর্থন করি, যেহেতু ঐ অঞ্চলের মানুষ স্বাধীনতা চায়। যদিও স্বাধীনতা বলতে তারা যা বোঝে আর আমি যা বুঝি তা এক নয়, স্বাধীনতার সংজ্ঞা বিষয়ে আমার মত পার্থক্য আছে। ঠিক যেমনটা আমি সমর্থন করি আমাদের অঞ্চলের আদিবাসীদের সংগ্রাম। তাই বলে পার্বত্য অঞ্চলের নানান সন্ত্রাসী গ্রুপকে আমি সমর্থন করি না। যারা বাঙালিদের অপহরণ করে অর্থ দাবী করে। বিদেশি পর্যটকদের অপহরণ করে। এবং নানান সাহায্য তারা অস্ত্র এবং গোলাবারুদ কেনার জন্য খরচ করে। পার্বত্য অঞ্চলে তারা স্কুল করতে দেয় না, ঐ অঞ্চলের মানুষকে শিক্ষিত হতে দেয় না, তাদের জীবনযাত্রার মান উন্নয়ন করতে দেয় না। কারণ তারা সামন্তবাদী শক্তি। তারা মনে করে ঐ অঞ্চলের জনগণ শিক্ষিত হলে তাদের আর মান্যগণ্য করবে না। তাদের "জেহাদের" জন্য আর লোকজন পাওয়া যাবে না। বস্তুতপক্ষে প্রকৃত শিক্ষিত হওয়া মানেই আমার কাছে স্বাধীন হওয়া, স্বাধীনতা পাওয়া। রাষ্ট্র কাউকে স্বাধীনতা দেয় না। স্বাধীন রাষ্ট্র শুধু এক প্রভুকে সরিয়ে আরেক প্রভুকে ক্ষমতা দেয়। বাঙলাদেশের সেনাবাহিনী যেমন তাদের ওপর অত্যাচার চালায়, ঐ অঞ্চলের রাজনৈতিক নেতারা, সন্ত্রাসী গ্রুপগুলোও তাদের ওপর অত্যাচারই চালায়। তারা দুই পক্ষ দ্বারাই নির্যাতিত। একইভাবে, হামাসকেও আমি সেভাবেই দেখি। তারা প্যালেস্টাইনের স্বাধীনতাকামী মানুষের প্রতিনিধি নয়। আর এক চোখ বন্ধ করে দেখার অভ্যাসটা এখনো করতে পারি নি। করতে পারলে অনেক জনপ্রিয় হতে পারতাম বটে।
- আপনি তো একজন ইসলাম বিদ্বেষী মানুষ!
- বাহ, একটু আগে না আপনিই বললেন এর সাথে ইসলাম কিংবা ইহুদী ধর্মের কোন সম্পর্ক নেই? তাহলে হামাসের বিরোধিতা করে আমি ইসলাম বিদ্বেষী কীভাবে হলাম? আপনিই তো বললেন এটা রাজনীতি, এর সাথে ধর্মের কোন যোগ নেই!
- যা শালা নাস্তিকের বাচ্চা!
(অতঃপর ব্লক)
বিঃদ্রঃ শুধুমাত্র বাম মুমিনসের উদ্দেশ্যে!

(লেখক - আসিফ মহিউদ্দীন

No comments:

Post a Comment