Tuesday, November 18, 2014

ভন্ডামীর শেষ কোথায়?

ছাগুসম্রাট দস্তার রাজদরবার লিখেছে,
//হিন্দুরা প্রায়ই ফাপড় নেয় যে, ফেসবুক
হলো গিয়ে এক ইহুদির তৈরী,
সুতরাং মুসলমানরা তা ব্যবহার
করতে পারে না।
কিন্তু কোন মুসলমান
হিন্দুদেরকে পাল্টা বলে না যে,
তোরা যেই দুর্গাপূজা,
সরস্বতী পূজা আর শিবের
**পূজা করিস, তা করিস বাদশাহ
আকবরের সভাসদ ফতেহউল্লাহ
সিরাজীর বানানো ক্যালেন্ডার
অনুসরণ করে । এখন মুসলমান
হলে যদি ইহুদিদের বানানো ফেসবুক
ব্যবহার করা ঠিক না হয়,
সেক্ষেত্রে তোরা মুসলমানদের
আবিষ্কৃত ক্যালেন্ডার ব্যবহার
করে করা তোদের সমস্ত পূজাটুজা বাদ
দিয়ে দে।//
https://m.facebook.com/story.php?story_fbid=794024160642981&id=100001062146408&refid=17&_ft_
এটা কি কোনো যুক্তির পর্যায়ে পড়ে? এদের কেন ছাগু উপাধী দেওয়া হয়েছে বোঝা যাচ্ছে!
মুসলিমরা নিজেরায় বলছে ইহুদি পণ্য বর্জন কর বর্জন কর আবার সত্যিকারের ইহুদি পণ্য বর্জন করতে গেলে ওরা পিলে চমকে যাচ্ছে! কারণ বাস্তবে ওরা জানে যে বিশ্বে একমাত্র সন্ত্রাসবাদ ছাড়া এই দেড়শো কোটি মুসলমানের আর কোনো ক্ষেত্রেই নূন্যতম অবদান নেই। তবুও ওরা নিজেদের ধর্মগ্রন্থের হিংসাত্বক বাণীগুলো পালন করার প্রয়াস করে যাচ্ছে।
কোরানের ৫/৫১ আয়াতে বলা হয়েছে, "হে ঈমানদার বান্দারা! তোমরা মুসলমান ব্যতীত ইহুদী-খ্রীষ্টানদের তোমাদের বন্ধুরূপে গ্রহণ করো না।মনে রেখ তারা একে অপরের বন্ধু।
আর তোমরা কাফিরদের সন্মান করো না তবে আল্লাহকে অসন্মান করা হবে।তোমরা কাফিরদের কোনোকিছু গ্রহণ করো না তবে তোমরা কাফিরদের দলভুক্ত হবে।মনে রেখ আল্লাহ সর্বশক্তিমান।"
দেখুন কতোটা জঘন্য ও হিংসাত্বক এই কোরানের বাণী! আল্লাহ বলছেন কাফির অর্থাৎ অমুসলিমদের কোনো কিছুই যেন মুসলিমরা গ্রহণ না করে।একজন অমুসলিম যতোই সৎ হোক না কেন তবুও তাকে সন্মান জানাতে কঠোর হুশিয়ারী করেছে তথাকথিত সর্বশক্তিমান আল্লাহ! আল্লাহ নিজেই মুসলমানদের সাহায্য করবেন বলে প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন তবে মুসলমানরা এখন কাফিরদের সাহায্য কামনা করে কেন?
যায় হোক এবারে মূল কথায় আসা যাক! ছাগুদরবারের ছাগুমার্কা যুক্তি হল একজন মুসলমান বাংলা ক্যালেন্ডার আবিষ্কার করেছে তাই হিন্দু পূজা করতে পারবে না!!!!
এখানে বলে রাখি হিন্দুশাস্ত্রে কোথাও কোনো নির্দিষ্ট গোষ্ঠীর প্রতি ঘৃণা বা বিদ্বেষ রাখতে বলা হয়নি। হিন্দুশাস্ত্রের কোথাও বলা হয়নি যে নিজ গোষ্ঠীভুক্তদের ব্যতীত বাকিদের বন্ধুরূপে গ্রহণ করা যাবে না বা তাদের প্রতি সন্মান প্রদর্শন করা যাবে না!
এখন বাংলা ক্যালেন্ডার বা বর্ষপঞ্জির ইতিহাস থেকে ঘুরে আসা যাক!
বঙ্গাব্দের সূচনা হয়েছিল প্রাচীন গৌড়সম্রাট শশাঙ্কের আমলে।তার রাজত্বকালের হিসাবেই বাংলা সন গণনা হয়ে থাকে।তার রাজত্বকালের হিসাবেই এখন ১৪২১ বঙ্গাব্দ চলছে।
তবে দস্যু আকবর কি করেছিলেন?
মহান (!) শাসক হিসাবে খ্যাত আকবর বাংলা সন কে হিজরি সনের সাথে মেলাতে চেয়েছিলেন।তাই তিনি ইরানী ফতুল্লা সিরাজীকে দিয়ে বাংলা সনের হিসাব পরিবর্তন করেন। শুধু তাই নয়, এই মহান সম্রাট (!) বাংলা ১২ মাসের নামগুলি পর্যন্ত পরিবর্তন করে পারসি ভাষায় নাম রাখেন। কারণ বাংলা মাসের নামগুলি হিন্দুশাস্ত্র অনুযায়ী ছিল।যদিও আকবরের এই ঘৃণ পরিবর্তন কেউ মেনে নেয়নি তাই আজও রাজা শশাঙ্কের প্রদত্ত বর্ষপঞ্জিই স্বীকৃত রয়েছে।এছাড়া বাংলা সনের সাত দিনের নামও হিন্দু দেবতাদের নামেই রয়েছে। যেমনঃ শনিদেবের নামানুসারে শনিবার, সূর্যদেবের নামানুসারে রবিবার ইত্যাদি। সুতরাং দেখা যাচ্ছে আকবর কুচক্রী কর্মকান্ড একেবারেই বিফল হয়েছে। বাংলা ক্যালেন্ডারের আবিষ্কারক কখনোই কোনো মুসলমান নয় তাই পূজা বন্ধের প্রশ্নই আসে না। বরং কুরান মতে তোদেরই উচিত বাংলা ত্যাগ করা!

(সূত্র

No comments:

Post a Comment