Showing posts with label মজার তথ্য. Show all posts
Showing posts with label মজার তথ্য. Show all posts

Tuesday, December 04, 2012

Some Tricks to teach your body: but on your own risk

1.) If you've got an itch in your throat, scratch your ear. When the nerves in the ear get stimulated, they create a reflex in the throat that causes a muscle spasm, which cures the itch.


2.) Having trouble hearing someone at a party or on the phone? Use your right ear...it's better at picking up rapid speech. But, the left is better at picking up music tones.


3.) If you need to relieve yourself BADLY, but you're not anywhere near a bathroom, fantasize about RELATIONS. That preoccupies your brain and distracts it.


4.) Next time the doctor's going to give you an injection, COUGH as the needle is going in. The cough raises the level of pressure in your spinal canal, which limits the pain sensation as it tries to travel to your brain.


5.) Clear a stuffed nose or relieve sinus pressure by pushing your tongue against the roof of your mouth...then pressing a finger between your eyebrows. Repeat that for 20 seconds...it causes the vomer bone to rock, which loosens your congestion and clears you up.


6.) If you ate a big meal and you're feeling full as you go to sleep, lay on your left side. That'll keep you from suffering from acid reflux...it keeps your stomach lower than your esophagus, which will help keep stomach acid from sliding up your throat.


7.) You can stop a toothache by rubbing ice on the back of your hand, on the webbed area between your thumb and index finger. The nerve pathways there stimulate a part of the brain that blocks pain signals from your mouth.


8.) If you get all messed up on liquor, and the room starts spinning, put your hand on something stable. The reason: Alcohol dilutes the blood in the part of your ear called the cupula, which regulates balance. Putting your hand on something stable gives your brain another reference point, which will help make the world stop spinning.


9.) Stop a nose bleed by putting some cotton on your upper gums...right behind the small dent below your nose...and press against it hard. Most of the bleeding comes from the cartilage wall that divides the nose, so pressing there helps get it to stop.


10.) Nervous? Slow your heart rate down by blowing on your thumb. The vagus nerve controls your heart rate, and you can calm it down by breathing.


11.) Need to breathe underwater for a while??? Instead of taking a huge breath, HYPERVENTILATE before you go under, by taking a bunch of short breaths. That'll trick your brain into thinking it has more oxygen, and buy you about 10 extra seconds.


12.) You can prevent BRAIN FREEZE by pressing your tongue flat against the roof of your mouth, covering as much surface area as possible. Brain freeze happens because the nerves in the roof of your mouth get extremely cold, so your brain thinks your whole body is cold. It compensates by overheating. ..which causes your head to hurt. By warming up the roof of your mouth, you'll chill your brain and feel better.


13.) If your hand falls asleep, rock your head from side to side. That'll wake your hand or arm up in less than a minute. Your hand falls asleep because of the nerves in your neck compressing. ..so loosening your neck is the cure. If your foot falls asleep, that's governed by nerves lower in the body, so you need to stand up and walk around.


14.) Finally, this one's totally USELESS, but a nice trick. Have someone stick their arm out to the side, straight, palm down. Press down on his wrist with two fingers. He'll resist, and his arm will stay horizontal. Then, have him put his foot on a surface that's half an inch off the ground, like a stack of magazines, and do the trick again. Because his spine position is thrown off, his arm will fall right to his side, no matter how much he tries to resist.


15.) Got the hiccups? Press thumb and second finger over your eyebrows until the hiccups are over - usually shortly.

Monday, December 03, 2012

Snøhetta's New Project In UAE

This is the new project by Norwegian architect Snøhetta in the emirate
of Ras Al-Khaimah, United Arab Emirates construction of which is set to begin later this year.
Gateway will be situated 150 km east of Dubai and will mark the gateway to the
emirate and form the entrance to the new planned capital city of Ras Al Khaimah.

The urban master plan for the city is currently being under taken by the
Netherlands based architectural practice OMA.

The surrounding desert and mountains influenced the design of the Gateway.
The design provides many varieties of shade and protected, intimate space.
In the center of the complex there will be a 200 m tower housing
a 5 star hotel that the United Arab Emirates are so famous for.

Sunday, December 02, 2012

PERKS of being over 50

1. Kidnappers are not very interested in you.

2. In a hostage situation you are likely to be released first.

3. No one expects you to run--anywhere.

4. People call at 9 PM and ask, Did I wake you????

5. People no longer view you as a hypochondriac.

6. There is nothing left to learn the hard way.

7. Things you buy now won't wear out.

8. You can eat supper at 4 PM.

9. You can live without sex but not your glasses.

10. You get into heated arguments about pension plans.

11. You no longer think of speed limits as a challenge.

12. You quit trying to hold your stomach in no matter who walks into the room.

13. You sing along with elevator music.

14. Your eyes won't get much worse.

15. Your investment in health insurance is finally beginning to pay off.

16. Your joints are more accurate meteorologists than the national weather service.

17. Your secrets are safe with your friends because they can't remember them either.

18. Your supply of brain cells is finally down to manageable size.

19. You can't remember who sent you this list .

And you notice these are all in Big Print for your convenience.

Friday, November 30, 2012

Hong Kong

The Hong Kong International Airport was named the world's best for the seventh
year in an annual survey of passengers, with Asian airports dominating the top positions in the list.

The annual survey conducted by Skytrax, a U.K.-based consultancy, judges airports on more than
40 categories, ranking them after collecting 8.2 million questionnaires completed
by passengers over a 10-month period.

The passengers judged 190 airports on factors like shopping, dining, staff courtesy,
baggage delivery and wait-times at security, reports the Age.com.au.

Hong Kong, with its reputation for efficiency and comfort, bested airports in
Singapore and Seoul, South Korea, which ranked second and third.

Also in the top 10 were airports in Kansai, Japan, and Kuala Lumpur, Malaysia.

Airports in Europe - Munich, Germany; Copenhagen, Denmark; Zurich, Switzerland; and
Helsinki, Finland - took most of the remaining top spots.
Cape Town, South Africa rounded out the list at No.10.

Missing from the list were any airports in the United States.

Wednesday, November 28, 2012

"মানুষ" সম্পর্কে কিছু অদ্ভুত তথ্য!


১. আপনি যত বেশি ঠাণ্ডা ঘরে ঘুমাবেন, আপনার দুঃস্বপ্ন দেখার সম্ভবনা তত বেশি!

২. সারাদিনে একজন পুরুষের চেয়ে একজন মহিলা বেশি সংখ্যকবার চোখের পাতা ফেলেন!

৩. আপনি যদি হটাত করে সিগারেট খাওয়া ছেড়ে দেন, তবে সম্ভবনা আছে যে, আপনার রাতের ঘুম এক ঘণ্টা করে কমে যাবে!

৪. আপনি যখন হাসেন তখন আপনার দেহে ক্লান্তি সৃষ্টিকারী হরমোনগুলো কাজ করতে পারে না! এজন্য তখন আপনাকে আরো বেশি সজীব এবং সতেজ দেখায়!

৫. একটা ৬ বছরের বাচ্চা দিনে গড়ে প্রায় ৩০০ বারের মতো হাসে! আর একজন পরিপূর্ণ/প্রাপ্তবয়স্ক মানুষ দিনে হাসেন গড়ে ১৫-১০০ বার!

৬. আপনার ব্রেইন দিনের চেয়ে রাতের বেলা কাজ করতে বেশি স্বাচ্ছন্দ্যবোধকরে! রাতের বেলা ব্রেইনের কাজ করার ক্ষমতা বৃদ্ধি পায়!

Wednesday, August 22, 2012

108 Names of Goddess Durga with Meaning



1) Aadya- The Initial reality
2) Aarya- Goddess
3) Abhavya- Improper or fear-causing
4) Aeindri- Power of God Indra
5) Agnijwaala- One who is poignant like fire
6) Ahankaara- One with Pride
7) Ameyaa- One who is beyond measure
8) Ananta- One who is Infinite or beyond measure
9) Ananta- The Infinite
10) Anekashastrahasta- Possessor of many hand weapons
11) AnekastraDhaarini- Possessor of many missile weapons
12) Anekavarna- One who has many complexions 
13) Aparna- One who doesnt eat even leaves while fasting 
14) Apraudha- One who never gets old 
15) Bahula- One who is in various forms 
16) Bahulaprema- One who is loved by all 
17) Balaprada- The bestower of strength 
18) Bhaavini- The Beautiful Woman 
19) Bhaavya- Represents Future 
20) Bhadrakaali- Fierce form of Kali 
21) Bhavaani- The abode of the universe
22) Bhavamochani- The absolver of the universe
23) Bhavaprita- One who is loved by the universe 
24) Bhavya- With Magnificence
25) Braahmi- Power of God Brahma 
26) Brahmavaadini- One who is present everywhere 
27) Buddhi- Intelligence 
28) Buddhida- The bestower of wisdom 
29) Chaamunda- Slayer of Chanda and Munda(demons) 
30) Chandaghanta- One who has mighty bells 
31) ChandaMundaVinashini- Destroyer of the ferocious asuras Chanda and Munda Sarvasuravinasha Destroyer of all demons 
32) Chinta- Tension
33) Chita- Death-bed 
34) Chiti- The thinking mind 
35) Chitra- The Picturesque 
36) Chittarupa- One who is in thought-state 
37) Dakshakanya- Daughter of Daksha 
38) Dakshayajñavinaashini- Interrupter of the sacrifice of Daksha 
39) Devamata- Mother Goddess 
40) Durga- The Invincible 
41) Ekakanya- The girl child 
42) Ghorarupa- Having a fierce outlook 
43) Gyaana- Full of Knowledge 
44) Jalodari- Abode of the ethereal universe 
45) Jaya- The Victorious 
46) Kaalaratri- Goddess who is black like night 
47) Kaishori- The adolescent 
48) Kalamanjiiraranjini- Wearing a musical anklet 
49) Karaali- The Violent 
50) Katyayani- One who is worshipped by sage Katyanan 51) Kaumaari- The adolescent 
52) Komaari- The beautiful adolescent 
53) Kriya- One who is in action 
54) Krrooraa- Brutal (on demons) 
55) Lakshmi- Goddess of Wealth 
56) Maaheshvari- Power of Lord Mahesha (Shiva) 
57) Maatangi- Goddess of Matanga 
58) MadhuKaitabhaHantri- Slayer of the demon-duo Madhu and Kaitabha
59) Mahaabala- Having immense strength 
60) Mahatapa- With severe penance 
61) Mahodari- One who has huge belly which stores the universe 
62) Manah- Mind 
63) Matangamunipujita- Worshipped by Sage Matanga 
64) Muktakesha- One who has open tresses 
65) Narayani- The destructive aspect of Lord Narayana (Brahma) 
66) NishumbhaShumbhaHanani- Slayer of the demon-brothers Shumbha Nishumbha
67) MahishasuraMardini- Slayer of the bull-demon Mahishaasura 
68) Nitya- The eternal one 
69) Paatala- Red in color 
70) Paatalavati- Wearing red-color attire 
71) Parameshvari- The Ultimate Goddess 
72) Pattaambaraparidhaana- Wearing a dress made of leather 
73) Pinaakadharini- One who holds the trident of Shiva 
74) Pratyaksha- One who is real 
75) Praudha- One who is old 
76) Purushaakriti- One who takes the form of a man 
77) Ratnapriya- Adorned or loved by jewels 
78) Raudramukhi- One who has a fierce face like destroyer Rudra 
79) Saadhvi- The Sanguine 
80) Sadagati- Always in motion, bestowing Moksha (salvation) 
81) Sarvaastradhaarini- Possessor of all the missile weapons 
82) Sarvadaanavaghaatini- Possessing the power to kill all the demons 
83) Sarvamantramayi- One who possess all the instruments of thought 
84) Sarvashaastramayi- One who is deft in all theories 
85) Sarvavahanavahana- One who rides all vehicles 
86) Sarvavidya- Knowledgeable 
87) Sati- One who got burned alive 
88) Satta- One who is above all 
89) Satya- The truth 
90) Satyanandasvarupini- Form of Eternal bliss 
91) Savitri- Daughter of the Sun God Savitr 
92) Shaambhavi- Consort of Shambhu 
93) Shankari- Wife of shankar (shiva)
94) Shivadooti- Ambassador of Lord Shiva 
95) Shooldharini- One who holds a monodent 
96) Sundari- The Gorgeous 
97) Sursundari- Extremely Beautiful 
98) Tapasvini- one who is engaged in penance 
99) Trinetra- One who has three-eyes 
100) Vaarahi- One who rides on Varaah 
101) Vaishnavi- The invincible 
102) Vandurga- Goddess of forests 
103) Vikrama- Violent 
104) Vimalauttkarshini- One who provides joy 
105) Vishnumaya- Spell of Lord Vishnu 
106) Vriddhamaata- The old mother (loosely) 
107) Yati- Ascetic, one who renounces the world 
108) Yuvati- The Woman


Collected

Monday, August 29, 2011

আমাদের ভাষা, আমাদের গর্ব

বাংলা ভাষা
বাংলা, ইন্দো-ইউরোপীয় হতে যেটি ইন্দো-ইরানীয়ের মাধ্যমে ভারতবর্ষে এসেছে। বাংলা হচ্ছে বিশ্বের অন্যতম বহুল প্রচলিত ভাষা। বাংলাদেশের প্রধান ভাষা বাংলা। বিশ্বে বাংলা ভাষাভাষী অনেক রয়েছে - প্রায় ১.৯ কোটি - যা অন্যান্য অনেক ভাষাসমূহের তুলনায় অনেক বেশী। অন্যান্য আধুনিক ইন্দো-আর্য ভাষাগুলোর মতো বাংলাও কমিয়ে দিয়েছে প্রাচীন ইন্দো-আর্যের জটিল বিভক্তিমূলক ব্যবস্থাসমূহ।

বাংলা ভাষার ইতিহাস
বাংলার উৎপত্তি হচ্ছে সবচেয়ে প্রাচ্যের ভাগে, আর্য বা ইন্দো-ইরানীয় যাকে বলা হয় এবং যেটি ইন্দো-ইউরোপীয় ভাষা হতে এসেছে। এর সরাসরি পূর্বপুরুষ হচ্ছে এক প্রকার প্রকৃত বা মধ্য ইন্দো-আর্য যেটি নেমে এসেছে সংস্কৃত বা প্রাচীন ইন্দো-আর্য হতে। খ্রীষ্টপূর্ব ৫০০ শতাব্দীর পূর্বে সংস্কৃতই ছিল কথ্য ও পুস্তকের ভাষা আর্যদের নিকট যার পরে এটি প্রায় দুই হাজার বছর ধরে প্রভাবশালী ও আন্তর্জাতিক মিশ্রিত ভাষা হিসেবে পন্ডিতদের ও সাধারণ মানুষদের কাছে ভারতবর্ষে ব্যবহৃত হয়। সংস্কৃতের ন্যায়, অপভ্রংশ-অবহত্য ছিল পুঁথিগত ভাষা এবং এটির নথিপত্র খুব কম ছোটখাট রূপান্তর দেখায়; কার্যকরীভাবে এই একই ভাষা দেখা গেছে গুজরাটী ও বাংলা কবিতাসমূহে। কিন্তু কথ্য ভাষা শর্তগতভাবে বদলায় প্রাদেশিক ভাষাবিদ্যানুযায়ী এবং জাতিগত পরিবেশ গ্রহণ করে ভিন্ন ভিন্ন প্রাদেশিক নয়া ইন্দো-আর্য ভাষাসমূহকে। এই নয়া ইন্দো-আর্য ভাষাসমূহের আবির্ভাব সম্পূর্ণভাবে সুসংগত হয় না। কিন্তু কিছু কিছু, যেমন বাংলা, নিশ্চিতভাবে আরম্ভ হয়েছে দশম শতাব্দীর মধ্য থেকে।



----------উপরোক্ত অনুবাদের মূল ইংরেজী লেখা----------


Bengali Language
Bengali or Bangla , language belonging to the Indic group of the Indo-Iranian subfamily of the Indo-European family of languages. Bengali is one of the most widely spoken languages of the world. Bengali is the main language spoken in Bangladesh. Bengali has more speakers-some 190 million-than all but a handful of other languages of the world. Like other Modern Indo-Aryan languages, Bengali has drastically reduced the complex inflectional system of Old Indo-Aryan.

History of the Bengali language:

Bengali belongs to the easternmost branch, called Aryan or Indo-Iranian, of the Indo-European family of languages. Its direct ancestor is a form of Prakrit or Middle Indo-Aryan which descended from Sanskrit or Old Indo-Aryan. Sanskrit was the spoken as well as the literary language of Aryandom until circa 500 B.C., after which it remained for nearly two thousand years the dominant literary languages as well as the lingua franca among the cultured and the erudite throughout the subcontinent.
Like Sanskrit, Apabhramsa-Avahattha was a literary language, and in the available records it shows remarkably little local variation; practically the same form of the language appears in the poems written in Gujrat and in Bengal. But the spoken language conditioned by the regional linguistic and ethnic environments took up the different regional New Indo-Aryan languages. The emergence of these New Indo-Aryan speeches was not all synchronized. But some of them, including Bengali, certainly originated by the middle of the tenth century at the latest.




নিচের নকশায় বাংলা ভাষার উৎপত্তি দেখায় (এটি বাংলায় স্নাতকোত্তর এক শিক্ষক হতে পাওয়া):





Saturday, December 27, 2008

পৃথিবী কি ধ্বংস হবে ২০১৯ সালে?

নাসা (NASA) ধারণা করছে ২০১৯ সালের পহেলা ফেব্রুয়ারীর পৃথিবীতে একটা বড় বিপর্যয় ঘটতে পারে। গ্রহাণু (asteroid) ধাক্কার মুখে পড়তে পারে বিশ্ব।
নিচের চিত্রটিই এ ব্যাপারে আপনাদের কিছুটা ধারণা দিতে পারে...

["২০১৯ সালে আক্রমণকারী গ্রহাণু"]
২০১৯ সালে আক্রমণকারী গ্রহাণু[/caption]

Monday, August 25, 2008

মজার তথ্য

তুমি চোখ খুলে কখনোই হাঁচি দিতে পারবে না। বিশ্বাস না হলে এক্ষুণি চেষ্টা করে দেখা।


তোমার মতোই শিম্পাঞ্জিরাও হ্যান্ডশেক করে ভাব বিনিময় করে!


অক্টোপাসকে কি হৃদয়বান বলা যায়? ওর দেহে যে তিনটি হৃৎপিণ্ড আছে!


১০০ বছর আগেও বোর্নিওতে মানুষের মাথার খুলি মুদ্রা হিসেবে ব্যবহার করা হতো।


একটি পোকাখেকো ফ্যালকন পাখি তোমার চেয়েও চোখে বেশি দেখে। সে আধামাইল দূর থেকেই একটা ফড়িংকে ঠিক ঠিক শনাক্ত করতে পারে।


অতীতে রোমান সৈন্যরা বিশেষ এক ধরনের পোশাক পরত। এই পোশাকটাই এখন মেয়েদের কাছে ব্যাপকভাবে জনপ্রিয়। পোশাকটার নাম স্কার্ট।


ডলফিন একচোখ খোলা রেখে ঘুমায়। তুমিও একটু চেষ্টা করে দেখো, সম্ভব কি না।


তুমি কি জানো, এক পাউন্ড বিশুদ্ধ তুলা থেকে ৩৩ হাজার মাইল লম্বা সুতা তৈরি সম্ভব!


আমাদের ত্বকের প্রতি বর্গইঞ্চিতে প্রায় ৬২৫টি ঘামগ্রন্থি আছে। ওগুলো এতো সূক্ষ্ম যে তুমি গুনে দেখতে চাইলেও পারবে না।


পৃথিবীর সব সাগরে যে পরিমাণ লবণ আছে তা দিয়ে পৃথিবীকে ৫০০ ফুট পুরু লবণের স্তুপ দিয়ে ঢেকে ফেলা যাবে।


গ্যালিলিও দূরবীন আবিষ্কার করার আগে মানুষ খালি চোখে আকাশে মাত্র পাঁচটি গ্রহ দেখতে পেতো!


জলের হাতি বা জলহস্তি পানির নিচে ৩০ মিনিট দম বন্ধ করে থাকতে পারে।


ফড়িংয়ের কান মলে দিতে চাইলে কিন্তু একটু সমস্যা হবে। কারণ ফড়িংয়ের কান হাঁটুতে।


কাঠঠোকরা এতো যে কাঠ ঠোকড়ায় তাতে ওর মাথা ব্যথা হয় না? না, হয় না। কারণ কাঠঠোকরার খুলির চারপাশে অনেকগুলো বায়ু প্রকোষ্ঠ আছে, যা নরম কুশনের কাজ করে।


ভালুক অলস হলে কি হবে, সে প্রতি ঘণ্টায় ৪৮ কিলোমিটার (৩০ মাইল) গতিতে দৌড়াতে পারে।


তুমি তো গাছ থেকে সহজেই খাবার পাও। কিন্তু জানো কি এক পাউন্ড খাবার তৈরি করতে গাছের প্রায় ১০০ পাউন্ড বৃষ্টির পানি খরচ করতে হয়।


পৃথিবীর ওজন কতো জানো? ৬৬-এর ডানপাশে ২০টি শূন্য বসালে যে সংখ্যাটি হয় সেটাই পৃথিবীর ওজন। এবার নিজেই হিসেব করে দেখো।


গিরগিটির জিহ্বার আকার তার শরীরের চেয়েও বড়। যতো বড়ো মোবাইল নয় তত বড় সীম, আর কি!


একজন মানুষ প্রতিদিন যে পরিমাণ বাতাস শ্বাস হিসাবে গ্রহণ করে তা দিয়ে একটি নয় ১০০০টি বেলুন ফোলানো সম্ভব।


২০০৪ সাল পর্যন্ত মোট ২২৪৯ জন অভিযাত্রী এভারেস্ট জয় করার উদ্দেশ্যে যাত্রা করেন। এদের মধ্যে নিহত হয়েছেন প্রায় ১৮৬ জন।


প্রথম এভারেস্ট জয়ী ‘শেরপা’ শুধু শেরপা তেনজিং নোরগের একার নামের মধ্যে আছে এমন নয়। বরং শেরপা হলো একটা পুরো গোত্রের নাম।


একটা কথা কি জানো হিমালয় পর্বতের যে উচ্চতা রয়েছে তা কিন্তু বাড়ছে প্রতিনিয়ত। প্রতিবছর প্রায় ৪ মিলিমিটার করে বাড়ছে হিমালয়ের উচ্চতা!


সমুদ্র সমতল থেকে হিসেব করলে পৃথিবীর দ্বিতীয় সবোর্চ্চ শৃঙ্গ পাকিস্তান ও চীন সীমান্তের কে-টু পাহাড়। এর উচ্চতা ২৮ হাজার ২৫১ ফুট (৮ হাজার ৬১১ মিটার)।


আপেল খেতে যতই স্বাদ লাগুক, জেনে নিও আপেলের ৮৪ ভাগই পানি।


সবচেয়ে লম্বা ঘাসের নাম জানো? বাঁশ। এই ঘাস লম্বায় ১৩০ ফুটও হতে পারে।


প্রতি মিনিটে তোমার শরীর থেকে প্রায় ৩০০টি মৃত দেহ কোষ ঝরে পড়ছে।


সাপ হচ্ছে একমাত্র সত্যিকারের মাংসাশী প্রাণী। কারণ অন্য প্রাণীরা কিছু না কিছু উদ্ভিদ জাতীয় খাবার খেলেও সাপ কখনোই তা করে না।


প্রতি চার মিনিটে মায়েরা একবার তার সন্তানের কথা ভাবেন। এই হিসেবে প্রতিদিন গড়ে ২১০ বার সন্তানের কথা চিন্তা করেন একজন মা।


প্রতিবছর সারা পৃথিবীতে মা দিবসে প্রায় ১৫ কোটি ২০ লাখ কার্ড বিলি হয় মায়েদের কাছে।


সবচেয়ে ছোট ডাকটিকেটটি ছিলো ৯.৫ x ৮ মিমি। ১৮৬৩ সালে এই টিকেটটি প্রকাশ করেছিলো বলিভারের কলাম্বিয়ান স্টেট।


এ পর্যন্ত সবচেয়ে বড় ডাকটিকেট প্রকাশ করেছে চীন। বিংশ শতাব্দির প্রথম দিকে তারা ২১০ x ৬৫ মিমি মাপের ডাকটিকেটটি প্রকাশ করে।


ডাকটিকেটের পেছনে প্রথম আঁঠা লাগানোর পদ্ধতি চালু করে সিয়েরা লিয়ন নামের আফ্রিকা মহাদেশের দেশটি। সালটা ছিলো ১৯৬৪।


ডাকটিকেট কখনো কলার মতো হয়! শুনে তুমি অবাক হবে, কিন্তু উত্তরটা হচ্ছে, হ্যাঁ হয়। প্যাসিফিক আইল্যান্ড অব টঙ্গা কলার মতো দেখতে একটি ডাকটিকেট প্রকাশ করেছিলো একবার।


মানুষের নখ প্রতিদিন ০.০১৭১৫ ইঞ্চি করে বাড়ে।


মানুষের শরীরের রক্ত শরীরের ভেতর প্রতিদিন ১৬ লাখ ৮০ হাজার মাইল সমান পথ অতিক্রম করে।


মানুষ প্রতিদিন ৪৩৮ ঘনফুট বাতাস শ্বাস প্রশ্বাসের কাজে ব্যবহার করে।


মানুষের কান প্রতি বছর এক ইঞ্চির প্রায় ০.০০৮৭ অংশ করে বাড়ে। ভাগ্যিশ! বেশি বাড়লে শেষে একেবারে গাধার কানের মতো লম্বা হয়ে যেতো!


দাড়িপাল্লায় যদি ওজন করা সম্ভব হতো তাহলে পৃথিবীর ওজন ৮১টি চাঁদের ওজনের সমান হতো।


নীল তিমিই প্রাণীদের মধ্যে সবচেয়ে জোরে শব্দ করতে পারে। পরস্পর ভাববিনিময়ের সময় ওরা যে শিস দেয়, সেটা ৫৩০ মাইল দূর থেকেও শোনা যায়।



অংকে এক মিলিয়ন লিখতে ৭টি সংখ্যা লাগে। তেমনি ইংরেজিতে মিলিয়ন শব্দটি লিখতে ৭টি অক্ষর লাগে।


পিঁপড়েও চিরুনি ব্যবহার করে। শুধু কি তাই ওরা নিজের কাছে চিরুনি রাখেও সবসময় সামনের দুপায়ের ভাঁজের কাছে। যা দিয়ে প্রয়োজন মতো নিজেকে একটু পরিপাটি করে নেয়।



তুমি যদি ড্রাগনফ্লাই বা গঙ্গা ফড়িংয়ের সঙ্গে দৌড়ে পাল্লা দাও, তাহলে হেরে যাবে নিশ্চিত। কারণ ড্রাগনফ্লাই ঘন্টায় ৩০ মাইল পথ উড়ে যেতে পারে।


নাকের বদলে পা দিয়ে নিঃশ্বাস নিলে কেমন হবে বলো তো? স্যান্ড বারলার ক্র্যাব (এক প্রকার কাঁকড়া) তার পা দিয়েই বিশেষভাবে নিঃশ্বাস নেয়। কারণ ওর নাক নেই।


বোলা স্পাইডার নামের এক ধরনের মাকড়শা বড়শি দিয়ে মাছ ধরার মতো করে পোকামাকড় ধরে খায়।


কোয়েলা ঘুম কাতুরে। ওরা দিনের ২৪ ঘন্টার মধ্যে ১৮ ঘন্টাই ঘুমিয়ে কাটায়।


পৃথিবীতে একমাত্র মানুষই হাসতে পারে। এই তুমি কি হাসতে পারো? না পারলে মানুষের খাতা থেকে তোমার নাম কাটা।


কেঁচোর কোন চোখ না থাকায় সে অন্য প্রাণীদের মতো দেখতে পায় না। তবে সমস্যা নেই, ত্বকের বিশেষ ধরনের কোষের সাহায্য চারিপাশের অবস্থা সে ঠিকই বুঝতে পারে।


তোমার পুরো শরীরের মাংসপেশী আছে মোট ৬৫০টি। গুনে দেখবে একটু?


আয়তনের দিক দিয়ে পৃথিবী ৫০টি চাঁদের সমান। অর্থাৎ পৃথিবীর সমান আয়তনে কোনো পাত্রে ৫০টি চাঁদ রাখা যাবে।


তোমরাই বলো, জাল ছাড়া আবার মাকড়সা হয় নাকি! কিন্তু বোলা স্পাইডার নামে এক ধরনের মাকড়সা আছে যারা কোন জালই বোনে না।


ঘোড়ার নাকের ফুটো দুটো শুধু আকারেই বড় নয়, কাজেও ঠিক তেমনি। ঘোড়ার রয়েছে অসাধারণ ঘ্রাণশক্তি।


কেঁচোকে সারাজীবনে কখনোই চশমা পরতে হয় না। কেন জানো? কারণ ওর শরীরে কোন চোখই নেই।


মানুষের শরীর থেকে প্রতিদিন গড়ে এক চা কাপের সমান ঘাম ঝরে।


মাত্র ৫ লিটার মধু খেয়ে এক একটি মৌমাছির ঝাঁক ৪০ হাজার মাইল পথ পাড়ি দিতে পারে।


একটি কলার শতকরা পঁচাত্তর ভাগই পানি। তুমি যদি ছোট্ট এক গ্লাস পানির বদলে এক গ্লাস কলা খাবো বলো, তাহলে কিন্তু খুব একটা ভুল হবে না!


জানোই তো একজন মানুষের আঙুলের ছাপ আরেকজন মানুষের চেয়ে ভিন্নতর। তেমনি ঠোঁটের ছাপ ও একজনের চেয়ে আরেকজনেরটা থেকে সম্পূর্ণ ভিন্ন।


একটি কলার শতকরা পঁচাত্তর ভাগই পানি। তুমি যদি ছোট্ট এক গ্লাস পানির বদলে এক গ্লাস কলা খাবো বলো, তাহলে কিন্তু খুব একটা ভুল হবে না!


মাশরুমে প্রোটিনের পরিমান আলুর চেয়ে দ্বিগুন, টমেটোর চারগুন এবং কমলা লেবুর ছয় গুন বেশি। তাই বলে মাশরুম কাঁচা খেয়ে ফেলাটা কিন্তু বুদ্ধিমানের কাজ হবে না।


মুরগি পাখি বলে ধরা হয়। তো এ পর্যন্ত একটি মুরগি শূন্যে ডানা ঝাপ্টে সবচেয়ে বেশি পথ পাড়ি দেওয়ার রেকর্ড হচ্ছে ৩০২ ফুট। হায়রে মুরগি!


তুমি কি মাকড়সা ভয় পাও? ভয় পাওয়ার কিছু নেই, ওরা খুব নিরীহ। কিন্তু আমেরিকার ব্ল্যাক উইডো মাকড়সাকে ভয় পেতেই হবে। ওরা এতো বিষাক্ত যে এক কামড়ে মানুষকে মেরে ফেলতে পারে।



খ্রিস্টপূর্ব ৫ শতকে ভারতের পাণিনি সংস্কৃত ভাষার ব্যকরণ রচনা করেন। এই ব্যকরণে ৩৯৫৯টি নিয়ম লিপিবদ্ধ করেন তিনি।


বাংলাভাষায় বিশ্বের বিশ কোটিরও মানুষ কথা বলে। এসব মানুষের বেশির ভাগই বাংলাদেশ ও ভারতের পশ্চিমবঙ্গে বসবাস করে।


বাংলাভাষায় লেখা প্রথম ব্যাকরণ রচিত হয় ১৭৩৪ থেকে ১৭৪২ সালের মধ্যে। এর লেখক ছিলেন মানোএল দা আসসুম্পসাঁউ নামের এক পুর্তগিজ পাদ্রি।


হ্যারি পটার সিরিজের বই এ পর্যন্ত ৬৫টিরও বেশি ভাষায় অনূদিত হয়েছে। তবে ব্রিটিশ ইংরেজিতে লেখা বইটি প্রথমে আমেরিকান ইংরেজিতে অনূবাদ করা হয়েছিল।


এ পর্যন্ত হ্যারি পটার সিরিজের বই বিশ্বে বিভিন্ন দেশে ৪০০ মিলিয়ন কপিরও বেশি বিক্রয় হয়েছে।


হ্যারি পটার সিরিজের কল্যানে লেখিকা জে কে রাউলিং বিশ্বে ১৩৬তম এবং ব্রিটেনে ১৩তম ধনী।


বাংলা ভাষায় ছাপা প্রথম সম্পুর্ন গদ্যগ্রন্থ ছাপা হয় ১৭৮৫ সালে। বইটি ছিল জোনাথান ডানকানের লেখা ‘ইম্পে কোড’ নামের একটি আইনের বইয়ের বাংলা অনুবাদ।


ইংরেজিতে ছাপা প্রথম বইয়ের নাম ছিল ‘দি রেকুইয়েল অব দি হিস্টোরিয়েস অব ট্রয়’ (The Recuyell of the Historyes of Troye)। এই বইটি ছাপা হয় ১৪৭৫ সালে আর লেখক ছিলেন উইলিয়াম ক্যাক্সটন।


জার্মানির গুটেনবার্গ ১৪৪০ সালে মুভেবল টাইপ উদ্ভাবন করেন। এই ছাপাখানায় তিনি ল্যাটিন ভাষায় ১৪৫৫ সালে বাইবেল ছাপেন। এটিই বিশ্বের প্রথম মুদ্রিত বই।



পৃথিবীতে যত লিপস্টিক আছে, তার বেশিররভাগই তৈরি হয় মাছের আঁশ দিয়ে। (তাইতো বলি এত মাছ খাই, তার আঁশগুলো যায় কোথায়!)


একটার ওপর একটা বিশাল বিশাল ব্লক বসিয়ে তৈরা করা হয়েছে মিশরের পিরামিডগুলো। তাতে একটা দুটো নয়, যেমন ধর গিজার পিরামিড বানাতে লেগেছে আড়াই মিলিয়ন ব্লক। আচ্ছা, তা না হয় বানালো কিন' বসে বসে ওগুলো গুনলো কে?


বিজ্ঞানি টমাস আলভা এডিসন অনেক আগে একটি হেলিকপ্টার বানানোর বুদ্ধি করেছিলেন যেটা চলবে বন্দুকের বারূদ দিয়ে। কিন' তার এই বুদ্ধিটা খুব একটা বুদ্ধিমানের মত ছিল না, কারণ এটা বানাতে যেয়ে সে তার পুরো ল্যবরেটরি উড়িয়ে দিয়েছিলেন।


ভয় পেলে বা কোন কারণে উত্তেজিত হলে একটা টার্কি প্রতি ঘন্টায় ২০ মাইল জোড়ে দৌড়াতে পারে আর দৌড়াতে দৌড়াতে যখন লাফ দেয়, তখন বাতাসে সে প্রতি ঘন্টায় ৫০ থেকে ৫৫ মাইল বেগে উড়ে যেতে পারে।


বেঞ্জামিন ফ্রাংকলিন চেয়েছিলেন আমেরিকার জাতীয় পাখি হোক টার্কি (এক ধরনের বড় মোরগ)। কিন্তু ওনার স্বপ্ন পূরণ হয়নি।


হাতের বুড়ো আঙ্গুলের নখ বড় হয় খুব আস্তে আস্তে, আর সবচেয়ে তাড়াতাড়ি বড় হয় মধ্যমার নখ।


হাসাহাসি করা কিন্তু সোজা না। সে তুমি মুচকি হাসো আর হো হো করে হাসো, প্রতিবার হাসার সময় মুখের কমপক্ষে ৫ জোড়া মাংশপেশী তোমাকে ব্যবহার করতে হয়। আর বেশী হাসি পেলে তো মোট ৫৩টা পেশী লাগবে।


কোন কথা না বলেই মানুষ তার তার মুখ দিয়ে হাজার রকম ভাব প্রকাশ করতে পারে। রাগ, অভিমান, মেজাজ এইসব আরকি। কিন্তু এগুলোর ভেতরে আমরা সবচেয়ে বেশী কি করি জানো? হাসি! হি হি হি!


স্টার ফিশগুলো কিন্তু মস্ত বোকা। ওদের কোন মগজই নেই।


গোল্ড ফিস ছোট্ট হলে কি হবে, ওদের কেউ কেউ ৪০বছর পর্যন্তও বাঁচতে পারে।


আট পা’অলা অক্টোপাসের হৃৎপিন্ড থাকে তিনটা। ওফ্‌ এই অক্টোপাসগুলোর সবকিছুই বেশী বেশী।


খোলহীন শামুক দেখেছ না? ওদের একটাও খোল না থাকলে কি হবে, ওদের নাক কিন্তু চারটা!


হি হি হি... জানো নাকি কচ্ছপরা ওদের পেছন দিক দিয়েও নিঃশ্বাস নিতে পারে।


স্টোন ফিশ নামের একটি মাছ পাওয়া যায় অস্ট্রেলিয়ার তীর ঘেঁষে। এই স্টোন ফিশের শরীর পাথরের মত শক্ত কিনা জানি না, পৃথিবীর সবচেয়ে বিষাক্ত মাছ কিন্তু এটাই।


দুনিয়া জুড়ে হিসাব করলে প্রতি বছর প্লেন ক্রাশে যত মানুষ মারা যায়, তার চেয়ে বেশি মানুষ মারা যায় গাঁধার পিঠ থেকে পড়ে। এ জন্যই বোধহয় মানুষ গাধার পিঠে না, প্লেনে করেই বিদেশ বেশি যায়।



বসে বসে টিভি দেখার চেয়ে শুয়ে শুয়ে ঘুমালে শরীরের অনেক বেশি ক্যালরি পোড়ে। অবশ্য যদি লাফাতে লাফাতে টিভি দেখ তাহলে অন্য হিসাব।


ওয়াল্ট ডিজনিকে চেনো তো? তিনি মিকি মাউসের স্রষ্টা। কিন্তু এটা কি জানো যে তিনি নিজেই ইঁদুর মারাত্মক ভয় পেতেন।


ব্যাংক অফ আমেরিকার আসল নাম ছিল ব্যাংক অফ ইতালি।


অজ্ঞান হয়ে উল্টে পড়ার সময় পিপঁড়ারা সবসময় তাদের ডান দিকে পড়ে। কাজেই কোন পিপঁড়াকে যদি বাম দিকে উল্টে থাকতে দেখ, বুঝে নিবে সে নিশ্চয়ই স্কুল ফাঁকি দেবার জন্য অজ্ঞান হবার অভিনয় করছে।


মাত্র দশ বছর আগেও চীনের ৫০০ জন মানুষ বরফে স্কি করতে জানতো, কিন্তু এ বছর প্রায় ৫ লক্ষ চীনা স্কিইং করতে বিভিন্ন স্কি রিসোর্টে ঘুরতে গেছে!


ডানহাতি মানুষেরা সাধারণত বাঁহাতি মানুষের চেয়ে অল্প কিছুদিন বেশী বাঁচে। অবশ্য যারা দুই হাতেই সমান তালে কাজ করতে জানে তাদের ব্যাপারে নিশ্চিত করে বলতে পারছি না।


একজন মানুষ তার জীবনের অন্তত দুই সপ্তাহ কাটায় ট্রাফিক সিগনালের লাল বাতিতে। আর জ্যাম লাগলে তো কথাই নেই।


সূত্র: তড়িৎ বার্তা

Saturday, August 16, 2008

আপনার মোবাইলের ৪টি অজানা সুবিধা

অনেক জরুরী ক্ষেত্রে মোবাইল আমাদের রক্ষা করে। এমনকি আমাদের জীবন রক্ষার্থেও কাজে লাগতে পারে আমাদের মোবাইল।
দেখে নিন আপনি আপনার মোবাইল সম্পর্কে নিচের ব্যাপারগুলো জানেন কিনা:-

(১) জরুরী অবস্থা (ইমার্জেন্সী): আন্তর্জাতিক মোবাইল ইমার্জেন্সী নম্বর হচ্ছে ১১২। যদি আপনি নিজেকে এমন স্থাণে পান যেখানে আপনার মোবাইল কভারেজ বা নেটওয়ার্ক অঞ্চলের মধ্যে পড়ে না, শুধু ১১২ ডায়াল করুন। আপনার মোবাইলই খুঁজে নেবে সবচেয়ে নিকটবর্তী নেটওয়ার্ক যেটির দ্বারা আপনি ইমার্জেন্সী সাহায্য পেতে পারেন।
(২) গাড়ির চাবি ভেতরে ফেলে এসেছেন?: আপনার গাড়ির কি রিমোট কীলেস এন্ট্রী আছে? যদি আপনি আপনার গাড়ির চাবি ভেতরে ফেলে আসেন এবং স্পেয়ার চাবি ঘরে থাকে ও ঘরে যদি কেউ থেকে থাকে, তাহলে সেই ব্যক্তিকে আপনার মোবাইল দ্বারা তার মোবাইলে কল করুন। আপনার মোবাইলকে আপনার গাড়ির দরজা থেকে ১ ফুট দূরে রাখুন এবং ঘরের ব্যক্তিটিকে আনলক বাটনে প্রেস করতে বলুন এমনভাবে যাতে মোবাইলের নিকটে থাকে। আপনার গাড়ি আনলক হয়ে যাবে। তাই, আপনি যত দূরেই থাকুন, আপনার স্পেয়ার চাবি যত দূরেই থাকুক না কেন, মোবাইলের এই প্রযুক্তি দ্বারা আপনার অনেক সময় বাঁচবে।
(৩) লুকায়িত ব্যাটারী পাওয়ার: ধরুন আপনার মোবাইলের ব্যাটারী খুব কম। মোবাইলের কীপ্যাড থেকে *৩৩৭০# প্রেস করুন। আপনার মোবাইল পুনরায় চালু হবে রিজার্ভড ব্যাটারী দ্বারা এবং ৫০% ব্যাটারী বৃদ্ধি দেখাবে। এরপরে যখন আবার মোবাইলকে চার্জ দেবেন, তখন এই রিজার্ভড ব্যাটারীও পুনরায় চার্জড হবে।
(৪) চুরি হওয়া মোবাইলকে কিভাবে নিষ্ক্রিয় করবেন?: আপনার মোবাইলের সিরিয়াল নম্বর চেক করতে কীপ্যাডে টাইপ করুন *#০৬#। একটি ১৫ সংখ্যার কোড আসবে। এই নম্বরটি আপনার মোবাইলের নিজস্ব পরিচয়। এটি লিখে কোনো নিরাপদ স্থাণে রাখুন। যদি আপনার মোবাইল চুরি হয়ে যায়, আপনার মোবাইল সার্ভিস প্রোভাইডারকে কল করে এই কোডটি দিন। তারা তখন আপনার হ্যান্ডসেটটি ব্লক করতে সক্ষম হবে। সুতরাং চোর যদি আপনার সিম কার্ড বদলায়ও, আপনার মোবাইল অব্যবহারযোগ্য হয়ে পড়বে। আপনি হয়ত আপনার মোবাইল আর ফেরত পাবেন না, কিন্তু আপনি এ ব্যাপারে নিশ্চিত হবেন যেই আপনার মোবাইল চুরি করেছে সেও এটি আর ব্যবহার করতে পারবে না। এভাবে যদি সবাই চলে, তাহলে কেউই কারো মোবাইল আর চুরি করবে না।

সূত্র: তড়িৎ বার্তা

Wednesday, August 13, 2008

৭টি কারণে পৃথিবীতে প্রলয় ২০১২ সালে ঘটবে

জানিনা ব্যাপারটা কতটুকু সত্য, তবে মজার এবং কিছুটা ভীতিকর।

বিশ্বের বৈজ্ঞানিকরা বিশ্বাস করেন আজ থেকে চার বছরের মধ্যে পৃথিবী ধ্বংস হবে। কেউ মনে করেন মানুষের দ্বারা এ প্রলয় ঘটবে। কেউবা মনে করেন প্রাকৃতিক কোনো দুর্যোগের কারণে এই কেয়ামত ঘটবে। অনেকে আবার মনে করেন, ঈশ্বর নিজেই এই মহাপ্রলয় ঘটাবেন।
(১) মায়ান দিনপঞ্জি: মায়ানরা প্রথমবারের মত পৃথিবীর প্রলয়ের কাল ২০১২ বলে উদঘাটন করে। আমেরিকার এই প্রাচীন জাতিটি বিশ্বে বিখ্যাত ছিল তাদের পাথর থেকে জ্যোতিষ শাস্ত্রের নানা ধরনের উপকরণ তৈরিতে দক্ষতা এবং কুমারী মেয়েদের বিসর্জন।
হাজার বছর আগে তারা চন্দ্রবর্ষ গুণতে সক্ষম হয় ৩২৯.৫৩০২০ দিন (৩৪ সেকেন্ডের হেরফের)। যেহেতু তাদের চন্দ্রবর্ষ গণনা এতটাই নিকট ছিল যে, অনেকেই বিশ্বাস করে তাদের ধারণা করা হিসাব মতে ২১শে ডিসেম্বর, ২০১২ সালের মধ্যেই পৃথিবীতে প্রলয় ঘটবে।
(২) সৌর ঝড়: সূর্য নিয়ে গবেষকরা ভীষণ দ্বন্দে আছেন। সূর্য থেকে উৎপাদিত শক্তি বিশ্বের অন্যান্য জিনিসের মত আবর্তনশীল এবং এটি এখন এক আপেক্ষিকভাবে দৃঢ় সময় পার করছে। কিন্তু ইদানীংকালের সৌর ঝড়গুলো পৃথিবীকে বহু শক্তিশালী তেজ বিকিরণকারীর সাথে সংঘর্ষে ফেলে। এর ফলে পাওয়ার গ্রিড ও স্যাটেলাইটগুলো ধ্বংস হচ্ছে। এ অবস্থা আরো অবনতির দিকে যাবে এবং এটি ২০১২ সালে চূড়ায় উঠবে ও দুনিয়ার প্রলয় ঘটাবে।
(৩) এটম ভাঙন: ইউরোপের বিজ্ঞানীরা অণু ত্বরান্বিতকরণের জন্য যন্ত্র তৈরি করছেন। মূলত এটি একটি ২৭ কি.মি.র টানেল যেটি এটমের সংঘর্ষ ঘটিয়ে বিশ্বব্রহ্মান্ডকে নাড়াতে সক্ষম। কিন্তু মেগা-গ্যাজেট বিজ্ঞানীদের সংশয়ের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। অনেকে মনে করেন এটিকে অন করা আরো ভয়ের কারণ হতে পারে। তারা ভয়ানক মারণাস্ত্রের ফল ঘটার আশংকা করেন, এমনকি মিনি ব্ল্যাক হোকও ঘটার সম্ভাবনা থাকে। সুতরাং যখন এই মেশিন নিক্ষেপ করা হবে ২০১২ সালে প্রথমবারের মত, তখন পৃথিবী বাস্কেটবলের সাইজের ছোট ছোট অংশে পরিণত হয়ে যাবে।
(৪) বাইবেল: খ্রীষ্টানদের বাইবেল অনুযায়ী সত্য এবং মিথ্যার যুদ্ধ ২০১২ সালেই হবার সম্ভাবনা, যা কেয়ামত ঘটাতে পারে। ধর্মীয় নানা পন্ডিতরাও এ ব্যাপারে একমত হয়েছেন।
(৫) সুপার আগ্নেয়গিরি: আমেরিকার ইয়েলোস্টোন ন্যাশনাল পার্ক তার তাপঘটিত ঝর্ণা ও ওল্ড ফেইথফুল উষ্ণ প্রস্রবণের জন্য বিখ্যাত। এর কারণ খুবই সহজ - এটি বিশ্বের সবচেয়ে বড় আগ্নেয়গিরির ওপর অবস্থিত এবং ভূতাত্ত্বিকগণ এ নিয়ে ভীষণ চিন্তায় আছেন। ইয়েলোস্টোনের আগ্নেয়গিরি তার রীতি অনুযায়ী প্রতি ৬৫০০০০ বছর পর পর লাভা নির্গত হওয়ার আশংকা রাখে। আমরা ইতিমধ্যে অনেক সময় পার করেছি যে যেকোনো সময় পরিবেশ ছাই দ্বারা ভরে যাবে। এর ফলে সূর্য ঢেকে যাবে এবং পৃথিবীকে প্রায় ১৫০০০ বছরের জন্য এক হিমাঙ্কের শীতলতায় নিমজ্জিত করবে। ইয়েলোস্টোনের প্রেসার প্রতিনিয়ত বাড়ছে এবং ভূতত্ত্ববিদগণ ২০১২ সালকেই বিগ ব্যাং ঘটার সময় হিসেবে নির্ধারণ করেছেন।
(৬) পদার্থবিদগণ: বার্কেলী বিশ্ববিদ্যালয়ের পদার্থবিদগণ এক মহা বিপত্তির দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। তাদের হিসাব অনুযায়ী দুনিয়ার অন্ত ঘটার সময় দ্রুত ঘনিয়ে আসছে এবং এটি ২০১২ সালকেই তারা বিশ্বাস করে।
(৭) স্লিপ-স্লপ-স্ল্যাপ-ব্যাং: আমরা সবাই জানি পৃথিবী এক চুম্বকীয় ফিল্ড দ্বারা সূর্যরশ্মি থেকে এক প্রতিরক্ষা পেয়ে থাকে। চুম্বকের উত্তর-দক্ষিণ প্রান্ত প্রতি ৭৫০০০০ বছর পর পর স্থাণ পরিবর্তন করে এবং ৩০০০০ বছর পার হয়ে গেছে এই পরিবর্তন ঘটে নাই। বিজ্ঞানীরা হিসাব করে বলেছেন প্রতি বছর মেরুগুলো নিজেদের থেকে দূরে সরে যাচ্ছে গড়ে ২০-৩০ কি.মি. গতিতে যা অন্য যেকোনো সময়ের চেয়ে অনেক দ্রুত। এ থেকে বোঝা যায় মেরু পরিবর্তন অতি নিকটে। এই মেরু পরিবর্তন যদি ঘটতে থাকে তাহলে চুম্বকীয় ফিল্ড ভেঙে যাবে এবং এক সময় অদৃশ্য হয়ে যাবে। এর ফলে সূর্যের অতিবেগনী রশ্মি আমাদের ত্বককে সেকেন্ডের মাঝে শুকিয়ে দেবে এবং আমাদের বিনাশ ঘটাবে।

সূত্র: তড়িৎ বার্তা

Monday, August 11, 2008

দুটি চাঁদ



আগামী ২৭শে অগাস্ট মঙ্গল গ্রহ আকাশে উজ্জ্বলকর হয়ে উঠবে। আমাদের মানব চোখে একে রাতের বেলা দেখতে অনেকটা চাঁদের মতই লাগবে। এই রাতে মঙ্গল গ্রহ পৃথিবী থেকে প্রায় ৩৪.৬৫ মাইল দূরে অবস্থাণ করবে। মধ্যরাতে দেখতে একে সবচেয়ে সুন্দর লাগবে। ভাগ্য সুপ্রসন্ন বলেই আমরা দুটি চাঁদ একসাথে দেখতে পারব।
এর পরের বার যখন মঙ্গল গ্রহ পৃথিবীর এতটা কাছাকাছি আসবে তখন হবে ২২৮৭ সন। ফলে আজকের কেউই জীবিত থাকবে না সেই দৃশ্য দেখার।

সূত্র: তড়িৎ বার্তা

Friday, August 08, 2008

মানবদেহ: আট কুঠুরি নয় দরজার আজব কারখানা

মানবদেহ অতি বিস্ময়কর। এখানে রয়েছে অসংখ্য বড়-ছোট কিংবা সূক্ষাতিসূক্ষ কোষ, অঙ্গপ্রত্যঙ্গ, শিরা-উপশিরা, গ্রন্থি আরো কত কী? মানবদেহের কতিপয় কাঠামো নিম্নরূপ...

মানবদেহে রয়েছে ২০৬টি ছোট-বড় অস্থি, ৬৫০টি মাংসপেশী, ১০০টি গ্রন্থি, ১৩০০ কোটি স্নায়ুকোষ, রক্তের এক লক্ষ কিলোমিটার শিরা-উপশিরা। মানব মস্তিস্ক একটি বিস্ময়কর যন্ত্র। এর ওজন সমগ্র শরীরের ১০০ ভাগের ৩ ভাগ। প্রতি মিনিটে মস্তিষ্কে রক্ত সরবরাহের পরিমাণ ৩৫০ মিলিলিটার। মানবদেহের হৃদযন্ত্র সারা জীবনে প্রায় ২০০ কোটিবার ধুক ধুক করে। ৫০ কোটি লিটার রক্ত পাম্প করে। মানব দেহের অতি বিস্ময় পাকস্থলী। এখানে প্রতি মিনিটে তৈরি হচ্ছে ৫০০০ কোটি কোষ। তারা আবরণ সৃষ্টি করে পাকস্থলীকে রের্মণর্ডধমভ দিচ্ছে।

দেহে রয়েছে দুটি কিডনী। কিডনী দুটি প্রতি মিনিটে ১.৩ লিটার রক্ত ছাঁকছে এবং প্রস্রাব আকারে বের করে দিচ্ছে। কিডনীতে অসংখ্য ছোট ছোট সরু নল রয়েছে। এগুলোকে পরস্পরের সঙ্গে জোড়া লাগালে লম্বায় তা হবে প্রায় ৪০ মাইল। মানবদেহে রক্তের পরিমাণ পুরুষের ৫.৫ লিটার, মহিলার ৪.৫ লিটার। রক্তে লোহিতকণিকা জীবিত থাকে ৪ মাস, রক্তে লোহিত ও শ্বেতকণিকার অনুপাত ৫০০:১। মাত্র ১ ফোঁটা রক্তে রয়েছে ১০০ মিলিয়ন লোহিতকণিকা।

একজন পূর্ণবয়স্ক মানুষের দেহের ত্বকের ওজন প্রায় ৬ পাউন্ড। মানবদেহের স্বাভাবিক তাপমাত্রা ৩৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস। শরীরের মোট তাপের প্রায় ৮০ ভাগ বেরিয়ে আসে মাথা দিয়ে। দেহে প্রতিদিন চুল গজায় ১০০টি। দেহের দ্রুততম কোষ হচ্ছে শ্বেতকণিকা। মানবদেহের ক্রোমোজোম ২৩ জোড়া, অটোজোম ২২ জোড়া। একজন পূর্ণবয়স্ক মানুষের সুস্থ, স্বাভাবিক, বিশ্রামরত অবস্থায় গড়ে মিনিটে ৭২বার হৃদস্পন্দন হয়।

মানবদেহের সবচেয়ে বড় অস্থিটির নাম উর্বাস্থি (উরুদেশে অবস্থান), ছোটটির নাম স্টেপিস। দেহের ৫টি আঙ্গুলের অস্থির সংখ্যা ১৪টি। একজন বয়স্ক লোক প্রতি মিনিটে ১২-১৮বার শ্বাস-প্রশ্বাস গ্রহণ করে। শ্বাস-প্রশ্বাস ৩মিনিট ২০সেকেন্ড বন্ধ থাকলে মানুষ মারা যেতে পারে। মানবদেহে রক্ত সঞ্চালন ৫ মিনিট বন্ধ থাকলে মানুষের মৃত্যু ঘটে। মানবদেহে প্রতিদিন ৫ লিটার পানির প্রয়োজন। দেহ প্রতিদিন ২.৩ লিটার পানি ত্যাগ করে।


সূত্র: সাপ্তাহিক বাঙালী (নিউ ইয়র্ক)

হোয়াইট হাউজ সাদা কেন?

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রাজধানী ওয়াশিংটন ডিসিতে অবস্থিত হোয়াইট হাউজ। এটা সবাই জানে যে, হোয়াইট হাউজ হল যুক্তরাষ্ট্রের সরকারের প্রধান কার্যালয় ও রাষ্ট্রপতির বাসভবন। তবে এর নাম হোয়াইট হাউজ কেন এবং এর রঙ সাদাই বা কেন? এটি ১৭৯২ সালের ১৩ই অক্টোবর স্থাপিত হয় এবং ১৮০০ সালে নির্মাণ কার্য শেষ হয়। ১৮১৪ সালে যুদ্ধের সময় ব্রিটিশ সেনারা ভবনটিতে আগুন জ্বালিয়ে দেয়। যুদ্ধ থামলে পুনরায় এর সংস্কার কাজ শুরু হয়। ভবনটির দেয়ালে আগুনের পোড়া দাগ ও ধোঁয়ার ছাপ ঢাকার জন্য দেয়ালের ওপর সাদা রঙের প্রলেপ দেয়া হয়। সেই থেকে এটি হোয়াইট হাউজ নামে পরিচিত।

সূত্র: সাপ্তাহিক বাঙালী (নিউ ইয়র্ক)

জ্যামিতির আবিষ্কার

বিভিন্নপ্রকার চিহ্ন ও তাদের ধর্ম বা বৈশিষ্ট্যের বিচার-বিশ্লেষণকেই জ্যামিতি বলে। আকার-আকৃতি, কোণ ও দূরত্ব কেমন করে পরস্পরের সাথে সম্পর্কযুক্ত, জ্যামিতি বলতে তার অধ্যয়নকেই বুঝায়। প্রাথমিক জ্যামিতি দু'ভাগে বিভক্ত, তল-জ্যামিতি ও ঘন-জ্যামিতি। তল-জ্যামিতিতে দু'মাত্রায় অর্থাৎ দৈর্ঘ্য ও প্রস্থযুক্ত চিত্রের বিশ্লেষণ লিপিবদ্ধ থাকে। ঘন-জ্যামিতিতে তিনমাত্রার জ্যামিতিক চিত্রের আলোচনা থাকে। দৈর্ঘ্য, প্রস্থ ও উচ্চতাযুক্ত বিভিন্ন ঘনবস্তু (যেমন ঘনক, সিলিন্ডার শঙ্কু, গোলক) প্রভৃতি নিয়ে আলোচনা করা হয় ঘন জ্যামিতিতে।

কেমন করে এই জ্যামিতি আবিষ্কৃত হয়েছিল, তা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। জ্যামিতির ইংরেজী হল জিওমেট্রী যেটি গ্রীক ভাষা থেকে এসেছে। জিও ও মেট্রি দুটি কথা দিয়ে জিওমেট্রি কথাটি তৈরি। 'জিও' মানে ভূমি আর 'মেট্রি' মানে মাপ। সুতরাং 'জিওমেট্রি' কথার অর্থ হলো ভূমি বা জমির মাপ। প্রকৃতপক্ষে, জ্যামিতির বিভিন্ন সূত্রের প্রকৃত আবিষ্কারকদের মধ্যে প্রাচীন মিশরীয়রাও অন্তর্ভূক্ত। প্রতি বছর নীল নদের বন্যায় গ্রামাঞ্চল প্লাবিত হত। তাতে বিভিন্ন ভূমিখন্ডের সীমাচিহ্ন ধুয়েমুয়ে একাকার হয়ে যেত। তখন নতুন করে জমির সীমানা চিহ্নিত করার জন্য এক উপায় উদ্ভাবনের বিশেষ প্রয়োজন হয়ে পড়ে। সেই থেকেই জিওমেট্রির উৎপত্তি।

সূত্র: সাপ্তাহিক বাঙালী (নিউ ইয়র্ক)

মজার যত তথ্য

মজার তথ্যাবলী
##সাধারণ ছোট একটি ইঁদুরের শরীরের ওজনের শতকরা ৭ভাগ হল তার দুগ্ধগ্রন্থির ওজন। আর তা দুধে পূর্ণ থাকলে সেটা হতে পারে ইঁদুরের শরীরের ওজনের শতকরা ২০ভাগ।
##তিমি মাছ তার স্তনের ত্বকের নিচের পেশী কুঞ্চনের সাহায্যে বাচ্চার মুখে দুধ ঢেলে দেয়। তিমির বাচ্চার গায়ে অনেক জোর থাকলেও জলের নিচে বসে স্তন থেকে টেনে টেনে দুধ খাওয়া তার পক্ষে সম্ভব না।
##যত দুধ আছে তার মধ্যে মানুষ-মায়ের দুধ সবচেয়ে মিষ্টি। এতে আছে শতকরা ৭ভাগ ল্যাকটোজ। দীর্ঘস্থায়ী দুগ্ধারণের বিস্ময়কর দৃষ্টান্ত পাওয়া গেছে মানুষের মধ্যে।
##এস্কিমো স্ত্রী লোকেরা তাদের সন্তানদের একটানা ১৫ বছর পর্যন্ত দুধ পান করাতে পারে।
##সবচেয়ে বেশী চর্বি আছে (প্রায় ৫০%) সীল আর ধূসর তিমিদের দুধে। সে কারণে সীলের বাচ্চারা আর তিমির বাচ্চারা দ্রুত বড় হয়ে উঠতে পারে।
##খরগোশের দুধে আছে ২৫% চর্বি। সেকারণে খরগোশ তার বাচ্চাদের সপ্তাহে দুই-তিনবার দুধ খাওয়ায়।
##সোভিয়েত ইউনিয়নে অতি সাধারণ এক জাতের মৌমাছি আছে যাদের চোয়ালের নিচে আছে বিশেষ দুগ্ধগ্রন্থি। এই দুধ এতই পুষ্টিকর যে, এটা খেয়ে রাণী মৌমাছি প্রতিদিন ২০০০ ডিম পাড়তে পারে।
##সমস্ত পাখিদের মধ্যে একমাত্র পায়রাই দুধ তৈরি করতে পারে। এদের দুধের বর্ণ সাদাটে তরল পদার্থ, যা তাদের গলার ভেতরে তৈরি হয়। পায়রার বাবা-মা উভয়েই এই দুধ ভিজে শস্যের সাথে মিশিয়ে বাচ্চাদের খাওয়ায়।

সূত্র: বাংলা টাইমস (নিউ ইয়র্ক)

মানুষের চোখের জাদু

MAIGC EYE

Aoccdrnig to a rscearch at Cmabrgde Uinervtisy,
it deonsn’t mttaer in waht oredr the ltteers in a wrod are, the only
irmpoatnt tihng is that the frist and lsat ltteer be in the rghit pclae.

The rset can be a taotl mses and you can sitll raed it wouthit porbelm.
Tihs is bcuseae the huamn mnid deos not raed ervey lteter by istlef,
but the wrod as a wlohe. Amzanig huh ?

সূত্র: Payload Asia Magazine, August 2004

স্বাক্ষর থেকে ব্যক্তিত্ত্ব নির্ণয়

স্বাক্ষর থেকে বোঝা যাবে একজন ব্যক্তির পার্সোনালিটি বা ব্যক্তিত্ত্ব

## যদি একটা (সিংগেল) আন্ডারলাইন করে সাইনের নিচে---
এসব মানুষ খুবই আত্মবিশ্বাসী এবং ভালো বৈশিষ্ট্যের। যদিও তারা কিছুটা স্বার্থপর তবুও তারা বিশ্বাস করে "মনুষ্য জীবনের সুখ-সমৃদ্ধিতে"।

## যদি দুইটা বিন্দু (ডট) থাকে সাইনের নিচে---
এসব মানুষ রোমান্টিক তবে তারা কাপড় বদলানোর মতো ভালোবাসার মানুষটিকেও বদলায় যখন তখন। তারা অন্যের সৌন্দর্য খোঁজে এবং নিজেকে সুন্দর করে প্রকাশ করতে চায়। অন্যকে আকর্ষণ করার ক্ষমতাও এদের আছে।

## যদি একটি বিন্দু (ডট) থাকে সাইনের নিচে---
এসব মানুষ প্রাচীন ক্লাসিকাল আর্ট বা চিত্রকর্ম খুব পছন্দ করে। তারা খুব সহজ সরল হয়ে থাকে। আপনি যদি এদের ওপর থেকে বিশ্বাস হারান, তাহলে এরা আপনার দিকে ফিরেও তাকাবে না। তাই এক্ষেত্রে এদের থেকে একটু সাবধান থাকা উচিত।

## যদি কোন আন্ডারলাইন বা বিন্দু (ডট) না থাকে সাইনের নিচে---
এসব মানুষ নিজের করে জীবনকে উপভোগ করতে চায়, অন্যের দৃষ্টিভঙ্গির দিকে মনযোগও দেয় না। যদিও তারা ভালো স্বভাবের কিন্তু এরা কিছুটা স্বার্থপর হয়ে থাকে।

## যদি এলোমেলোভাবে সাইন করে, নাম আর সাইনের মধ্যে কোন মিল নেই---
এসব মানুষ চেষ্টা করে খুব চালাক সাজতে, লুকিয়ে রাখতে চেষ্টা করে নানা বিষয়, কোন কিছুই সোজাসুজি করে বলে না, অন্যের দিকে নজরও দেয়া না সে কি বলছে।

## যদি এলোমেলোভাবে সাইন করে, নাম আর সাইনের মধ্যে কিছুটা মিল আছে---
এসব মানুষকে বলা হয় বুদ্ধিমান কিন্তু এরা চিন্তাশীল নয়। এরা বাতাসের দ্রুত গতির মতো নিজের চিন্তা-ভাবনা বদলায়। তারা কখনো চিন্তা করে না যে একটা বিষয় ঠিক নাকি ভুল। একটু তোষামোদের মাধ্যমেই এদেরকে বশে আনা যায়।

## যদি প্রিন্ট করে সাইন করে---
এসব মানুষ খুবই দয়ালু, অন্তরটা তাদের বিশাল, স্বার্থহীন এবং নিজের আপনজনদের জন্য নিজের জীবন দিতেও এরা প্রস্তুত। তাদের চিন্তা করতে সময় লাগে এবং অতি দ্রুত এরা রেগে যেতে পারে।

## যদি পুরো নাম সাইন হিসেবে লেখে---
এসব মানুষেরও হৃদয় বিরাট, নিজেকে যেকোনো পরিস্থিতিতে বা যে ব্যক্তির সাথে কথা বলছে তার সাথেও খাপ খাইয়ে নিতে পারে। তারা নিজের মতাদর্শের প্রতি খুবই অটল এবং অনেক দৃঢ়সংকল্পী।

[সূত্র: তড়িৎ বার্তা]