Showing posts with label India. Show all posts
Showing posts with label India. Show all posts

Monday, July 20, 2015

নুসরাত জাহান মায়াপুরধামের রথ যাথায়

দেখে ভালো লাগলো কোলকাতার অভিনেত্রী নুসরাত জাহানকে মায়াপুরধামের ইসকনের রথ যাত্রার উৎসবে


[সংগৃহীত] 

Wednesday, July 08, 2015

কেন বলি বাংলাদেশে হিন্দুদের আর স্থাণ নেই...

সম্প্রতি বাংলাদেশ-ভারত ক্রিকেট সিরিজে বাংলাদেশের নতুন প্রজন্মের কিছু ব্যাটসম্যান (সৌম্য সরকার, লিটন দাস) যখন ভারতের বোলারদের তুলোধনা করছিলো চার-ছয় মেরে, তখন বাংলাদেশেরই কিছু সমর্থক এমনতর মন্তব্য করছিলো...

কেন যে বলি বাংলাদেশে আর হিন্দুদের জায়গা নেই, এবার বুঝছেন তো পাঠক? যেখানে VIP হিন্দু star-দেরই এমনতর অবস্থার শিকার হতে হয়, তখন সাধারণ জনগণের কথা নাহয় নাইবা বললাম।


[সংগৃহীত]

Sunday, July 05, 2015

কোথায় এগোচ্ছে বাংলাদেশের নতুন প্রজন্ম?

সম্প্রতি ভারত-বাংলাদেশের মধ্যকার ৩-ম্যাচের ODI ক্রিকেট সিরিজের টানা দুই ম্যাচে ভারতের হারের পর পুরো বাংলাদেশ যেন আনন্দে ফেটে পড়ে। স্টেডিয়াম থেকে রাস্তা-ঘাট, অলি-গলি, পাড়া-মহল্লায় যেন আনন্দের মিছিল ছড়িয়ে পড়তে থাকে। এরই মাঝে ঘটে যায় নিকৃষ্ট একটা ঘটনা। ভারতের সুনামখ্যাত একজন দর্শক, সুধীর কুমার গৌতম, যিনি প্রায় সকল ভারতের ম্যাচেই উপস্থিত থাকেন গ্যালারীতে দল জিতুক আর হারুক শেষ পর্যন্ত, আর সেটা অস্ট্রেলিয়া, ইংল্যান্ড কিংবা যেকোনো দেশেই হোক না কেন, ছিলেন সেদিনকার ম্যাচেও। খেলার শেষে তিনি যখন গ্যালারী থেকে বেড়িয়ে যাচ্ছেন, তখন আনন্দরত দর্শকের মধ্য থেকে তার উদ্দেশ্যে ইট-পাথড় ছুড়ে মারা হয়। তিনি কোনো মতে যানবাহন করে তার হোটেল অবদি পৌঁছান। কিন্তু সেসব অতর্কিত ইট-পাথড়ে তিনি খানিকটা আহত হন।

এ তো গেলো ঘটে যাওয়া ঘটনা। এরপরে বাংলাদেশের মিডিয়া এই খবরকে নিয়ে নানা মারপ্যাচ লাগাতে থাকে। ভারতীয় মিডিয়া যখন এই খবরকে ফলাও ভাবে প্রচার করছে, তখন বাংলাদেশের গণমাধ্যম কোনো না কোনো ভাবে চেষ্টা করছিলো কিভাবে ঘটনাটিকে স্বাভাবিক হিসেবে ফলাও করা যায় সে নিয়ে ব্যস্ত। প্রসঙ্গত, নিচের ভিডিওটি দেখলেই এটি আরো পরিস্কার হবে। বাংলাদেশী সাংবাদিক কথা বলার সুযোগই দিচ্ছেন না সুধীর গৌতমকে তার পুরো বক্তব্য বলার। সাংবাদিক টেনে টেনে এনে যতটুকু শোনালে এটি প্রমাণ হবে যে সুধীর বাবু আহত হননি, ততটুকুই চেষ্টা করছিলেন এই অংশটি জুড়ে। বাংলাদেশের সাংবাদিকতার অপমান করতে চাচ্ছি না। কিন্তু এমনতর যদি একটা প্রাইভেট টিভি চ্যানেলের সাংবাদিকতার নমুনা হয়, তাহলে তো মানুষ সত্য কখনোই জানবে না। যেমনভাবে দর্শককে গেলাবে, তেমনটাই দর্শক গিলবে - সে যদি কোনো খুনও হয়, তাতেও খুনীকে ভূয়সী প্রশংসার পাত্র বানাতে কোনো অসুবিধাই হবে না এমন সাংবাদিকদের।



পরিশেষে এটুকুই বলবো, বাংলাদেশে দিন বদলের পালা চলছে। 'ডিজিটাল বাংলাদেশ' গড়ার কাজ চলছে। উন্নতির শিখায় উঠতে উঠতে নিজের আগের অবস্থাকে ভুলে গেলে ভবিষ্যত খুব সুখকর হবে না। যতই বড় হোক না কেন দেশ, যতই উন্নত হোক না কেন ক্রিকেট, যতই আধুনিক হোক না কেন মানুষ - নিজের পেছন ইতিহাস ভুলে গেলে ক্রিকেটার নাসিরের ফেইসবুক নিয়ে যে ঘটনা ঘটেছে, রমনায় বর্ষবরণে নারীদের প্রকাশ্যে শ্লীলতাহানির যে ঘটনা ঘটেছে - এমন ঘটনা আরো বাড়বে। আগের কিছু লেখায় দিয়েছিলাম যে, যারা বুঝতে পারছে তারা নিজেদের মেয়েদের এমন দেশে বড় করতে সাহস পাবে না, কিংবা আগেই এমন ভবিষ্যতবাণী দিয়ে ফেলতে পারে যে ক্রিকেট ক্রেইজ থেকে নানা নোংরামীর সৃষ্টি হতে পারে। এই প্রবণতা যদি আরো বেশী চলতে থাকে তাহলে ভারতে কেন, বাংলাদেশেও কোনো প্রবাসীনী, বিদেশীনীরা পা ফেলতে এগোবে না। ধর্ষণ-শ্লীলতাহানি, নোংরা মন্তব্য, আবেগপ্রবল আঘাত - এসব যদি সামনের নব্য প্রজন্মকে বর্ণনা করে, তাহলে এমন ডিজিটালের চেয়ে সেই আগেকার গ্রাম্য থাকাই মন্দ না। যেই বাংলাদেশ, বাঙালীরা আতিথেয়তার জন্য অন্যান্য সমাজের কাছে প্রসিদ্ধ, তাদের যদি এমন ভবিষ্যত প্রজন্ম হয়, তাহলে নিজেকে বাংলাদেশী পরিচয় দিতেও দু'বার চিন্তা করে নেব।

Saturday, June 13, 2015

Team India doesn't hold any grudge against Bangladesh: Virat Kohli

Will this change in the way Bangladesh is performing recently?

(read the article)

Source

Friday, June 12, 2015

খালেদা বনাম মোদী

কিছুদিন আগে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বাংলাদেশে ভ্রমণে এসে বিএনপির প্রধান খালেদা জিয়াকে এই প্রশ্নগুলো করেন -
  • ভারতের রাষ্ট্রপতির সাথে যেদিন পূর্ব নির্ধারিত সাক্ষাতের কর্মসূচি ছিলো সেদিন কারা ঢাকায় হরতাল ডেকেছিলো।
  • ২০০৪ সালে চীন থেকে আসা দশ ট্রাক অস্ত্র চট্টগ্রাম বন্দরে অবৈধভাবে খালাস করে ভারতীয় সন্ত্রাসীদের কাছে পৌঁছে দেয়ার যে আয়োজন করা হয়েছিলো সেটা ঘটেছিলো আপনার প্রধানমন্ত্রীত্বের আমলে। আর সেই গোপন আমদানির সঙ্গে আপনার ক্যাবিনেটের দুই গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রী স্বরাষ্ট্র ও শিল্পমন্ত্রী জড়িত ছিলেন। শোনা যাচ্ছে, আপনি এবং আপনার দল ওই ঘটনার তদন্তে খুব একটা সাহায্য করেননি।
  • বর্ধমানের  বিস্ফোরণকাণ্ডে তার দলের ও জোটসঙ্গী জামায়াত নেতাদের সম্পৃক্ততার তথ্য ভারত-বাংলাদেশের যৌথ তদন্তে উঠে আসছে। বিএনপি ও তার জোটসঙ্গীদের ওইসব দোষীদের আড়াল না করে তদন্তে সহায়তা করা তার (বেগম খালেদা জিয়ার) নৈতিক দায়িত্ব।
প্রথমটির উত্তর দেবার চেষ্টা করলেও পরের দুটোতে চুপ থাকেন খালেদা। দেখার বিষয় হলো এই যে, মোদী ভদ্রতার খাতিরে এমনতর প্রশ্ন করতে পিছপা হননি একজন প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রীকে। এমন স্পষ্টবাদীতা বিশ্বের অনেক রাষ্ট্রপ্রধানদের মধ্যেই আজকাল খুব একটা দেখা যায় না। 

Saturday, February 21, 2015

আমি বাঙালী হয়ে গর্বিত ...



বাংলাকে ষষ্ঠতম বহুল প্রচলিত ভাষা হিসেবে দেখে বাঙালী হিসেবে গর্ববোধ করছি


[সংগৃহীত]

Tuesday, December 23, 2014

BEING AN INDIAN ABROAD

Last time when I reached SFO Airport, there has been a very long queue to reach the immigration counters. A security personnel was guiding the passengers to form the queue. The moment she went to other side, a man suddenly came out of the queue and ran towards the front, out of turn. I have noticed the passport in his hand - it was a Pakistani Passport.

A bearded westerner (obviously not an American as this was a queue for non-citizens) made a comment: "He must be an Indian..."

I got angry. I told him: "No, he is a Pakistani"

Sunday, December 21, 2014

ARE YOU READY FOR A COMPETITION?

"Today's life is all about competition. Let's make our children competitive to win in life. That's the theory of nature too - survival of the fittest..." An eminent speaker said during a parent-teachers meet in my kids’ school few years ago. The audience was applauding loudly.

Everybody teaches kids to be competitive. The ultimate Goal is "winning".
Can everybody win? Only one person can be no. 1, right? So the remaining 99% of the public ends up in disappointment, frustration and depression. Eventually suicide happens.

Tuesday, December 16, 2014

India's Friendship Day for 16th December

A year ago in-front of his eyes his girlfriend was brutally raped by six bastards in a running bus of Delhi. He fought till the time he was beaten to blue with an iron rod. They broke his leg, robbed him, snatched his mobile & left him almost naked apart from inserting a rod inside the genital of his girlfriend after raping her. He fought till the time he could. Then in that chilling cold night he was thrown from the running bus along with his girlfriend. They were naked, drained, exhausted & both were bleeding for different reason. In that situation he tried to stop passing cars & kept on begging a piece of shawl to wrap his naked girlfriend & finally he got it after 40 minutes. Then he took her to hospital, admitted her, called police,called her parents & did every possible co-operation that a true friend should do at the hour of need. He could have flee from the bus - he did not.
He could have leave her on the road - he did not. He could have claim fame &
money (as the shameless father of Nirbhaya took Rs 25 lakhs from UP CM,a job for his son & many more from many people by his daughter's name) - but he did
not. He could have claim his treatment money from Govt - he did not. He could have become the most frequently seen face in electronic media in exchange of money - he did not.

Wednesday, December 10, 2014

অমরনাথ মন্দির,পহেলগাও,জম্মু ও কাশ্মীর


 
অমরনাথ গুহা একটি হিন্দু তীর্থক্ষেত্র যা ভারতের জম্মু ও কাশ্মীরে অবস্থিত।এটি একটি শৈব তীর্থ। এই গুহাটি সমতল থেকে ৩,৮৮৮ মিটার (১২,৭৫৬ ফুট) উঁচুতে অবস্থিত। জম্মু ও কাশ্মীরের রাজধানী শ্রীনগর১৪১ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত এই তীর্থে যেতে পহেলগাও শহর অতিক্রম করতে হয়। এই তীর্থ ক্ষেত্রটি হিন্দুদের জন্য খুব গুরুত্বপূর্ণ এবং অন্যতম পবিত্র স্থান বলে বিবেচিত হয়।গুহাটি পাহাড় ঘেরা আর এই পাহাড় গুলো সাদা তুষারে আবৃত থাকে বছরের অনেক মাস ধরে। এমনকি এই গুহার প্রবেশপথও বরফ ঢাকা থাকে।গ্রীষ্মকালে খুব স্বল্প সময়ের জন্য এই দ্বার প্রবেশের উপযোগী হয়। তখন লক্ষ লক্ষ তীর্থ যাত্রী অমরনাথের উদ্দ্যেশ্যে যাত্রা শুরু করেন। অমরনাথের গুহাতে চুইয়ে পড়া জল জমে শিবলিঙ্গেরআকার ধারণ করে। জুন-জুলাই মাসে শ্রাবণী পূর্ণিমা থেকে শুরু হয় অমরনাথ যাত্রা। শেষ হয় জুলাই-আগস্ট মাসে গুরু পূর্ণিমার সময় ছড়ি মিছিলে। জাতিধর্ম নির্বিশেষে লক্ষ লক্ষ মানুষ এই অমরনাথ যাত্রায় যোগদান করেন।

Saturday, November 22, 2014

বাংলা বারের নামকরণ ইতিহাস

আপনি কি জানেন?

বাংলা সাত বারের নাম ও বাংলা বার মাসের নাম হিন্দু দেবতাদের নাম অনুসারে হয়েছে?
তাহলে দেখুন:
শনিবার- শনি দেবতার নাম অনুসারে
রবিবার- রবি বা সূর্য দেবতার নাম অনুসারে
সোমবার- সোম বা শিব দেবতার নাম অনুসারে
মঙ্গলবার- ধূপ বা দ্বিপের নাম অনুসারে
বুধবার-বৃহস্পতিবার-শুক্রবার- গ্রহের নাম অনুসারে

বৈশাখ- কীর্ত্তন নাম অনুসারে
জৈষ্ঠ্য- অগ্নি দেবতার নাম অনুসারে
আষাঢ়- আষাঢ়ি পূর্ণিমার নাম অনুসারে
শ্রাবণ- ব্রাক্ষ্ মা দেবের নাম হতে
ভাদ্র- শ্রীকৃষ্ণের বাঁশি হতে
আশ্বিন- অশ্বিনী কুমারের নাম হতে
কার্তিক- কার্তিক দেবতার নাম অনুসারে
অগ্রহায়ন- সূর্য দেবতার আবর্তন হতে
পৌষ- পার্বন হতে আগত
মাঘ- তীর্থস্হান হতে আগত
ফাল্গুন- জলন্ত কাঠ বা যজ্ঞ হতে আগত
চৈত্র- বাসন্তী দেবীর শাড়ি হতে আগত

মূলত সূর্যকে কেন্দ্র করে এসব নামের উৎপত্তি । সম্রাট আকবর আরবের সাথে হাত মিলিয়েও এই নামগুলি পরিবর্তন করতে পারেন নাই । আর পারবেও না............. ....

(মূল লেখাঃ নয়ন)
[প্রকাশেঃ শোভন]

Tuesday, October 28, 2014

Awesome B_O_M_B_A_Y!


Bombay has no bombs and is a harbour not a bay.
Churchgate has neither a church nor a gate. It is a railway station .
There is no darkness in Andheri.
... Lalbaag is neither red nor a garden .
No king ever stayed at Kings Circle .
Nor did Queen Victoria stay at Victoria Terminus.
Nor is there any princess at Princess Street .
Lower Parel is at the same level as Parel.
There are no marines or sailors ⚓at Marine Lines.
The Mahalaxmi temple is at Haji Ali not at Mahalaxmi.
Teen bati is a junction of 3 roads, not three lamps .
Trams used to terminate at Kings circle not Dadar*TramTerminus. (Dadar T.T..).
Breach Candy is not a sweetmeat market, but there is a Hospital .
There are no Iron smiths at Lohar chawl.
There are no pot makers at Kumbhar wada.
Lokhandwala complex is not an Iron and steel market .
Null bazaar does not sell faucets.
You will not find lady fingers at Bheendi Bazar.
Funny 😇Bombay... zara hatke zara bachke yeh hai Bombay meri Jaan


(collected)

Tuesday, September 30, 2014

আপনি করলে দোষ না, পরে করলেই দোষ

ভারতের অযোধ্যায় বাবরী মসজিদের জায়গায় রামমন্দিরের শিলান্যাস ঘটনাকে অজুহাত হিসেবে দাঁড় করিয়ে ইসলামিক প্রতিক্রিয়াশীল শক্তি ২৯ অক্টোবর, ১৯৮৯ থেকে বাংলাদেশ জুড়ে তাণ্ডবলীলা শুরু করে। এই শ্রেষ্ঠত্ববাদী গোষ্ঠী বহু জায়গার হিন্দু বাসাবাড়ি ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান আক্রমণ করে পুড়িয়ে দেয়; বহু হিন্দু আহত হয়, কিছু সংখ্যক মারাও যায়। হিন্দু মন্দির এবং আশ্রমগুলোর ওপর ছিলো তাদের বিশেষ নজর। ৯ এবং ১০ নভেম্বর, ১৯৮৯ এই উন্মত্ততা চরম আকার ধারণ করে। অসংখ্য মন্দির ভেঙ্গে বা পুড়িয়ে দেয়া হয়, ক্ষতিগ্রস্ত হয় আরো অনেক। দেব-দেবীর প্রতিমাতে ভাঙচুর চলে, সেগুলো ছুড়ে ফেলা হয় মন্দিরের বাইরে। পুরোহিতেরা মারধরের শিকার হন। পদক্ষেপহীন ২টি সপ্তাহ কাটাবার পর বাংলাদেশ সরকার অবশেষে এই হামলা বন্ধের তাগিদ অনুভব করে। বিশ্বসম্প্রদায়ের কাছে নিজেদের অসাম্প্রদায়িক প্রমাণ করতে সরকার এক ডজন মন্দিরের মেরামতেরও ঘোষণা দেয়। নিচের তালিকাটি হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রীষ্টান ঐক্য পরিষদ, ৫৩ তেজতুরি বাজার, ঢাকা, বাংলাদেশের প্রকাশনার সাহায্যে প্রস্তুত করা হয়েছে। এখানে লক্ষণীয় যে এটি একটি আংশিক তালিকা মাত্র।

Sunday, September 28, 2014

পশ্চিমবঙ্গে পূজো পেছালো ঈদের কারণে



এরপরেও ভারতের মুসলিমরা বলে তারা নাকি পূর্ণ স্বাধীনতা পান না ভারত রাষ্ট্রে। অথচ রমজানে রোজার মাসে মন্দিরগুলোতে পূজা-পার্বণ ঠিকমত করা যাবে না বাংলাদেশে - এমন হওয়ার পরেও বাংলাদেশ অসাম্প্রদায়িক রাষ্ট্র!

(সূত্র)

Wednesday, September 17, 2014

আবার একজন ‘শান্তির’ ধর্মের লোকের মুখোশ খুলে গেল

লাভ জেহাদের শিকার হিন্দু মেয়েদের মাদ্রাসায় একত্র করে গনধর্ষন এবং মৌলবিদের দ্বারা জবরদস্তি গোমাংস খাইয়ে ইসলাম গ্রহণ করনো হয়। তারপর বিক্রি করে দেওয়া হয় আরব দেশগুলোয়। কাল মীরাটে প্রকাশ্যে এলো এমনই খবর। আরো অনেক হিন্দু মেয়ে এখনো মুসলমানদের হাতে বন্দী। কাল আপনার বোন বা মেয়েও হতে পারে এর শিকার । পড়ুন, সাবধান হন, বিভিন্ন গ্রুপে শেয়ার করে সাবধান করুন।

****মাদ্রাসায় গনধর্ষন এবং ইসলামে ধর্মান্তরকরনের অভিযোগে অশান্তি****

মীরাটের খরখোদা অঞ্চলে যুবতীকে গনধর্ষন এবং জবরদস্তি ইসলাম গ্রহণ করানোর ঘটনা প্রকাশ্যে আসার পর সাম্প্রদায়িক হিংসার আগুন জ্বলে ওঠে পশ্চিম- উত্তরপ্রদেশে। ইতিমধ্যে সামনে এলো নতুন একটি ঘটনা। দশ দিন আগে অপহরণ করা এক যুবতী রবিবার পরিবারের সাথে বিপর্যস্ত অবস্থায় থানায় হাজির হয়ে মাদ্রাসায় গনধর্ষন এবং জবরদস্তি ইসলাম ধর্ম গ্রহনের অভিযোগ করে। যুবতীটি বলে বিগত কয়েকদিন তাকে মাদ্রাসায় অপহরণ করে রাখা হয়। যুবতীর পেটে অপারেশনের চিহ্ন রয়েছে। তাই তার কিডনি নেওয়ার আশঙ্কাও রয়েছে।
ঘটনার কথা প্রকাশ্যে আসতেই বিভিন্ন স্থানে হিংসা ছড়িয়ে পড়ে। বিজেপির কার্যকর্তারা পরিদর্শন করেন এবং পুলিশের সাথে তাদের কথা কাটাকাটিও হয়। পুলিশের উচ্চপদস্থ কর্মীগন এসে S.O. দীনেশ কুমার কে শোকজ করা হয়। এবং মাদ্রাসার হাফিজ এবং গ্রাম প্রধান সমেত নয়জন মুসলিমের বিরুদ্ধে সিরিয়াস ধারায় কেস দেওয়া হয়।
পীড়িত যুবতী গ্র্যাজুয়েশন করার পর গ্রামেরই এক মাদ্রাসায় হিন্দি আর ইংরেজি পড়াতেন। যুবতির পিতার অভিযোগ, গত২৩ জুলাই মাদ্রাসায় হাফেজ সানাউল্লাহ এবং গ্রামপ্রধান নবাব সঙ্গীদের নিয়ে যুবতীটিকে অপহরণ করেন এবং হাপুড় স্থিত মাদ্রাসায় নিয়ে গিয়ে তাকে গনধর্ষন করে এবং জবরদস্তি তার ধর্ম পরিবর্তন করে দেয়। তাকে মারধর করে এবং হত্যার হুমকিও দেওয়া হয়।
যুবতীটি বলে, গ্রামের প্রধান নবাব খাঁ , মাদ্রাসার মউলানা সানাউল্লাহ ,তার পত্নী এবং মেয়ে নিসরত ওরফে সানা প্রমুখ মিলে তাকে অপহরণ করেন। তারপর হাপুড়ের দোতাই মাদ্রাসায় ৩১শে জুলাই ধর্মান্তরন করে তার নাম বুশরা জন্নত রেখে দেয়। এবং তার গনধর্ষন ও করা হয়। তাকে হাপুড় ছাড়াও অপহরনের পর তাকে গড় মুক্তেশ্বর, মুজফফরনগর এবং দেওবন্দের মাদ্রাসাতেও রাখা হয়। তাকে অজ্ঞান হওয়ার ইঞ্জেকশন গিয়ে রাখা হত। এরপর মুজফফরনগরের মাদ্রাসা থেকে কোনরকমে তিনি পালিয়ে এসে বৈশালী বাস স্ট্যান্ডে পৌঁছে কোনও এক পথিকের কাছে মোবাইল ফোন নিয়ে পরিবারের সকলকে পুরো ঘটনা জানায়।
যুবতীর কথামত, মুজফফর নগররের মাদ্রাসায় প্রায় ২৪ জন যুবতি ছিল এবং তাদের অবস্থাও তার মতোই ছিল। যদিও পুলিশ রেইড করে কিছু পায় নি। সুত্রের খবর রেঈডের সময় মাদ্রাসায় ৪০ এর উপর মেয়ের রেজিস্ট্রেশন পাওয়া যায় যাদের মধ্যে ১৬ জনের রমজান আর ঈদে বাড়ি যাওয়ার কথা বলা আছে। এর থেকে যুবতীর বক্তব্যের সমর্থন পাওয়া যাচ্ছে। মীরাটের S.P. ক্যাপ্টেন এম এস বেগ বলেছেন যুবতীকে গনধর্ষন করা হয়েছে, তার প্রমাণ মিলেছে। তিনি বলেছেন ‘দোষীদের বিরুদ্ধে কঠিন ব্যবস্থা নেওয়া হবে। নবাব এবং সানাউল্লাহ গ্রেফতার হয়েছে। বাকিদের পুরদমে খোঁজ চলছে।’
অন্যদিকে এলাকায় আক্রান্তের সমর্থনে মানুষের মধ্যে প্রবল আক্রোশ দানা বাঁধছে। রবিবার রাত্রি ১১টায় খরখোদার এক পাড়ায় যুবকদের ভিড় ইট লাঠি ইত্যাদি নিয়ে চড়াও হয়। পুলিশ সুচনা পাওয়ার আগেই আক্রমণকারীরা পালিয়ে যায়। তারপর থেকে সেখানে পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।
https://www.facebook.com/amihindoo/posts/260921617365487
or
http://www.hindustantimes.com/.../article1-1247947.aspx

 

or
https://www.facebook.com/drsubramanianswamy/photos/a.118146701658320.18858.107229389416718/448248108648176/?type=1&theater



(Source)

Tuesday, September 09, 2014

ভারত-বাংলাদেশে হিন্দু নির্যাতন


চলতি পথে ইদানীং বেশ কিছু বরাহ শাবকের দেখা পাচ্ছি যেগুলো বিভিন্ন সময় বলার চেষ্টা করে বা বোঝাবার চেষ্টা করে কিংবা স্রষ্টা প্রদত্ত লজ্জা নামক বিষয়টি ছুড়ে ফেলে বলেই ফেলে বাংলাদেশের সংখ্যালঘু হিন্দুরা নাকি ভারতের মুসলিমদের থেকে ভাল আছে। এই অমানুষ গুলো শুধু এটুকুই বলে না আরও বলে বাংলাদেশে নাকি হিন্দুদের উপর কখনও নির্যাতন করা হয় না বা সামান্য কিছু নির্যাতন ছাড়া আর কখনও হয়নি।এই সকল নির্লজ্জ বেহায়া প্রজাতির বরাহ যারা নিজেদেরকে মনুষ্যগর্ভে জন্মগ্রহন কারী বলে দাবী করে তাদের মুখের উপর এই লেখাটি ছুড়ে দেবেন।