Showing posts with label Islam. Show all posts
Showing posts with label Islam. Show all posts

Monday, April 11, 2016

মেয়েদের জিন্স পড়া থেকেই ভূমিকম্প

মেয়েদের জিন্সের প্যান্ট পড়ার কারণে নাকি আল্লাহর গজব পরে ভূমিকম্প হয়েছে - এমনটাই মন্তব্য পাকিস্তানী এক মওলানা ফজলুর রহমান। তার মতে পাক সরকারের উচিত মিলিটারী নিয়োগ করে মেয়েদের জিন্স পড়া রোখার কাজ কার্যকরী করা। এমনকি মুদ্রাস্ফীতির কারণও নাকি মেয়েদের জিন্স পড়ার ফলে হয়েছে। মেয়েদেরকে বস্তায় পুরে ঘরের মধ্যে রেখে দেওয়ার মাধ্যমে শরীয়া আইন প্রতিষ্ঠা হবে আর এর ফলেই তালিবানী ভাইয়েরা আক্রমণ করা থেকে বিরত থাকবে।

এ কোনো কৌতুক পোস্ট নয়। বাস্তবেই এমনটি ঘটেছে। নিজ দায়িত্বে পড়ে দেখবেন বিস্তারিত। কৌতুক আবিষ্কারের জন্য এখন আর বানিয়ে কিছু বলা লাগে না। খবরের পাতাতেই প্রতিনিয়ত কিছু চরিত্র বাস্তব জীবনের কিছু কৌতুক নিয়ে হাজির হয়।

Monday, March 21, 2016

Does Islam profess to not respect one's motherland?

Recently, Hyderabad Islamic seminary Jamia Nizamia issued a 'fatwa' that Muslims should not chant 'Bharat mata ki jai' slogan. Their reasoning is that the birth land cannot be compared to mother. Only humans give birth to humans, not land. Hence, this kind of slogan is forbidden according to Islam. They further added that even though Muslims love their country, but they cannot chant such slogans to express their patriotism.

Now my question is what is superior to a human being? Is his religious identity or country of birth? If religious identity prevails over country of birth, then such 'fatwa' gets clean pass. But if country of birth should overhaul religious identity, then are these 'fatwa' legitimate? Most country's constitutions protect the rights of its citizens to practice their religious beliefs, or at least in the modern-day's democratic societies. But when one of the largest religion of the world tells its followers that country of birth is less prioritized than religious identity, then what message does it give to others about that religion? Does it not show that the followers of that religion would prefer to die for their religion than their country of birth? In the time of need, would those followers of that religion be willing to shed bloods to save their country from foreign invasion? Would they care if others try to buy their country, buy its people, buy its valuables, buy its richness? Would they feel any sympathy when invaders destroy national emblems, national symbols, national statues etc.? Would they jump in to save those from demolition at the time of necessity? What does that show to a neutral or atheist who does not believe in any God(s), that what (land) has sustained one (people) for so long has no value when it comes to saving its (land) honor?

Sunday, January 31, 2016

ইউরোপেও ঢুকে গেছে আরবের ধর্ষণ খেলা "তাহারুশ"

শরণার্থীর নাম করে ইউরোপে ঢুকেছে নানান দেশের আরব থেকে আগত তরুণ, যুবক, পরিবার ইত্যাদি। এদের সাথে সাথে ঢুকেছে আরবের আচার-আচরণ, সংস্কৃতি। কিছু মাস আগে ইংরেজী বর্ষবরণের রাতে এমন ভাবেই আরবের কিছু তরুণ জার্মানীর বিভিন্ন শহরে 'তাহারুশ' নামক প্রথার চর্চা করে। এই প্রথা অনুযায়ী কোনো এক মেয়েকে কিছু তরুণ চারপাশ থেকে ঘিরে ধরে তার সাথে ধর্ষণ খেলায় মত্ত হবে। মেয়েটির সাথে দৈহিক ও মানসিকভাবে অত্যাচার চালানো হবে। কাপড়-চোপড় ছিঁড়ে ফেলা হবে সময়ে সময়ে। কিছু কিছু তরুণ এরই মাঝে এমন ভাব করবে যেন ওরা মেয়েটিকে বাঁচাতে চাইছে। কিন্তু ওরা আসলে তাহারুশেরই অংশ। এমন ঘটনা শুরু জার্মানীর বার্লিন, হ্যামবার্গ, ফ্র্যাংকফুর্ট, ডুসেলডর্ফ বা স্টুটগার্টেই নয়, অস্ট্রিয়া, সুইজারল্যান্ডের মতো দেশেও এমনটি ঘটেছে।

উদারপন্থী সমাজের ব্যক্তিবর্গ এ নিয়ে কি বলবেন! মুক্তহস্তে স্বাগত জানান এসব সংস্কৃতি, প্রথা, তরুণ, যুবক। পরে আবার অনুতাপ বোধ করবেন না। যেমন কর্ম, তেমনই ফল!

(বিস্তারিত)

Monday, January 25, 2016

Is this the future of Britain?

Bury Park in Luton is an area notorious for Islamic extremists, ISIS fanatics, hate preachers and terrorists.

It is perhaps the worst hotspot in the whole country for Islamists.


In response to the recent imprisonment of an ISIS supporter (who is from Bury Park) Britain First carried out a "Christian Patrol" along the High Street and encountered ferocious hostility from local Muslims.


What followed was a shocking look into the Islamisation of our beloved country.
Our activists were attacked and pelted with eggs. Verbal abuse was rife. Muslims claimed they have "taken over" Luton and the UK. This is the future of Britain.


video

[Courtesy: Britain's First]

Monday, December 07, 2015

GOP figures: as bold as they can be...

video
 
I agree with the stand that Congressman Joe Walsh has taken. When you believe in something, you cannot sacrifice that belief to please someone else. Then that means you don't actually have the initial belief that you have been saying previously. If Americans who believe in free speech, freedom of religion, freedom of expression, then Joe Walsh has the right to say these things to express his views.

Along with Congressman, current GOP presidential candidate, Senator Ted Cruz, vowed to kill extremist, jihadist Islamists if he's elected president during a new campaign ad.

Another hopeful GOP presidential candidate, former Governor George Pataki said during a tweet that he would declare 'war on radical Islam' if he were a president now.

It is quite clear from the GOP that what this Obama administration is doing, in terms of tackling radical Islam issue is nothing but defensive in its measures. Though you may not agree with Republicans all the time, but this is something that all sane Americans must agree on. We need a leader who would stand up against extremist Islamists to combat them till there is no more of them.

[source]

Saturday, December 05, 2015

'Intolerant' India!

In the last few weeks, the talk of the town in Indian media has been 'intolerance' in India from the majority-Hindus against minority-Muslims. Big name celebrities have become involved in this debate. The main talking point was when Aamir Khan told the media during an interaction that his wife (Kiran Rao) asked him at one point whether or not they should move out of India for the betterment of their son over 'intolerance'.

Singer Abhijit Bhattacharya summed it up pretty well in an open letter written to actor Aamir Khan.
Janab Aamir Khan, 
 
I am an ordinary Indian citizen and an avid movie-goer. You are a superstar in a country where the majority of movie-goers are Hindu. For years, we have spent our money to buy tickets for your movies. It is our money that has made you what you are today. 
 
We clapped when as ACP Ajay Rathore, you destroyed a sweet-talking Gulfam Khan in 'Sarfarosh'. We cheered when as Bhuvan, you played the winning shot in 'Lagaan'. We cried when as a sensitive art teacher, you made us root for Ishaan Awasthi in 'Taarey Zamin Par'.

A couple of generations before you, an Yusouf Khan had to become a Dilip Kumar to be accepted and a Mahajabeen Bano had to reinvent herself as Meena Kumari. Not you though. Neither you, nor your contemporaries had to hide your identity to be successful. 
 
You became a star in a new India. An India, where only your first name mattered. We loved you because you were Aamir, a brilliant actor. Neither your last name mattered to us, nor your faith. 
 
But yesterday, you proved to us that for you and your wife at least , it is your last name that matters more than anything else. 
 
Your name is Khan and you Sir, are a hypocrite. 
 
You did not scream intolerance when your city burned at the hands of some of your co-religionists. Your wife did not feel insecure when a mammoth crowd of some of your co-religionists attended the funeral of a hanged terrorist. You were silent even when a mob from Reza Academy kicked and destroyed a national memorial and manhandled female cops. 
 
But now, suddenly, your wife feels insecure in India and wants you to move out. 
 
If I WERE indeed intolerant, I would suggest you move to the Kingdom of Saudi Arabia, the safest place on earth, where Begum Kiran Rao can feel absolutely secure inside her abaya and your little son can grow up watching public executions in a Riyadh square. 
 
But I am not going to do that. As a tolerant Indian, the only thing I can and WILL do is to make sure that not even one rupee of my hard-earned money goes towards buying tickets for your movies. Thanks for the disappointments. 
 
Regards, 
An Indian.
[source]

Sunday, November 22, 2015

Extremism: Short-term Solutions

With the recent Paris attack by ISIS, it is quite clear to everyone that radical or extremist Islam needs to be taken care of as soon as possible by the Free World. No matter which spectrum of the right vs. left wing you might be, you cannot deny that tougher actions need to be implemented at the earliest to prevent any near-future incidents like this to the Free World. Already some of the western nations along with France have gone ahead in crushing some key points of ISIS in Syria. But the action cannot stop there. While I have been reading & listening to various people give their takes on the solution to the overall issue, I myself thought about some steps for a full-stop on this growing problem, once and for all.

Firstly, as we have been seeing in the recent past, the Cold War superpowers were quite divided in how to handle ISIS. While one does not want to proceed with military actions, other has already struck at various locations of ISIS. No matter who is right or wrong, it just cannot make sense to a common folk that at a time when the existence of the western civilization is threatened, how can the two giants sit separately and continue diverging further. When at school, we teach our kids "sharing is caring". Buddha teaches us that "to give is to gain". The Bible tells us that "it is more blessed to give than receive". The point is when the enemy is common, set aside all your personal vendetta, set aside all your past animosity, set aside all your pesky little or big differences, set aside all your ego, and unite for this common purpose because "united we stand, divided we fall". When the enemy is ISIS which affects both of your (US and Russia) very western civilization, strike at the heart of the enemy with combined force. Let the world see that whenever fanatics rise, i.e. during WWII with Hitler, the world leaders know how to deal with it, rather than fighting against themselves on their own issues. I strongly believe that if the western, civilized countries come together under one roof to crush ISIS, it won't be long that we would say ISIS as a 'thing of the past'.



Saturday, November 21, 2015

If it's true, I support Mr. Putin in this cause


Although for the last few days, this quote has been going viral on Facebook after a reporter tweeted it on her Twitter. The credibility of this exact saying from Mr. Putin is questionable, but if it is true, I am completely supportive of his motive on this instance. Let's send the martyr wannabes to their God!

[collected]

Sunday, November 08, 2015

Muslim extremists in UK

video

Please watch the video fully before making any comments ......

If this is really to be true, then it's not very far when Islamic extremists will take over Europe ......

কোনো কথা হবে না ...... শুধু ভিডিওটি একটিবারের জন্য দেখুন ...... তারপর নিজেই যাচাই করুন

এই যদি প্রকৃতই সত্যি হয় যুক্তরাজ্যের মতো দেশে তবে আর বেশী দিন নেই মুসলিম কট্টরপন্থীদের ইউরোপ দখল করতে ......



[full video]

[Source]

Saturday, October 03, 2015

Muslim Protesters in Sydney, Australia

The followers of religion of peace are protesting in the most peaceful manner possible in one of the peaceful countries of the world for a peaceful cause ...

video

Tuesday, August 04, 2015

'বিয়ে বহির্ভূত যৌনসঙ্গম' ভূমিকম্পের কারণ

পাগলে কি না বলে, ছাগলে কি না খায় ......

নারী 'উপযুক্ত' পোশাক পরিধান না করে 'পুরুষদের বিয়ে বহির্ভূত যৌনসঙ্গমে আকৃষ্ট করায়' ভূমিকম্পের পরিমাণ বেশি হচ্ছে বলে দাবি করেছেন ইরানের মুসলিম ধর্মীয় নেতা আয়াতুল্লাহ কাজেম সেডিঘি। তেহরানে নামাজের মোনাজাতের সময় আয়াতুল্লাহ কাজেম এ বক্তব্য দেন বলে স্থানীয় পত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছে।
ইরানের এ ধর্মীয় নেতা মনে করেন, ঐতিহ্যগত ইরানি পোশাক না পরে এসব নারী 'আধুনিক' পোশাক পরে এবং মেকআপ ব্যবহার করে দেশকে 'গোল্লায়' নিয়ে যাচ্ছে। এর ফলে দেশে ভূমিকম্পের মতো 'দুর্যোগ' সৃষ্টি হচ্ছে।
কাজেম আরও মনে করেন, মানুষের পাপের ফলে দুর্যোগ সৃষ্টি হয়। ইসলামের রীতিনীতি 'না মানা ব্যতিত' এসব দুর্যোগ থেকে বাঁচার উপায় নেই।
উল্লেখ্য, গত তিন দশক ধরে ইরানে নারীদের ইসলামি পোশাক পরা বাধ্যতামূলক। যেকোনও ধর্মের নারীর চুল ও শরীর ঢেকে রাখতে হয়। যারা এ নিয়ম পালন করে না তাদের শাস্তির মুখোমুখি হতে হয়। তবুও ইরানের বিভিন্ন নগরে নারীদের আধুনিক পোশাক পরতে দেখা যায়। এমনকি অনেক নারী মুখে মেকআপও করেন।
ইরানে নিয়মিত ভূমিকম্প হয়। বেশ কয়েকটি ভয়াবহ ভূমিকম্পে দেশটিতে অনেক প্রাণহানি হয়েছে। বিশেষজ্ঞরা সতর্ক করে জানিয়েছেন, ইরানের রাজধানী তেহরানে শক্তিশালী ভূমিকম্প হলে হাজারো মানুষের মৃত্যু হতে পারে। তেহরান প্রদেশে প্রায় ১ কোটি ৪০ লাখ মানুষের বাস। এর মধ্যে প্রায় ৮০ লাখ শহরে বাস করে।

Source

Tuesday, July 28, 2015

বাঙালি মুসলমানের মন!


ঘটনা ১
সেদিন একটা ছবি পোস্ট করলাম। ছবিটি একটা কার্টুন। সেখানে দেখা যাচ্ছে, কিছু লোক একটা মূর্তির পুজো করছে, মুসলমানরা তা নিয়ে হাসাহাসি করছে। পাশের ছবিতে মুসলমানরা কাবাকে সিজদা করছে, মূর্তিকে পুজো করা লোকগুলো একইভাবে হাসাহাসি করছে।
এরপরে মুমিন মুসলমানগণ যেই মন্তব্যগুলো করতে লাগলেন, তা হচ্ছে এমনঃ
- মুসলমানরা কাবার পুজা করে না। সম্মানও করে না। কাবাকে সিজদাও করে না। কাবা এইখানে কোন ফ্যাক্টর না। ঐটা সাধারণ একটা ঘর। মুসলমানরা সিজদা করে আল্লাহর। তারা আসলে কাবাকে সম্মান করে না। সমস্ত প্রশংসাই আসলে আল্লাহকে উদ্দেশ্য করে করে। কোন মূর্তি বা ঘরকে সম্মান জানানো শেরেক। ইসলাম ধর্মে শেরেক সর্বোচ্চ অপরাধ।
উপরের মন্তব্য থেকে অর্থাৎ আমরা সিদ্ধান্ত নিতে পারি, কাবা আসলে কোন ফ্যাক্টর না। ওটাকে কেউ সম্মান করে না। ওটাকে সম্মান জানানো শিরক।

ঘটনা ২
সেদিন একটা ছবি পোস্ট করলাম। ছবিটাতে কাবাকে সাত রঙে রঙিন করা হয়েছে।
এরপরে মুমিন মুসলমানগণ যেই মন্তব্যগুলো করতে লাগলেন, তা হচ্ছে এমনঃ
- মুসলমানরা কাবাকে সম্মান করে, শ্রদ্ধা করে। আপনি কিছুতেই কাবাকে অসম্মান করতে পারেন না। কাবাকে অসম্মান করে মুসলমানদের পবিত্র ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত দিতে পারেন না। কাবাকে শ্রদ্ধা জানাতে হবে। আমরা কাবাকে সিজদা করি। আমাদের অনুভূতিকে সম্মান জানাতে হবে। কাবাকে সম্মান করে কথা বলতে হবে।
অর্থাৎ, মুসলমানরা কাবাকে সিজদা করে এবং সম্মান করে।
উপরের ঘটনা দুটো থেকে আমরা কী বুঝলাম?

- আসিফ মহিউদ্দীন 

সংগৃহীত 

Monday, July 20, 2015

নুসরাত জাহান মায়াপুরধামের রথ যাথায়

দেখে ভালো লাগলো কোলকাতার অভিনেত্রী নুসরাত জাহানকে মায়াপুরধামের ইসকনের রথ যাত্রার উৎসবে

video

[সংগৃহীত] 

Tuesday, December 23, 2014

BEING AN INDIAN ABROAD

Last time when I reached SFO Airport, there has been a very long queue to reach the immigration counters. A security personnel was guiding the passengers to form the queue. The moment she went to other side, a man suddenly came out of the queue and ran towards the front, out of turn. I have noticed the passport in his hand - it was a Pakistani Passport.

A bearded westerner (obviously not an American as this was a queue for non-citizens) made a comment: "He must be an Indian..."

I got angry. I told him: "No, he is a Pakistani"

Saturday, November 22, 2014

বাংলা বারের নামকরণ ইতিহাস

আপনি কি জানেন?

বাংলা সাত বারের নাম ও বাংলা বার মাসের নাম হিন্দু দেবতাদের নাম অনুসারে হয়েছে?
তাহলে দেখুন:
শনিবার- শনি দেবতার নাম অনুসারে
রবিবার- রবি বা সূর্য দেবতার নাম অনুসারে
সোমবার- সোম বা শিব দেবতার নাম অনুসারে
মঙ্গলবার- ধূপ বা দ্বিপের নাম অনুসারে
বুধবার-বৃহস্পতিবার-শুক্রবার- গ্রহের নাম অনুসারে

বৈশাখ- কীর্ত্তন নাম অনুসারে
জৈষ্ঠ্য- অগ্নি দেবতার নাম অনুসারে
আষাঢ়- আষাঢ়ি পূর্ণিমার নাম অনুসারে
শ্রাবণ- ব্রাক্ষ্ মা দেবের নাম হতে
ভাদ্র- শ্রীকৃষ্ণের বাঁশি হতে
আশ্বিন- অশ্বিনী কুমারের নাম হতে
কার্তিক- কার্তিক দেবতার নাম অনুসারে
অগ্রহায়ন- সূর্য দেবতার আবর্তন হতে
পৌষ- পার্বন হতে আগত
মাঘ- তীর্থস্হান হতে আগত
ফাল্গুন- জলন্ত কাঠ বা যজ্ঞ হতে আগত
চৈত্র- বাসন্তী দেবীর শাড়ি হতে আগত

মূলত সূর্যকে কেন্দ্র করে এসব নামের উৎপত্তি । সম্রাট আকবর আরবের সাথে হাত মিলিয়েও এই নামগুলি পরিবর্তন করতে পারেন নাই । আর পারবেও না............. ....

(মূল লেখাঃ নয়ন)
[প্রকাশেঃ শোভন]

Thursday, November 20, 2014

মনে কি পড়ে?


This picture is from "90s. It never gets old in Bangladesh! If you are a human, please say something!
পঞ্চাশের দশকে "কাফেরদের হত্যা কর" কোরান খতম দিয়ে নোয়াখালীতে লক্ষ লক্ষ হিন্দু হত্যা করা হয়েছিল ! নব্বই এর দশকে ঠিক একই ভাবে "কাফেরদের হত্যা কর" কোরান খতম দিয়ে মসজিদ থেকে বেরিয়েই প্রথম দেখা হিন্দু বিমল দাসকে হত্যা করে মোল্লারা ! হাতজোড় করেও ক্ষমা পায়নি বিমল দাস ! খুনির চরিত্র কখনো বদলায় না ! এই ছবিটা দেখে মুসলিম জিহাদী নামক সন্ত্রাসীদের মায়া কান্না হয়না ! কিন্তু ফিলিস্তিনের জিহাদী সন্ত্রাসীদের দেখে তাদের মায়াকান্নার গঙ্গা বয়ে যায় !


(সূত্র

Tuesday, November 18, 2014

ভন্ডামীর শেষ কোথায়?

ছাগুসম্রাট দস্তার রাজদরবার লিখেছে,
//হিন্দুরা প্রায়ই ফাপড় নেয় যে, ফেসবুক
হলো গিয়ে এক ইহুদির তৈরী,
সুতরাং মুসলমানরা তা ব্যবহার
করতে পারে না।
কিন্তু কোন মুসলমান
হিন্দুদেরকে পাল্টা বলে না যে,
তোরা যেই দুর্গাপূজা,
সরস্বতী পূজা আর শিবের
**পূজা করিস, তা করিস বাদশাহ
আকবরের সভাসদ ফতেহউল্লাহ
সিরাজীর বানানো ক্যালেন্ডার
অনুসরণ করে । এখন মুসলমান
হলে যদি ইহুদিদের বানানো ফেসবুক
ব্যবহার করা ঠিক না হয়,
সেক্ষেত্রে তোরা মুসলমানদের
আবিষ্কৃত ক্যালেন্ডার ব্যবহার
করে করা তোদের সমস্ত পূজাটুজা বাদ
দিয়ে দে।//
https://m.facebook.com/story.php?story_fbid=794024160642981&id=100001062146408&refid=17&_ft_
এটা কি কোনো যুক্তির পর্যায়ে পড়ে? এদের কেন ছাগু উপাধী দেওয়া হয়েছে বোঝা যাচ্ছে!
মুসলিমরা নিজেরায় বলছে ইহুদি পণ্য বর্জন কর বর্জন কর আবার সত্যিকারের ইহুদি পণ্য বর্জন করতে গেলে ওরা পিলে চমকে যাচ্ছে! কারণ বাস্তবে ওরা জানে যে বিশ্বে একমাত্র সন্ত্রাসবাদ ছাড়া এই দেড়শো কোটি মুসলমানের আর কোনো ক্ষেত্রেই নূন্যতম অবদান নেই। তবুও ওরা নিজেদের ধর্মগ্রন্থের হিংসাত্বক বাণীগুলো পালন করার প্রয়াস করে যাচ্ছে।
কোরানের ৫/৫১ আয়াতে বলা হয়েছে, "হে ঈমানদার বান্দারা! তোমরা মুসলমান ব্যতীত ইহুদী-খ্রীষ্টানদের তোমাদের বন্ধুরূপে গ্রহণ করো না।মনে রেখ তারা একে অপরের বন্ধু।
আর তোমরা কাফিরদের সন্মান করো না তবে আল্লাহকে অসন্মান করা হবে।তোমরা কাফিরদের কোনোকিছু গ্রহণ করো না তবে তোমরা কাফিরদের দলভুক্ত হবে।মনে রেখ আল্লাহ সর্বশক্তিমান।"
দেখুন কতোটা জঘন্য ও হিংসাত্বক এই কোরানের বাণী! আল্লাহ বলছেন কাফির অর্থাৎ অমুসলিমদের কোনো কিছুই যেন মুসলিমরা গ্রহণ না করে।একজন অমুসলিম যতোই সৎ হোক না কেন তবুও তাকে সন্মান জানাতে কঠোর হুশিয়ারী করেছে তথাকথিত সর্বশক্তিমান আল্লাহ! আল্লাহ নিজেই মুসলমানদের সাহায্য করবেন বলে প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন তবে মুসলমানরা এখন কাফিরদের সাহায্য কামনা করে কেন?
যায় হোক এবারে মূল কথায় আসা যাক! ছাগুদরবারের ছাগুমার্কা যুক্তি হল একজন মুসলমান বাংলা ক্যালেন্ডার আবিষ্কার করেছে তাই হিন্দু পূজা করতে পারবে না!!!!
এখানে বলে রাখি হিন্দুশাস্ত্রে কোথাও কোনো নির্দিষ্ট গোষ্ঠীর প্রতি ঘৃণা বা বিদ্বেষ রাখতে বলা হয়নি। হিন্দুশাস্ত্রের কোথাও বলা হয়নি যে নিজ গোষ্ঠীভুক্তদের ব্যতীত বাকিদের বন্ধুরূপে গ্রহণ করা যাবে না বা তাদের প্রতি সন্মান প্রদর্শন করা যাবে না!
এখন বাংলা ক্যালেন্ডার বা বর্ষপঞ্জির ইতিহাস থেকে ঘুরে আসা যাক!
বঙ্গাব্দের সূচনা হয়েছিল প্রাচীন গৌড়সম্রাট শশাঙ্কের আমলে।তার রাজত্বকালের হিসাবেই বাংলা সন গণনা হয়ে থাকে।তার রাজত্বকালের হিসাবেই এখন ১৪২১ বঙ্গাব্দ চলছে।
তবে দস্যু আকবর কি করেছিলেন?
মহান (!) শাসক হিসাবে খ্যাত আকবর বাংলা সন কে হিজরি সনের সাথে মেলাতে চেয়েছিলেন।তাই তিনি ইরানী ফতুল্লা সিরাজীকে দিয়ে বাংলা সনের হিসাব পরিবর্তন করেন। শুধু তাই নয়, এই মহান সম্রাট (!) বাংলা ১২ মাসের নামগুলি পর্যন্ত পরিবর্তন করে পারসি ভাষায় নাম রাখেন। কারণ বাংলা মাসের নামগুলি হিন্দুশাস্ত্র অনুযায়ী ছিল।যদিও আকবরের এই ঘৃণ পরিবর্তন কেউ মেনে নেয়নি তাই আজও রাজা শশাঙ্কের প্রদত্ত বর্ষপঞ্জিই স্বীকৃত রয়েছে।এছাড়া বাংলা সনের সাত দিনের নামও হিন্দু দেবতাদের নামেই রয়েছে। যেমনঃ শনিদেবের নামানুসারে শনিবার, সূর্যদেবের নামানুসারে রবিবার ইত্যাদি। সুতরাং দেখা যাচ্ছে আকবর কুচক্রী কর্মকান্ড একেবারেই বিফল হয়েছে। বাংলা ক্যালেন্ডারের আবিষ্কারক কখনোই কোনো মুসলমান নয় তাই পূজা বন্ধের প্রশ্নই আসে না। বরং কুরান মতে তোদেরই উচিত বাংলা ত্যাগ করা!

(সূত্র

Thursday, October 16, 2014

সাঁথীয়া কাঁদছে


৭১-এও যেখানে পাক সেনারা আঘাত করেনি, ৪২ বছর পর সেখানে স্যেকুলার সরকারের আমলে আক্রমণ হলো। বয়স্ক এই বৈষ্ণব মহিলা আজও চাইছে তুলসীর তলা আলোময় করে রাখতে। ক'দিন আর পারবে?

Sunday, October 05, 2014

কোরবানীর ঈদ বলে কি কোনো দয়া-মায়া থাকবে না?

ঈদ-উল-আজহায় বাংলাদেশে কোরবানীর পরে এমনতর একটি বাছুর পাওয়া গেছে মাতা গরুর পেটের ভেতর থেকে। গর্ভবতী গোমাতাকে কোরবানী না করলেই কী হতো না?


Thursday, October 02, 2014

Islamic Humanity

  • নারদ কহিলো, ''বাসুদেব ইসলামিক হিউম্যানিটি কাকে বলে?''
  • সিরিয়া, আফগানিস্তান, পাকিস্তানে এক একবার বোমা হামলায় যখন ৫০-১০০ জন করে মানুষ মরবে তখন তুমি ''ফুল-পাখি-চাঁদ'' নিয়ে স্ট্যাটাস দেবে, কিন্তু গাজার সাধারণ মানুষের প্রতিনিধি জঙ্গীগোষ্ঠি হামাস এবং ইজরাইলের মধ্যে যুদ্ধে যখন মানুষ মরবে তখন তুমি যে মানবতার তাড়নায় ''ফুল-পাখি-চাঁদ বিলকুল বাদ'' দিয়ে স্ট্যাটাস দেবে ''You don't need to be muslim to care and pray for Gaza. It's not about religion, it's about humanity.'' এবং SaveGaza SaveHumanity হ্যাসট্যাগের অতিমাত্রিক ব্যাবহার করবে সেই মানবতাকে 'ইসলামিক হিউম্যানিটি' বলে।

(কৃতজ্ঞতা - রিপন মন্ডল)