Showing posts with label Muslim. Show all posts
Showing posts with label Muslim. Show all posts

Monday, April 11, 2016

মেয়েদের জিন্স পড়া থেকেই ভূমিকম্প

মেয়েদের জিন্সের প্যান্ট পড়ার কারণে নাকি আল্লাহর গজব পরে ভূমিকম্প হয়েছে - এমনটাই মন্তব্য পাকিস্তানী এক মওলানা ফজলুর রহমান। তার মতে পাক সরকারের উচিত মিলিটারী নিয়োগ করে মেয়েদের জিন্স পড়া রোখার কাজ কার্যকরী করা। এমনকি মুদ্রাস্ফীতির কারণও নাকি মেয়েদের জিন্স পড়ার ফলে হয়েছে। মেয়েদেরকে বস্তায় পুরে ঘরের মধ্যে রেখে দেওয়ার মাধ্যমে শরীয়া আইন প্রতিষ্ঠা হবে আর এর ফলেই তালিবানী ভাইয়েরা আক্রমণ করা থেকে বিরত থাকবে।

এ কোনো কৌতুক পোস্ট নয়। বাস্তবেই এমনটি ঘটেছে। নিজ দায়িত্বে পড়ে দেখবেন বিস্তারিত। কৌতুক আবিষ্কারের জন্য এখন আর বানিয়ে কিছু বলা লাগে না। খবরের পাতাতেই প্রতিনিয়ত কিছু চরিত্র বাস্তব জীবনের কিছু কৌতুক নিয়ে হাজির হয়।

Monday, April 04, 2016

Yet we call India a communal country

Both temple (mandir) & mosque (masjid) co-exist side-by-side in a town of Pune, India with utmost harmony & peace between the followers of both Hindu & Muslim faiths. Yet our general perception is that India is the most communal country of the world, or at least some consider it to be so.


[Source: NDTV]

Monday, March 21, 2016

Does Islam profess to not respect one's motherland?

Recently, Hyderabad Islamic seminary Jamia Nizamia issued a 'fatwa' that Muslims should not chant 'Bharat mata ki jai' slogan. Their reasoning is that the birth land cannot be compared to mother. Only humans give birth to humans, not land. Hence, this kind of slogan is forbidden according to Islam. They further added that even though Muslims love their country, but they cannot chant such slogans to express their patriotism.

Now my question is what is superior to a human being? Is his religious identity or country of birth? If religious identity prevails over country of birth, then such 'fatwa' gets clean pass. But if country of birth should overhaul religious identity, then are these 'fatwa' legitimate? Most country's constitutions protect the rights of its citizens to practice their religious beliefs, or at least in the modern-day's democratic societies. But when one of the largest religion of the world tells its followers that country of birth is less prioritized than religious identity, then what message does it give to others about that religion? Does it not show that the followers of that religion would prefer to die for their religion than their country of birth? In the time of need, would those followers of that religion be willing to shed bloods to save their country from foreign invasion? Would they care if others try to buy their country, buy its people, buy its valuables, buy its richness? Would they feel any sympathy when invaders destroy national emblems, national symbols, national statues etc.? Would they jump in to save those from demolition at the time of necessity? What does that show to a neutral or atheist who does not believe in any God(s), that what (land) has sustained one (people) for so long has no value when it comes to saving its (land) honor?

Sunday, January 31, 2016

ইউরোপেও ঢুকে গেছে আরবের ধর্ষণ খেলা "তাহারুশ"

শরণার্থীর নাম করে ইউরোপে ঢুকেছে নানান দেশের আরব থেকে আগত তরুণ, যুবক, পরিবার ইত্যাদি। এদের সাথে সাথে ঢুকেছে আরবের আচার-আচরণ, সংস্কৃতি। কিছু মাস আগে ইংরেজী বর্ষবরণের রাতে এমন ভাবেই আরবের কিছু তরুণ জার্মানীর বিভিন্ন শহরে 'তাহারুশ' নামক প্রথার চর্চা করে। এই প্রথা অনুযায়ী কোনো এক মেয়েকে কিছু তরুণ চারপাশ থেকে ঘিরে ধরে তার সাথে ধর্ষণ খেলায় মত্ত হবে। মেয়েটির সাথে দৈহিক ও মানসিকভাবে অত্যাচার চালানো হবে। কাপড়-চোপড় ছিঁড়ে ফেলা হবে সময়ে সময়ে। কিছু কিছু তরুণ এরই মাঝে এমন ভাব করবে যেন ওরা মেয়েটিকে বাঁচাতে চাইছে। কিন্তু ওরা আসলে তাহারুশেরই অংশ। এমন ঘটনা শুরু জার্মানীর বার্লিন, হ্যামবার্গ, ফ্র্যাংকফুর্ট, ডুসেলডর্ফ বা স্টুটগার্টেই নয়, অস্ট্রিয়া, সুইজারল্যান্ডের মতো দেশেও এমনটি ঘটেছে।

উদারপন্থী সমাজের ব্যক্তিবর্গ এ নিয়ে কি বলবেন! মুক্তহস্তে স্বাগত জানান এসব সংস্কৃতি, প্রথা, তরুণ, যুবক। পরে আবার অনুতাপ বোধ করবেন না। যেমন কর্ম, তেমনই ফল!

(বিস্তারিত)

Monday, January 25, 2016

Is this the future of Britain?

Bury Park in Luton is an area notorious for Islamic extremists, ISIS fanatics, hate preachers and terrorists.

It is perhaps the worst hotspot in the whole country for Islamists.


In response to the recent imprisonment of an ISIS supporter (who is from Bury Park) Britain First carried out a "Christian Patrol" along the High Street and encountered ferocious hostility from local Muslims.


What followed was a shocking look into the Islamisation of our beloved country.
Our activists were attacked and pelted with eggs. Verbal abuse was rife. Muslims claimed they have "taken over" Luton and the UK. This is the future of Britain.



[Courtesy: Britain's First]

Sunday, January 03, 2016

শান্তির ধর্মের শান্তির নমুনা


আমরা সচরাচর শুনে আসি ইসলাম মানেই শান্তির ধর্ম। ঐতিহাসিকভাবে এই ধর্মের মানুষ বিশ্বের চারপাশে ছড়িয়েছে। শুধু বসত বাড়ি করেই এরা অভিবাসী হয়নি, তার সাথে সাথে এদের ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান নির্মাণে অন্য ধর্মের উপাসনালয়কে ধ্বংস করতেও এদের বাধেনি। অথচ আজকের শিশু-কিশোরদের শিক্ষা দেওয়া হয়, মুঘলদের মতো সম্রাটের যখন ভারতবর্ষ শাসন করেছে, অনেক শান্তিতেই নাকি ছিলো তৎকালীন হিন্দু ধর্মাবলম্বীরা। এই কি তার নমুনা? 

আজকের ভারতের বেশীরভাগ মন্দিরগুলোর আশে পাশে কিংবা মন্দিরের সাথে লাগিয়েই, অথবা মন্দির ভেঙ্গে সেই জায়গাতেই মসজিদ দেখা যায়। উদারপন্থীদের কথা অনুযায়ী মুসলিমরা যদি শান্তিপ্রিয়ই হতো, তাহলে কেন অন্যের ধর্মে আঘাত করে নিজের ধর্ম পালন করে? ওদের কোনো মসজিদ ভেঙ্গে যদি কেউ মন্দির, গীর্জা নির্মাণ করে তখন তাদের মনে কতটা আঘাত পৌঁছবে? আমাদের সুশীল সমাজ কি কখনো এটি ভেবে দেখে? অন্যের উপর কিছু করার আগে কখনো কি ভেবে দেখে ওরা ওদের নিজেদের ওপর এমনটি হলে ওদের কেমন লাগতো? 

উল্লেখ্য, কেউ কিন্তু এখানে মসজিদ নির্মাণে বাধা দিচ্ছে না। পাঠক লক্ষ্য করবেন উপরোক্ত স্থাণগুলোতে মন্দির ভেঙ্গে কিংবা মন্দিরের খুব সন্নিকটেই মসজিদ নির্মাণ হয়েছে। এটি কতটা সুশোভনের মতো আচরণ? ধর্মীয় স্বাধীনতার এই কি ফল? এটি কতটা শান্তিপ্রিয়? এতে শান্তিতে ব্যাঘাত ঘটাটা কি অস্বাভাবিক? কোনো উগ্রপন্থী কি তৈরি হবে না এমনতর আচরণে? করবে না ধ্বংসযজ্ঞ সেসব মসজিদে? তৈরি হবে না ঘৃণা-বিদ্বেষ আর চরম শত্রুতার? তখন কেউ কি ভেবে দেখে এর পূর্বের কারণটি? 

পাঠক যাচাই করবেন। 


(সংগৃহীত) 

Monday, December 14, 2015

Is this a fair justice system?

We usually talk about justice system being blindfolded & it does not matter who the culprit is, the accused when proven guilty will get the punishment. Does that happen all the time in our society? Do normal people get treated the same way as a celebrity, professional, businessman, politician?

Not to critique on the verdict given by the court in India recently, but it was quite obvious that if you come from a wealthy, big-name, famous family, Bollywood or something, then you won't get the punishment you deserve. Be it a Khan or Kapoor! Even though the liberal-minded Indians still believe Muslims in India are not treated well in a Hindu-majority country, Salman Khan's recent verdict on the famous 2002 hit-and-run case set him free by the 'fair' legal system.

Who gets the punishment then? That individual who was met with sudden death. That family who lost a loved one in the family. That wife who lost her husband when she needed him most to maintain the family with kids. Can we really accept this as 'fair'?


[Source: Lehren TV]

Monday, December 07, 2015

GOP figures: as bold as they can be...

 
I agree with the stand that Congressman Joe Walsh has taken. When you believe in something, you cannot sacrifice that belief to please someone else. Then that means you don't actually have the initial belief that you have been saying previously. If Americans who believe in free speech, freedom of religion, freedom of expression, then Joe Walsh has the right to say these things to express his views.

Along with Congressman, current GOP presidential candidate, Senator Ted Cruz, vowed to kill extremist, jihadist Islamists if he's elected president during a new campaign ad.

Another hopeful GOP presidential candidate, former Governor George Pataki said during a tweet that he would declare 'war on radical Islam' if he were a president now.

It is quite clear from the GOP that what this Obama administration is doing, in terms of tackling radical Islam issue is nothing but defensive in its measures. Though you may not agree with Republicans all the time, but this is something that all sane Americans must agree on. We need a leader who would stand up against extremist Islamists to combat them till there is no more of them.

[source]

Saturday, December 05, 2015

'Intolerant' India!

In the last few weeks, the talk of the town in Indian media has been 'intolerance' in India from the majority-Hindus against minority-Muslims. Big name celebrities have become involved in this debate. The main talking point was when Aamir Khan told the media during an interaction that his wife (Kiran Rao) asked him at one point whether or not they should move out of India for the betterment of their son over 'intolerance'.

Singer Abhijit Bhattacharya summed it up pretty well in an open letter written to actor Aamir Khan.
Janab Aamir Khan, 
 
I am an ordinary Indian citizen and an avid movie-goer. You are a superstar in a country where the majority of movie-goers are Hindu. For years, we have spent our money to buy tickets for your movies. It is our money that has made you what you are today. 
 
We clapped when as ACP Ajay Rathore, you destroyed a sweet-talking Gulfam Khan in 'Sarfarosh'. We cheered when as Bhuvan, you played the winning shot in 'Lagaan'. We cried when as a sensitive art teacher, you made us root for Ishaan Awasthi in 'Taarey Zamin Par'.

A couple of generations before you, an Yusouf Khan had to become a Dilip Kumar to be accepted and a Mahajabeen Bano had to reinvent herself as Meena Kumari. Not you though. Neither you, nor your contemporaries had to hide your identity to be successful. 
 
You became a star in a new India. An India, where only your first name mattered. We loved you because you were Aamir, a brilliant actor. Neither your last name mattered to us, nor your faith. 
 
But yesterday, you proved to us that for you and your wife at least , it is your last name that matters more than anything else. 
 
Your name is Khan and you Sir, are a hypocrite. 
 
You did not scream intolerance when your city burned at the hands of some of your co-religionists. Your wife did not feel insecure when a mammoth crowd of some of your co-religionists attended the funeral of a hanged terrorist. You were silent even when a mob from Reza Academy kicked and destroyed a national memorial and manhandled female cops. 
 
But now, suddenly, your wife feels insecure in India and wants you to move out. 
 
If I WERE indeed intolerant, I would suggest you move to the Kingdom of Saudi Arabia, the safest place on earth, where Begum Kiran Rao can feel absolutely secure inside her abaya and your little son can grow up watching public executions in a Riyadh square. 
 
But I am not going to do that. As a tolerant Indian, the only thing I can and WILL do is to make sure that not even one rupee of my hard-earned money goes towards buying tickets for your movies. Thanks for the disappointments. 
 
Regards, 
An Indian.
[source]

Saturday, November 21, 2015

If it's true, I support Mr. Putin in this cause


Although for the last few days, this quote has been going viral on Facebook after a reporter tweeted it on her Twitter. The credibility of this exact saying from Mr. Putin is questionable, but if it is true, I am completely supportive of his motive on this instance. Let's send the martyr wannabes to their God!

[collected]

Sunday, November 08, 2015

Muslim extremists in UK


Please watch the video fully before making any comments ......

If this is really to be true, then it's not very far when Islamic extremists will take over Europe ......

কোনো কথা হবে না ...... শুধু ভিডিওটি একটিবারের জন্য দেখুন ...... তারপর নিজেই যাচাই করুন

এই যদি প্রকৃতই সত্যি হয় যুক্তরাজ্যের মতো দেশে তবে আর বেশী দিন নেই মুসলিম কট্টরপন্থীদের ইউরোপ দখল করতে ......



[full video]

[Source]

Saturday, October 03, 2015

Muslim Protesters in Sydney, Australia

The followers of religion of peace are protesting in the most peaceful manner possible in one of the peaceful countries of the world for a peaceful cause ...


Saturday, August 08, 2015

বাংলাদেশী মুসলিমরাও ভারতকেই আশ্রয়স্থল হিসেবে বেছে নেয়


সুব্রত শুভ দাদার একটা লেখা পড়ে জানলাম ভারতেও আজকাল বাংলাদেশী মুসলিমরা আশ্রয় নিচ্ছে। পশ্চিমবঙ্গ ও তার নিকটবর্তী প্রদেশগুলোতে বাংলাদেশে থেকে আগত নিষ্পেষিত হিন্দুরাই নন, মুসলিমরাও ভালো জীবনযাপনের উদ্দেশ্যে বসবাসে উদ্যত হচ্ছেন। বলা বাহুল্য, গত বছর নির্বাচনী প্রচারণার সময় ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী যখন বলেছিলেন ভারতে বাংলাদেশে থেকে আগত অবৈধ অনুপ্রবেশকারীদের তিনি আশ্রয় দেবেন না। বাংলাদেশ থেকে শরণার্থী হিসেবে যারা আশ্রয় চাইবে (মূলত হিন্দুদেরই) তাদের বসবাসের অধিকার দিতে তার দলের আপত্তি নেই।

গত বছর কলকাতায় এক বাঙালি ট্যাক্সি ড্রাইভারের সাথে পরিচয় হয়। নাম সেলিম। বাড়ি চট্টগ্রাম। তার বাবা-মা ১৯৯০ দিকে ভারত চলে যায়। তিন ভাইয়ের মধ্যে সে ছোট। স্থানীয়রা জানে সে ভারতীয়। যদি ফাঁস হয় বাংলাদেশ থেকে এসেছে তাহলে ভোটার কার্ড ও পাসপোর্ট সহজে মেলে না। যাই হোক তিনি সবকিছুই পেয়েছেন। প্রতিবছর বাংলাদেশে ঘুরতে আসেন। এই কথাগুলো এই জন্য বললাম বাংলাদেশের ছিটমহলের বাসিন্দারা ধর্ম বর্ণ নির্বিশেষে সবাই ভারতের নাগরিক হতে মনস্থির করছে। কেউ বাংলাদেশে আসতে চাচ্ছে না। শুধু হিন্দুরা নয় মুসলিমরাও বাংলাদেশে আসতে চাচ্ছে না। ৯৩% মুসলিম দেশে তারা নিজেরাও আসতে রাজি হচ্ছে না। গত নির্বাচনের আগে মোদীর একটা কথা বারবার বলছিল; ভারতে বাংলাদেশ থেকে আসা শরণার্থীদের আশ্রয় দেওয়া হবে অনুপ্রবেশকারীদের নয়। এখানে মোদির দল অনুপ্রবেশকারী বলতে বাংলাদেশের মুসলিমদের বোঝালেন।

বাংলাদেশে বর্তমানে ৮% মতন ভিন্ন ধর্মালম্বী আছে। চার দিকে যেভাবে ভিন্নধর্মালম্বীদের জায়গা দখল হচ্ছে তাতে দশ বছরের মধ্যে ১০০ মুসলিম দেশে আমরা পরিণত করতে পারব বলে আশা রাখি। তবে মজার বিষয় এখানেই যে, এই দেশ থেকে শুধু ভিন্নধর্মালম্বীরা না মুসলিমরাও চলে যায় আর অনেকে সুযোগ পেলেও আসে না।

সূত্র

Tuesday, August 04, 2015

'বিয়ে বহির্ভূত যৌনসঙ্গম' ভূমিকম্পের কারণ

পাগলে কি না বলে, ছাগলে কি না খায় ......

নারী 'উপযুক্ত' পোশাক পরিধান না করে 'পুরুষদের বিয়ে বহির্ভূত যৌনসঙ্গমে আকৃষ্ট করায়' ভূমিকম্পের পরিমাণ বেশি হচ্ছে বলে দাবি করেছেন ইরানের মুসলিম ধর্মীয় নেতা আয়াতুল্লাহ কাজেম সেডিঘি। তেহরানে নামাজের মোনাজাতের সময় আয়াতুল্লাহ কাজেম এ বক্তব্য দেন বলে স্থানীয় পত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছে।
ইরানের এ ধর্মীয় নেতা মনে করেন, ঐতিহ্যগত ইরানি পোশাক না পরে এসব নারী 'আধুনিক' পোশাক পরে এবং মেকআপ ব্যবহার করে দেশকে 'গোল্লায়' নিয়ে যাচ্ছে। এর ফলে দেশে ভূমিকম্পের মতো 'দুর্যোগ' সৃষ্টি হচ্ছে।
কাজেম আরও মনে করেন, মানুষের পাপের ফলে দুর্যোগ সৃষ্টি হয়। ইসলামের রীতিনীতি 'না মানা ব্যতিত' এসব দুর্যোগ থেকে বাঁচার উপায় নেই।
উল্লেখ্য, গত তিন দশক ধরে ইরানে নারীদের ইসলামি পোশাক পরা বাধ্যতামূলক। যেকোনও ধর্মের নারীর চুল ও শরীর ঢেকে রাখতে হয়। যারা এ নিয়ম পালন করে না তাদের শাস্তির মুখোমুখি হতে হয়। তবুও ইরানের বিভিন্ন নগরে নারীদের আধুনিক পোশাক পরতে দেখা যায়। এমনকি অনেক নারী মুখে মেকআপও করেন।
ইরানে নিয়মিত ভূমিকম্প হয়। বেশ কয়েকটি ভয়াবহ ভূমিকম্পে দেশটিতে অনেক প্রাণহানি হয়েছে। বিশেষজ্ঞরা সতর্ক করে জানিয়েছেন, ইরানের রাজধানী তেহরানে শক্তিশালী ভূমিকম্প হলে হাজারো মানুষের মৃত্যু হতে পারে। তেহরান প্রদেশে প্রায় ১ কোটি ৪০ লাখ মানুষের বাস। এর মধ্যে প্রায় ৮০ লাখ শহরে বাস করে।

Source

Tuesday, July 28, 2015

বাঙালি মুসলমানের মন!


ঘটনা ১
সেদিন একটা ছবি পোস্ট করলাম। ছবিটি একটা কার্টুন। সেখানে দেখা যাচ্ছে, কিছু লোক একটা মূর্তির পুজো করছে, মুসলমানরা তা নিয়ে হাসাহাসি করছে। পাশের ছবিতে মুসলমানরা কাবাকে সিজদা করছে, মূর্তিকে পুজো করা লোকগুলো একইভাবে হাসাহাসি করছে।
এরপরে মুমিন মুসলমানগণ যেই মন্তব্যগুলো করতে লাগলেন, তা হচ্ছে এমনঃ
- মুসলমানরা কাবার পুজা করে না। সম্মানও করে না। কাবাকে সিজদাও করে না। কাবা এইখানে কোন ফ্যাক্টর না। ঐটা সাধারণ একটা ঘর। মুসলমানরা সিজদা করে আল্লাহর। তারা আসলে কাবাকে সম্মান করে না। সমস্ত প্রশংসাই আসলে আল্লাহকে উদ্দেশ্য করে করে। কোন মূর্তি বা ঘরকে সম্মান জানানো শেরেক। ইসলাম ধর্মে শেরেক সর্বোচ্চ অপরাধ।
উপরের মন্তব্য থেকে অর্থাৎ আমরা সিদ্ধান্ত নিতে পারি, কাবা আসলে কোন ফ্যাক্টর না। ওটাকে কেউ সম্মান করে না। ওটাকে সম্মান জানানো শিরক।

ঘটনা ২
সেদিন একটা ছবি পোস্ট করলাম। ছবিটাতে কাবাকে সাত রঙে রঙিন করা হয়েছে।
এরপরে মুমিন মুসলমানগণ যেই মন্তব্যগুলো করতে লাগলেন, তা হচ্ছে এমনঃ
- মুসলমানরা কাবাকে সম্মান করে, শ্রদ্ধা করে। আপনি কিছুতেই কাবাকে অসম্মান করতে পারেন না। কাবাকে অসম্মান করে মুসলমানদের পবিত্র ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত দিতে পারেন না। কাবাকে শ্রদ্ধা জানাতে হবে। আমরা কাবাকে সিজদা করি। আমাদের অনুভূতিকে সম্মান জানাতে হবে। কাবাকে সম্মান করে কথা বলতে হবে।
অর্থাৎ, মুসলমানরা কাবাকে সিজদা করে এবং সম্মান করে।
উপরের ঘটনা দুটো থেকে আমরা কী বুঝলাম?

- আসিফ মহিউদ্দীন 

সংগৃহীত 

Monday, July 20, 2015

নুসরাত জাহান মায়াপুরধামের রথ যাথায়

দেখে ভালো লাগলো কোলকাতার অভিনেত্রী নুসরাত জাহানকে মায়াপুরধামের ইসকনের রথ যাত্রার উৎসবে


[সংগৃহীত] 

Wednesday, July 08, 2015

কেন বলি বাংলাদেশে হিন্দুদের আর স্থাণ নেই...

সম্প্রতি বাংলাদেশ-ভারত ক্রিকেট সিরিজে বাংলাদেশের নতুন প্রজন্মের কিছু ব্যাটসম্যান (সৌম্য সরকার, লিটন দাস) যখন ভারতের বোলারদের তুলোধনা করছিলো চার-ছয় মেরে, তখন বাংলাদেশেরই কিছু সমর্থক এমনতর মন্তব্য করছিলো...

কেন যে বলি বাংলাদেশে আর হিন্দুদের জায়গা নেই, এবার বুঝছেন তো পাঠক? যেখানে VIP হিন্দু star-দেরই এমনতর অবস্থার শিকার হতে হয়, তখন সাধারণ জনগণের কথা নাহয় নাইবা বললাম।


[সংগৃহীত]