Showing posts with label bangla. Show all posts
Showing posts with label bangla. Show all posts

Saturday, July 09, 2011

আমি কেন হিন্দু?

চার বছর আগে, আমি নিউ ইয়র্কের JFK এয়ারপোর্ট থেকে স্যান ফ্রান্সিস্কো যাচ্ছিলাম ক্যালিফোর্নিয়ায় একটা মিটিংয়ে। একজন আমেরিকান মহিলা আমার ডানপাশে বসেছিলেন জানালার সিটের কাছে। লম্বা ভ্রমণ ছিল - প্রায় সাত ঘন্টার মত। আমি খুব অবাক হয়ে যাই মহিলাকে বাইবেল পড়তে দেখে, যা সচরাচর আমেরিকান মহিলাদের মাঝে দেখা বিরল।
কিছুক্ষণ পর আমাদের মধ্যে কথাবার্তা শুরু হলো। আমি তাকে বললাম আমি ভারত থেকে আগত। ভদ্রমহিলা আমাকে জিজ্ঞেস করল, "আপনার বিশ্বাস কি?" "মানে?" আমি না বুঝতে পেরে প্রশ্ন করলাম।
"মানে আমি জানতে চাচ্ছি আপনার ধর্ম কি? আপনি কি খ্রীষ্টান নাকি মুসলিম?"
"না," আমি বললাম, "আমি খ্রীষ্টানও নই, মুসলিমও নই।"
ভদ্রমহিলা আমার দিকে অতি বিস্ময়ের সাথে তাকাল।
"তাহলে আপনি কি?"
"আমি একজন হিন্দু" আমি বললাম।
ভদ্রমহিলা আমার দিকে এমনভাবে তাকাল যেন তিনি কোন খাঁচায় আটকানো কোনো জন্তু দেখছেন। উনি মনে হলো যেন আমার কথা বুঝতে পারছেন না। (একজন সাধারণ ইউরোপীয়ান বা আমেরিকান খ্রীষ্টধর্ম কিংবা ইসলাম সম্পর্কে জানেন। কিন্তু হিন্দুধর্ম!)
আমি ভদ্রমহিলাকে বোঝালাম - আমার এক হিন্দু বাবা ও হিন্দু মায়ের ঘরে জন্ম। তাই জন্মসূত্রে আমি একজন হিন্দু।
"তাহলে কে আপনাদের নবী/প্রবক্তা?" ভদ্রমহিলা আমাকে জিজ্ঞেস করলেন।
"আমাদের কোনো নবী/প্রবক্তা নেই।" আমি উত্তরে বললাম।
"আপনাদের ধর্মগ্রন্থ কি?" উনি প্রশ্ন করলেন।
"আমাদের কোনো নির্দিষ্ট একটি ধর্মগ্রন্থ নেই। বরং আমাদের শত শত, হাজার হাজার ধর্মীয়, দার্শনিক গ্রন্থ আছে।" আমি উত্তরে বললাম।
"ওহ প্লীজ, অন্তত এতটুকু তো বলবেন আপনাদের একজন ঈশ্বর আছে। নাকি তাও নেই? যেমন আমাদের আছে গড্‌, মুসলিমদের আল্লাহ।"
আমি কিছুক্ষণ ভাবলাম। মুসলিম ও খ্রীষ্টানরা এক ঈশ্বরে (পুরুষ) বিশ্বাস করে যিনি বিশ্ব তৈরি করেছেন। এসব ধর্ম মনুষ্যকেন্দ্রিক। এই ভদ্রমহিলার চিন্তা-ভাবনাও একইরকম। উনার কাছে কিংবা যেকোনো হিন্দুধর্ম সম্পর্কে অজ্ঞাত মানুষের কাছে ধারণাটুকু এমনতর যে একটি ধর্মের জন্য এক নবী/প্রবক্তা, একটি ধর্মগ্রন্থ, এক ঈশ্বর থাকতে লাগবে। এদের চিন্তা-ভাবনা এত সঙ্কীর্ণ ও এমনভাবে তৈরি যে ইহা ভিন্ন অন্য কিছু এদের কাছে গ্রহণযোগ্যই নয়। আমি বুঝতে পারলাম উনার ধর্ম সম্বন্ধে চিন্তা-ভাবনা।
আপনি হিন্দুধর্মকে বিশ্বের বর্তমান বড় বড় ধর্মগুলোর সাথে তুলনা করতে পারবেন না যেখানে আপনাকে এক ঈশ্বরেই বিশ্বাস করতে হবে। আমি ভদ্রমহিলাকে বোঝালাম, "আপনি এক ঈশ্বরে বিশ্বাস করে হিন্দু হতে পারেন। আবার বহু ঈশ্বরে বিশ্বাস করেও হিন্দু হতে পারেন। এমনকি আপনি কোনো ঈশ্বরে বিশ্বাস না করেও হিন্দু হতে পারেন, যেমনভাবে একজন নাস্তিক আসলে হিন্দুই।"
কথাগুলো উনার কাছে পাগলের মতো শোনাল। উনি এমন অবিচ্ছিন্ন রকমের ধর্ম কল্পনাও করতে পারেননি যা কিনা হাজার বছরেরও বেশি সময় ধরে চলে আসছে, টিকে আছে নানা প্রতিকূলতা মোকাবেলা করে।
"আমি বুঝছি না। কিন্তু বিষয়টি খুব আকর্ষণীয় লাগছে। আপনি কি ধার্মিক?" ভদ্রমহিলা প্রশ্ন করলেন।
'আমি বুঝে উঠতে পারছিলাম না উনাকে কি উত্তর দেব।'
আমি বললাম, "আমি প্রতিনিয়ত মন্দিরে যাই না। আমি নিয়মিত ধর্মীয় আচার-নিষ্ঠা পালন করি না। ছোটবেলায় ধর্মীয় উৎসবসমূহে অংশ নিতাম। সেসময় ওসব খুব উপভোগ করতাম।"
"উপভোগ করতেন? আপনি কি ঈশ্বরকে ভয় পান না?"
"ঈশ্বর তো বন্ধুর মতো। না - আমি ঈশ্বরকে ভয় পাই না। কেউ আমার উপর কখনো চাপ প্রয়োগ করেনি এসব নিয়ম-নিষ্ঠা পালন করার জন্য।"
উনি কিছুক্ষণ ভাবলেন, তারপর জিজ্ঞেস করলেন, "আপনি কি কখনো ভেবেছেন অন্য কোনো ধর্মে ধর্মান্তরিত হবার বিষয়ে?"
"কেন ভাববো? যদি আমি হিন্দুধর্মের কিছু আচার-নিষ্ঠাকে চ্যালেঞ্জও করি তবুও কেউ আমাকে অন্য ধর্মে ধর্মান্তরিত করতে পারবে না। কারণ একজন হিন্দু হিসেবে আমি ব্যক্তিগতভাবে ও বস্তুনিষ্ঠভাবে চিন্তা-ভাবনা করতে পারি, কোনো প্রকার শর্তাবলী ছাড়া। আমি একজন হিন্দু হিসেবে আছি জোর করে না, বরং নিজ পছন্দে।"
আমি উনাকে বোঝালাম, হিন্দুধর্ম আসলে কোনো ধর্ম নয়, বরং এক সেট বিশ্বাস ও রীতি-নীতি। এ কোনো এমন ধর্ম নয় যা খ্রীষ্টধর্ম বা ইসলামের মতো কোনো একব্যক্তির দ্বারা প্রচারিত অথবা এর কোনো সংগঠিত সংঘ বা সমিতি নেই যেমন খ্রীষ্টানদের আছে চার্চ বা অর্ডার। হিন্দুধর্মে কোনো সংস্থাপণ বা কর্তৃত্বধারী গোষ্ঠী নেই অন্য ধর্মগুলোর মতো।"
"তাহলে আপনি কি ঈশ্বরে বিশ্বাস করেন না?" মনে হলো যেন ভদ্রমহিলা সব সাদা-কালোতে চান।
"আমি তো তা বলিনি। আমি কোনো ঈশ্বরিক শক্তিকে অস্বীকার করছি না। আমাদের বেদসমূহ, উপনিষদ, গীতা বলেছে - ঈশ্বর আছেনও আবার নেইও। আমরা কিন্তু সেই সর্বশক্তিমান নির্বস্তুক পরব্রহ্ম যিনি এই বিশ্বব্রহ্মান্ডের তৈরিকারক তার প্রার্থনা ঠিকই করি।"
"আপনারা কেন একজন ব্যক্তির ন্যায় ঈশ্বরের উপাসনা করেন না?"
"আমাদের ভাবনাধারা হলো একটা ধারণার মতো, যা কিনা নির্বস্তুক। আমাদের ঈশ্বর সম্পর্কে ভাবনা একজন ব্যক্তিগত ঈশ্বরের মতো না যেমনটি আপনাদের। এ তো আমাদের কাছে ভাবনারও অতীত যে আপনারা একজন ব্যক্তির মতো ঈশ্বরের আরাধনা করেন যিনি কিনা এমনতর যে, মেঘের মাঝে লুকায়িত যেখান থেকে উনি আমাদের যুক্তিহীন গল্প শুনিয়ে যাচ্ছেন উনার পছন্দমত বার্তাবাহকদের দ্বারা এমনভাবে যেন আমাদের উনাকে উপাসনা করতেই হবে; না করলে শাস্তি। আমার মনে হয় না ঈশ্বর কোনো স্বৈরশাসক বা সম্রাট যিনি চান আমরা উনার সম্মান করি ও ভয় করি। আমি ভদ্রমহিলাকে বললাম, "এসব চিন্তা-ভাবনা শুধুমাত্র অল্প শিক্ষিত মানুষজনদের অলীক কল্পনা বা মিথ্যা বিশ্বাস। এরকম সাধারণ নৃতাত্ত্বিক ধর্মীয় ব্যবস্থা হিন্দুধর্মের লোকদের মধ্যেও আছে যারা ঈশ্বরকে একজন ব্যক্তির ন্যায় বিশ্বাস করে।"
হিন্দুধর্মের মধ্যেও এমন কুসংস্কার আছে। হিন্দুধর্মের দার্শনিক দিকগুলো এসব কুসংস্কারকে ভুল প্রমাণ করে। "তাও ভালো আপনি স্বীকার করলেন আপনি ঈশ্বরে বিশ্বাস করেন। তা, আপনি তো বললেন আপনি প্রার্থনা করেন। আপনাদের প্রার্থনা কি তাহলে?" ভদ্রমহিলা জিজ্ঞেস করলেন। "লোকো সমস্ত সুখিনো ভবন্তু। ওঁম শান্তি শান্তি শান্তি।"
"এর অর্থ কি?"
"জগতের সকল কিছু সুখে থাকুক। শান্তি! শান্তি! শান্তি!"
"হুমম...আকর্ষণীয়। আমি আরো জানতে চাই এই ধর্ম সম্পর্কে। এ এমন গণতান্ত্রিক, এমন স্বাধীন, উদারপন্থী।" উনার আগ্রহ বেড়ে গেল।
"হিন্দুধর্ম হলো একজন ব্যক্তির ধর্ম, ব্যক্তির জন্য ধর্ম, ব্যক্তির দ্বারা ধর্ম যার শিকড় রয়েছে বেদ ও গীতার মতো ধর্মগ্রন্থে। পুরো বিষয়টা হলো একজন ব্যক্তির ঈশ্বরের কাছে পৌঁছানো তার নিজস্ব ব্যক্তিগত মাধ্যমে, তার নিজস্ব মানসিকতা ও অন্তর্নিহিত বিবর্তনের মাধ্যমে - ইহা এমনি সহজ।"
"কিভাবে তাহলে একজন ব্যক্তি হিন্দুধর্মে ধর্মান্তরিত হয়?"
"কেউ আপনাকে হিন্দুধর্মে ধর্মান্তরিত করতে পারবে না। এ কোনো ধর্ম নয়। বরং এক জীবনপ্রণালী, জীবনে চলার রীতি-নীতি সম্বলিত ব্যবস্থা। সকল কিছুই হিন্দুধর্মে গ্রহণযোগ্য কারণ কোনো একক কর্তৃত্বধারী বা সংগঠন নেই যা এর ব্যবস্থাকে বাতিল ঘোষণা করবে বা এর বিরুদ্ধে প্রশ্ন করবে।"
"যেমন ধরুন একজন প্রকৃত অন্বেষণকারীর কাছে বাইবেল গাইডলাইনের মতো যখন ইহা বলে 'ঈশ্বরের রাজ্য আপনার মধ্যেই।'" আমি উনাকে মনে করিয়ে দিলাম যীশুর শিক্ষাসমূহ যাতে উনি আমাদের সকলকে ভালোবাসতে বলে গেছেন। এখানেই আপনি পাবেন জীবনের অর্থ। সৃষ্টির সকল কিছুকে ভালোবাসাই হলো পরম সত্য। "ঈশ্বর বিরাজিত সকল কিছুতেই। কিছুই ঈশ্বর থেকে দূরে নয় কারণ ঈশ্বর সকল কিছুতেই। সকল জীব ও জড়কে ঈশ্বর জ্ঞানে সম্মান করা উচিত আমাদের। ইহাই হিন্দুধর্ম আমাদের শিক্ষা দেয়। এই কারণেই একে বলে সনাতন ধর্ম, চিরন্তন বিশ্বাস। এ এক ধর্ম নামক রীতি দ্বারা চালিত যার অর্থ জীবন চলার প্রথা। হিন্দুধর্মের সবচেয়ে বড় বিষয় হচ্ছে নিজের প্রতি সৎ থাকা। এর কোনো একক ধ্যান-ধারণা নেই। এটি সকল কিছুর কাছেই উন্মুক্ত। হিন্দুরা এক ঈশ্বরে বিশ্বাস করে যিনি আবার নানা রূপধারণ করতে পারেন। হিন্দুদের কাছে ঈশ্বর সময়হীন ও আকারহীন। বর্তমান হিন্দুদের আদি পূর্বপুরুষগণ বিশ্বাস করতেন চিরন্তন সত্য ও মহাজাগতিক নিয়ম-কানুনে। এইসব সত্য বা নিয়ম-কানুন সবার কাছে উন্মুক্ত যে এ সম্পর্কে আরো গভীরে যেতে চান। কিন্তু হিন্দুদের মাঝেও এমন অংশবিশেষ রয়েছে যারা কুসংস্কারে বিশ্বাস করে অথবা ধর্মীয় উগ্রপন্থী যারা ধর্মকে উলট-পালট করে দিতে চায়।"
অভারতীয়রা হিন্দু শব্দটির জন্ম দেয় সিন্ধু নদের উপত্যকায় উৎপত্তির জন্য। এর ফলে ওই অঞ্চলের মানুষদের তখন হিন্দুধর্মাবলম্বী হিসেবে আখ্যা দেয়া হয়। আমি ভদ্রমহিলাকে বললাম, "ধর্ম এখন এক মাল্টি-লেভেল মার্কেটিং ইন্ডাস্ট্রীতে রূপান্তরিত হয়েছে যা ধর্মান্তরের মাধ্যমে প্রসারের মার্কেট শেয়ার বাড়াতে চাচ্ছে। বর্তমানে বিশ্বের সবচেয়ে বড় ব্যবসা হচ্ছে আধ্যাত্বিকতা। হিন্দুধর্মও ইহা ভিন্ন নয়।"
"আমি একজন হিন্দু কারণ হিন্দুধর্ম অসহিংসতার ডাক দেয়। 'অহিংসা পরমো ধর্ম' - অসহিংসতা হচ্ছে সর্বোচ্চ কর্তব্য। আমি একজন হিন্দু কারণ ইহা আমার মনকে কোনো বিশ্বাস ব্যবস্থার সাথে শর্ত জুড়ে দেয় না। একজন পুরুষ/মহিলা যে তার জন্মগত ধর্ম থেকে বিচ্যুত হয়, সে হলো নকল/ভন্ড এবং তার নিজস্ব আদর্শ, সংস্কৃতি ও জীবনের মূল্যবোধকে মূল্য দেয় না। হিন্দুধর্ম হচ্ছে জগতের প্রথম উৎপন্নিত ব্যবস্থা।"
হিন্দু হিসেবে গর্ববোধ করা উচিত। আমরা যে যাহাই, তা নিয়ে সন্তুষ্ট থাকা উচিত।



----------------------------------------------------------------------------------------------



ফেইসবুকে এক গ্রুপের মাধ্যমে উপরোক্ত লেখাটি পাই। ইংরেজীতে লেখাটি শুধু বাংলায় অনুবাদ করলাম। বাংলায় জ্ঞান সীমিত বিধায় কোনো প্রকার ত্রুটী থাকলে মার্জনা করে দিবেন। লেখাটির মূল লেখক আমি নই। প্রকৃত লেখক কে সেটি ওই গ্রুপের পোস্টধারী নিজেও নন। তাই লেখার ক্রেডিট কোনো নির্দিষ্ট ব্যক্তি হিসেবে কাউকে দেয়া সম্ভব হচ্ছে না বলে দুঃখিত।

এটি সকল ধর্মাবলম্বী মানুষদেরই পড়া উচিত। উপরের অনেক বিষয়ই আছে যা হিন্দুধর্মাবলম্বীরা জানেন না অথবা অন্য মতাদর্শীরাও অবগত নন। কোনো ব্যক্তি বা গোষ্ঠীকে উদ্দেশ্য করে লেখাটি অনুবাদ করা হয়নি।




লেখাটির মূল ইংরেজী অংশটুকু নিচে তুলে ধরলাম:

=====================================================


WHY I AM A HINDU - Best Explanation..
Four years ago, I was flying from JFK NY Airport to SFO to attend a meeting at Monterey , CA. An American girl was sitting on the right side, near window seat. It indeed was a long journey - it would take nearly seven hours. I was surprised to see the young girl reading a Bible unusual of young Americans.
After some time she smiled and we had few acquaintances talk. I told her that I am from India Then suddenly the girl asked: 'What's your faith?' 'What?' I didn't understand the question.
'I mean, what's your religion? Are you a Christian? Or a Muslim?'*
'No!' I replied, 'I am neither Christian nor Muslim'. Apparently she appeared shocked to listen to that. 'Then who are you?'
'I am Hindu’, I said.
She looked at me as if she was seeing a caged animal. She could not understand what I was talking about.* A common man in Europe or US knows about Christianity and Islam, as they are the leading religions of the world today. But a Hindu, what?.*
I explained to her - I am born to a Hindu father and Hindu mother. Therefore, I am a Hindu by birth.*
Who is your prophet?' she asked. 'We don't have a prophet,' I replied.*
'What's your Holy Book?'* 'We don't have a single Holy Book, but we have hundreds and thousands of philosophical and sacred scriptures,' I replied.*
'Oh, come on at least tell me who is your God?'* 'What do you mean by that?'* 'Like we have Jesus and Muslims have Allah - don't you have a God?'*
I thought for a moment. Muslims and Christians believe one God (Male God) who created the world and takes an interest in the humans who inhabit it. Her mind is conditioned with that kind of belief.* According to her (or anybody who doesn't know about Hinduism), a religion needs to have one Prophet, one Holy book and one God. The mind is so conditioned and rigidly narrowed down to such a notion that anything else is not acceptable. I understood her perception and concept about faith.
You can't compare Hinduism with any of the present leading religions where you have to believe in one concept of god.* I tried to explain to her: 'You can believe in one god and can be a Hindu. You may believe in multiple deities and still you can be a Hindu. What's more - you may not believe in god at all, still you can be a Hindu. An atheist can also be a Hindu.'*
This sounded very crazy to her. She couldn't imagine a religion so unorganized, still surviving for thousands of years, even after onslaught from foreign forces.*
'I don't understand but it seems very interesting. Are you religious? ' What can I tell to this American girl?*
I said: 'I do not go to temple regularly. I do not make any regular rituals. I have learned some of the rituals in my younger days. I still enjoy doing it sometimes..'*
'Enjoy? Are you not afraid of God?'*
'God is a friend. No- I am not afraid of God. Nobody has made any compulsions on me to perform these rituals regularly. '*
She thought for a while and then asked: 'Have you ever thought of converting to any other religion?'*
'Why should I?. Even if I challenge some of the rituals and faith in Hinduism, nobody can convert me from Hinduism. Because, being a Hindu allows me to think independently and objectively, without conditioning. I remain as a Hindu never by force, but choice.'
I told her that Hinduism is not a religion, but a set of beliefs and practices. It is not a religion like Christianity or Islam because it is not founded by any one person or does not have an organized controlling body like the Church or the Order, I added. There is no institution or authority.*
'So, you don't believe in God?' she wanted everything in black and white. 'I didn't say that. I do not discard the divine reality. Our scripture, or Sruthis or Smrithis - Vedas and Upanishads or the Gita - say God might be there or he might not be there. But we pray to that supreme abstract authority (Para Brahma) that is the creator of this universe.'*
'Why can't you believe in one personal God?'* 'We have a concept - abstract - not a personal god. The concept or notion of a personal God, hiding behind the clouds of secrecy, telling us irrational stories through few men whom he sends as messengers, demanding us to worship him or punish us, does not make sense. I don't think that God is an autocratic emperor who wants others to respect him or fear him. 'I told her that such notions are just fancies of less educated human imagination and fallacies, adding that generally ethnic religious practitioners in Hinduism believe in personal gods.
The entry level Hinduism has over-whelming superstitions too. The philosophical side of Hinduism negates all superstitions.* 'Good that you agree God might exist. You told that you pray. What is your prayer then? she asked' 'Loka Samastha Suk ino Bhavantu. Om Shanti, Shanti, Shanti, '* 'Funny,' she laughed, 'What does it mean?'* 'May all the beings in all the worlds be happy. Om Peace, Peace, Peace. '*
'Hmm ..very interesting.. I want to learn more about this religion. It is so democratic, broad-minded and free' she exclaimed.* 'The fact is Hinduism is a religion of the individual, for the individual and by the individual with its roots in the Vedas and the Bhagavad-Gita. It is all about an individual approaching a personal God in an individual way according to his temperament and inner evolution - it is as simple as that.'
'How does anybody convert to Hinduism?' 'Nobody can convert you to Hinduism, because it is not a religion, but a set of beliefs, practices and a way of life and culture. Everything is acceptable in Hinduism because there is no single authority or organization either to accept it or to reject it or to oppose it on behalf of Hinduism.
'* For a real seeker, I told her, the Bible itself gives guidelines when it says ' Kingdom of God is within you.' I reminded her of Christ's teaching about the love that we have for each other. That is where you can find the meaning of life. Loving each and every creation of the God is absolute and real. 'Isavasyam idam sarvam Isam - (the God) is present (inhabits) here everywhere – nothing exists separate from the God, because God is present everywhere. Respect every living being and non-living things as God. That's what Hinduism teaches you. Hinduism is referred to as Sanathana Dharma, the eternal faith. It is based on the practice of Dharma, the code of life. The most important aspect of Hinduism is being truthful to oneself. Hinduism has no monopoly on ideas - It is open to all. Hindus believe in one God (not a personal one) expressed in different forms. For them, God is timeless and formless entity. Ancestors of today's Hindus believe in eternal truths and cosmic laws and these truths are opened to anyone who seeks them. But there is a section of Hindus who are either superstitious or turned fanatic to make this an organized religion like others.
The British coin the word 'Hindu' and considered it as a religion. I said: 'Religions have become an MLM (multi-level- marketing) industry that has been trying to expand the market share by conversion. The biggest business in today's world is Spirituality. Hinduism is no exception'* I am a Hindu primarily because it professes Non-violence - 'Ahimsa Paramo Dharma' - Non violence is the highest duty. I am a Hindu because it doesn't conditions my mind with any faith system. A man/ woman who change 's his/her birth religion to another religion is a fake and does not value his/her morals, culture and values in life. Hinduism was the first way of life originated. Be proud to be a hindu and be proud of who you are. Om Namo shivaya, Om Namo Narayanaya Namaha*

Sunday, December 20, 2009

একটি চিন্তা, একটি ভাবনা...অবশেষে একটি প্রকল্প

অনেকদিন পর বাংলা ব্লগিং/ফোরামিং জগতে আসলাম ক্লাশ-পরীক্ষা ও বাসা বদলানো ইত্যাদি নানা কারণে এতদিন এই জগতটাতে ততটা পা দিতে পারিনি যা হোক, মূল কথায় আসি
সেদিন বাবার সাথে বসে বাংলাভিশনের খবর দেখছিলাম যেহেতু এ মাসটা বাংলাদেশের জন্য বিজয়ের মাস, সেহেতু চ্যানেলগুলোতে খবরের মধ্যে একটা প্রতিবেদন থাকত মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক অন্যান্য বছরগুলোতেও থাকত, কিন্তু এবার একটা নতুন চিন্তা মাথায় এলো সেদিনকার খবর দেখতে দেখতে
আমাদের বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের ৩৮ বছর পার হয়ে গেলেও অনেক কিছুই ইতিমধ্যে হারিয়ে যেতে বসেছে ইতিহাস ধরে রাখার মতো তেমন প্রকল্প সরকারগুলো রাজনীতিকরণের জন্য করে না মাঝে দিয়ে আমাদের বাঙালীদের একটা মহান অধ্যায়ের অমর ইতিহাস হারিয়ে যেতে থাকে যেমন, সেদিন বিজয় দিবসের দিনে দেখলাম বিপুল ভট্টাচার্য্য, তিমির নন্দীর মতো স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের শিল্পীরা এসে সেই ৭১-এর কিছু অমর গান গাইলো বছরের পর বছর চলে যাচ্ছে আর সেইসব অনবদ্য শিল্পীরা বয়স/বার্ধ্যকের কারণে আমাদের কাছ থেকে হারিয়ে যাচ্ছে কিন্তু সেইসব অমর সৃষ্টি গানগুলো সংরক্ষণ করার কোনো প্রকল্প সরকারী পর্যায়ে বা বেসরকারী পর্যায়েও চোখে পড়ে না
তা এই বিষয়ে চিন্তার পর্যায়ে সেদিনকার খবর দেখতে গিয়ে একটা বিষয় মাথায় এলো এইসব চ্যানেলগুলো প্রতিবছরই বিজয়ের মাস ডিসেম্বর, ভাষার মাস ফেব্রুয়ারী ও স্বাধীনতার মাস মার্চে প্রতিবেদন প্রকাশ করে প্রতিদিনকার খবরগুলোতে সেইসব প্রতিবেদনগুলোতে সেইসময়কার যারা এইসব মহৎ কাজগুলোর স্বাক্ষী বা সরাসরি অংশগ্রহণ করেছেন তাদের কথা উঠে আসে তাছাড়াও আরেক প্রতিবেদনে দেখলাম বিদেশীদের আমাদের মুক্তিযুদ্ধে অবদান সম্পর্কেও প্রতিবেদন
এসব দেখে চিন্তা করলাম এসব তো আমাদেরই সংরক্ষণ করা উচিত হয়ত বা সময়ের দাবীতে যখন যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের কথা উঠে আসবে কিংবা ৫০-১০০ বছর পরে বাঙালী জাতি তাদের পিছনের ইতিহাস জানতে চাইবে তখন এইসব প্রতিবেদন তাদেরকে অনুপ্রেরণা যোগাবে
তাই চিন্তা-ভাবনাটুকু মাথায় আসার পর থেকে শুধু সেমিস্টার শেষ হবার অপেক্ষায় ছিলাম আজ ছুটির প্রথম দিনেই এই পোস্টের মাধ্যমে একটা প্রকল্প হাতে নিতে চাই তা হলো, সেইসব প্রতিবেদন নানা চ্যানেল থেকে সংগ্রহ করে ইউটিউব বা এধরণের সাইটে কিংবা আমাদের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় একটি ওয়েবসাইট/ব্লগ সাইটে সংরক্ষণ করা আমি ইতিমধ্যে কিছু খবর ডাউনলোড করেছি আরও করছি এই কাজে আমার জন্য বিশেষ উপকারে আসছে নাগরিকনিউজেরঅলবাংলানিউজ সাইট দুটো
আমি আপনাদের নিকট এই পোস্টের মাধ্যে আহবান করতে চাই কি করে এই প্রকল্পটিকে সার্থক রূপদান করা যায় সে বিষয়ে আপনার মতামত, উপদেশ ও সাহায্য দিন যাতে করে এটি একটি সম্মিলিত প্রচেষ্টায় বাংলাদেশের ইতিহাস রক্ষার্থে এক বিরাট ভূমিকা পালন করতে পারে আমি সম্প্রতি নতুন বাড়িতে উঠাতে আমার স্পীড আগের যেকোনো সময়ের চেয়ে সবচেয়ে বেশী যদিও আমেরিকায় এর চেয়েও অধিক স্পীড সম্পন্ন আইএসপি আছে কিন্তু আমার ১০ মেগা ডাউনলোডের স্পীড নিয়েই আমি খুশী তাই ডাউনলোডের/আপলোডের বিষয়ে আমার কোনো সমস্যা নাই
পরিশেষে এই পোস্টের ইতি টানতে চাই আপনাদের সকলের সহায়তা কামনা করে যাতে এই প্রকল্পটি সার্থক হয়

Saturday, June 14, 2008

Bangla Help

Writing Help


To write in Bangla, use Avro Keyboard (software) from Omicronlab’s website. Avro is very simple to use since it uses phonetic where the users type Bangla as they would type in English, i.e. বাংলা would be “bangla”.

Viewing Help

Go through the following steps:

  1. Download the latest version of Internet Explorer, Opera or Firefox browser(Firefox 2.0 or later)
  2. Download Unicode Bangla fonts from the here (SolaimanLipi) and copy them to Fonts folder (usually C:\Windows\Fonts)
  3. Go to control panel -> Regional and Language Options -> Language, and check the “Install files for complex scripts and right-to-left languages” option. You will need your Windows XP SP2 installer CD to install these new files.
  4. Install Bangla support on your browsers:
    • On Internet Explorer 6: Go to Tools -> Internet Options -> General -> Languages, and add Bengali as a language.
    • On Firefox 1.5: Go to Tools -> Options -> Advanced -> General -> Edit Languages…, and add Bengali as a language.
  5. Go to your browser’s “view” menu and set the “character encoding” or “encoding” feature to: Unicode (UTF-8).
  6. If you want to change to a favorite Bangla Unicode font for your webpages:
    • For Internet Explorer 6: Go to Tools–>Internet options–>Fonts, choose Bengali from the Language Script pulldown menu and select from one of the available Bangla fonts in your system.
    • For Firefox 1.5: Go to Tools -> Options -> Content tab -> Advanced… in the Fonts and colors section. In the pop up window titled “Fonts”, select Bengali from the “Fonts for:” pulldown Menu and set a Bengali font of your choice for various kinds of fields like Serif, Sans Serif, Monospace, etc. to be shown on webpages.
    • For Opera 9: Go to Tools -> Prefereces -> Advanced tab -> Fonts>International fonts>choose bangla from drop down list. Select Bangla font of your choice. In most of the cases,opera automatically detects your support for unicode onece you have it in operating systems and installed fonts. So, you may not require the steps above.

    Source: wikipedia.org


Alternate Help

Besides these, you can also download BanglaSavvy (223KB) light software which will enable you to view Bangla properly. While this program runs on your computer, you will have no problem whatsoever to view Bangla properly.