Showing posts with label extremists. Show all posts
Showing posts with label extremists. Show all posts

Monday, January 25, 2016

Is this the future of Britain?

Bury Park in Luton is an area notorious for Islamic extremists, ISIS fanatics, hate preachers and terrorists.

It is perhaps the worst hotspot in the whole country for Islamists.


In response to the recent imprisonment of an ISIS supporter (who is from Bury Park) Britain First carried out a "Christian Patrol" along the High Street and encountered ferocious hostility from local Muslims.


What followed was a shocking look into the Islamisation of our beloved country.
Our activists were attacked and pelted with eggs. Verbal abuse was rife. Muslims claimed they have "taken over" Luton and the UK. This is the future of Britain.



[Courtesy: Britain's First]

Sunday, November 22, 2015

Extremism: Short-term Solutions

With the recent Paris attack by ISIS, it is quite clear to everyone that radical or extremist Islam needs to be taken care of as soon as possible by the Free World. No matter which spectrum of the right vs. left wing you might be, you cannot deny that tougher actions need to be implemented at the earliest to prevent any near-future incidents like this to the Free World. Already some of the western nations along with France have gone ahead in crushing some key points of ISIS in Syria. But the action cannot stop there. While I have been reading & listening to various people give their takes on the solution to the overall issue, I myself thought about some steps for a full-stop on this growing problem, once and for all.

Firstly, as we have been seeing in the recent past, the Cold War superpowers were quite divided in how to handle ISIS. While one does not want to proceed with military actions, other has already struck at various locations of ISIS. No matter who is right or wrong, it just cannot make sense to a common folk that at a time when the existence of the western civilization is threatened, how can the two giants sit separately and continue diverging further. When at school, we teach our kids "sharing is caring". Buddha teaches us that "to give is to gain". The Bible tells us that "it is more blessed to give than receive". The point is when the enemy is common, set aside all your personal vendetta, set aside all your past animosity, set aside all your pesky little or big differences, set aside all your ego, and unite for this common purpose because "united we stand, divided we fall". When the enemy is ISIS which affects both of your (US and Russia) very western civilization, strike at the heart of the enemy with combined force. Let the world see that whenever fanatics rise, i.e. during WWII with Hitler, the world leaders know how to deal with it, rather than fighting against themselves on their own issues. I strongly believe that if the western, civilized countries come together under one roof to crush ISIS, it won't be long that we would say ISIS as a 'thing of the past'.



Sunday, November 08, 2015

Muslim extremists in UK


Please watch the video fully before making any comments ......

If this is really to be true, then it's not very far when Islamic extremists will take over Europe ......

কোনো কথা হবে না ...... শুধু ভিডিওটি একটিবারের জন্য দেখুন ...... তারপর নিজেই যাচাই করুন

এই যদি প্রকৃতই সত্যি হয় যুক্তরাজ্যের মতো দেশে তবে আর বেশী দিন নেই মুসলিম কট্টরপন্থীদের ইউরোপ দখল করতে ......



[full video]

[Source]

Wednesday, July 16, 2014

আজ গাজায় নিহত শিশুদের নিয়ে যেসব হিন্দু স্ট্যাটাস দিচ্ছে তারা কি ভারতে হিন্দু হওয়ার অপরাধে ভারতীয় মুসলিমদের হাতে নিহত এই শিশুদের কথা জানে?


প্রথমেই আপনাদের কাছে একটি প্রশ্ন করি, ২০০২ সালে গুজরাটের অক্ষরধাম মন্দিরের শান্তির ধর্মের অনুসারীদের হামলার কথা আপনারা কজন জানেন? মনে হয়না খুব বেশি সংখ্যক মানুষ জানেন বা মনে রেখেছেন।এই আত্মবিস্মৃত হিন্দু জাতি ২০০২ সালের কথাই মনে রাখতে পারে না তারা কি করে শত শত বছর আগে ধ্বংস করা মন্দির গুলোর কথা মনে রাখবে??? দিনটা ছিল ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০০২,ভারতের গুজরাট রাজ্যের গান্ধী নগরে অবস্থিত সুবিখ্যাত এবং অনিন্দ্য সুন্দর অক্ষরধাম মন্দিরে প্রতিদিনের মত হাজার হাজার পুন্যারথি আর দর্শনার্থী হাজির হয়েছেন। তখন বেলা ৩টা।মধ্যাহ্ন ভোজনের পর আবারও ধিরে ধিরে ভিড় জমে উঠছে মন্দিরে। মুর্তজা হাফিজ ইয়াসিন আর আশরাফ আলি মুহাম্মদ ফারুক নামে দুজন শান্তির ধর্মের অনুসারী অক্ষরধাম মন্দিরের ৩ নম্বর ফটক দিয়ে ঢোকার চেষ্টা করল।তাদের শরীরের কাপড়ের আড়ালে লুকান একে ৪৭ আর গ্রেনেড। কিন্তু নিরাপত্তা রক্ষীদের কারনে তারা ঢুকতে পারল না গেট দিয়ে।এভাবে যখন আর সম্ভব হচ্ছিল না তখন মরিয়ে হয়ে দেয়াল টপকে ঢুকেই শুরু করল গুলি বর্ষণ। সঙ্গে সঙ্গে মন্দিরের বুক স্টলের কাছে লুটিয়ে পড়লেন একজন মহিলা দর্শনার্থী এবং একজন মন্দিরের স্বেচ্ছাসেবক।এরপরই এই মুসলিম জঙ্গিদ্বয় প্রধান মন্দির কমপ্লেক্সে ঢুকতে চেষ্টা করল।কিন্তু মন্দির রক্ষিগণ আটকে দিল প্রধান ফটক।ব্যর্থ হয়ে জঙ্গিরা দৌড়ে ঢুকতে চেষ্টা করল মাল্টিমিডিয়া থিয়েটারে।কিন্তু সেখানেও ব্যর্থ হল। অবশেষে তারা ঢুকে পড়ল ১ নম্বর একজিবিশন রুমে।সেখানে তারা নিরবিচারে গুলি বর্ষণ করল। হতাহত হল প্রচুর।এরপর জঙ্গিরা উঠল মন্দিরের ছাদে। বিকাল ৫ টা নাগাদ সমস্ত এলাকা পুলিশ ও বিশেষ বাহিনী ঘিরে ফেলে।কিন্তু তারা জঙ্গিদের ধরতে ব্যর্থ হয়।রাত ১১ টা নাগাদ ‘ব্লাক ক্যাট’ ন্যাশনাল সিকিউরিটি ফোরস এসে দায়িত্ব নেয়।এরপর শুরু হয় আসল অপারেশন যার নাম দেয়া হয় ‘বজ্রশক্তি’।সকাল ৬টা নাগাদ জঙ্গিদ্বয় গুলিতে নিহত হয়।কিন্তু এর মধ্যে জঙ্গিদের গুলি ও গ্রেনেড বিস্ফোরণে মারা গেছেন ৩০ জন সাধারন মানুষ আহত হয়েছেন আরও ৮০ জন।জঙ্গিরা নিষ্পাপ শিশুদেরও মারতে দ্বিধা বোধ করেনি।এই অপারেশনের সময় গুরুতর আহত হন সিকিউরিটি ফোরসের সদস্য সুরজান সিং ভাণ্ডারী। প্রায় দুই বছর কোমাতে থাকার পর ২০০৪ সালে তিনি মারা যান। পরবর্তীতে গুজরাট রাজ্য সরকার, ভারত সরকার,ইন্টারপোল,সি আই এ এবং আরও কিছু দেশি বিদেশি গোয়েন্দা সংস্থার তদন্তে বের হয়ে আসে এই হামলা সংক্রান্ত চাঞ্চল্যকর তথ্য। সৌদি আরবের রাজধানী রিয়াদে এই হামলার পরিকল্পনা করে জইশ ই মুহাম্মদ নামক ইসলামি জঙ্গি সংগঠন। আশরাফ আলি আর মুর্তজা ইয়াসিনের সাথে আইয়ুব খান নামক জঙ্গি পাকিস্তানের লাহোর পিণ্ডি হতে খালী হাতে গুজরাটের আহমেদাবাদে হাজির হয়।সেখানে তাদের কে আশ্রয় দেয় সেলিম হানিফ শেখ ও আদম সুলেমান আজমেরি নামক ভারতীয় মুসলমান যারা ভারত মাতারই ক্রোড়ে লালিত হয়েছিল সারাটি জীবন। আজমেরি তার ভাইয়ের বাড়িতে থাকার জায়গা করে দেয় এবং আরও কিছু ভারতীয় মুসলিম জঙ্গির সাথে পরিচয় করিয়ে দেয় যারা পাকিস্তান থেকে অস্ত্র আগেই এনে রেখেছিল। ২০০৩ থেকে ২০১০ সাল পর্যন্ত বিভিন্ন অপারেশনের মাধ্যমে আজমেরি, মুফতি আব্দুল কাইয়ুম, মুহাম্মদ শেখ সহ ৬ জনকে আটক করে।সর্বশেষ ২০১০ সালে গুজরাট আদালত ৩ জনকে ফাসি এবং ৩ জনকে যাবজ্জীবন কারাগারে দণ্ডিত করে। এভাবেই ভারতের মাটিতে জন্ম নেয়া,ভারত মাতার ক্রোড়ে লালিত মুসলিম সন্তানদের সাহায্যে পাকিস্তানি ইসলামি জঙ্গিরা ভারতের মাটিতে বিভিন্ন সময় সন্ত্রাসের বিষ দাঁত বসিয়েছে ঐতিহাসিক কাল থেকে।


(সংগৃহীত